নিজস্ব প্রতিনিধি

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্পে নতুন পুরোনো মিলিয়ে বসবাস করছে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা। সেখানে রোহিঙ্গাদের একটি অংশ আগে থেকেই নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত রয়েছে। এইসব ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইন শৃংখলা বাহিনী সবসময় তৎপর রয়েছে। তবে সম্প্রতি রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর আইন শংখলা রক্ষার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন(এপিবিএন)এর উপর। দায়িত্ব নেয়ার পর আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন অপরাধীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে পুরোনো অপরাধীদের পাশাপাশি মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে নতুন ডাকাত দল ও সন্ত্রাসী বাহিনী।

গত কয়েকবছর ধরে টেকনাফের নয়াপাড়া, জাদিমুরা, শালবাগান ও লেদা রোহিঙ্গা শিবির ও স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে আলোচিত নাম ডাকাত জকির, ডাকাত আব্দুল হাকিম, ডাকাত নুরুল আলম সহ বেশ কিছু সন্ত্রাসী বাহিনী। এদের মধ্যে আনসার ক্যাম্প লুটের হোতা নুরুল আলম র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। টেকনাফের যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যার পর আলোচনায় আসে ডাকাত জকিরের নাম। এছাড়া টেকনাফের আওয়ামীলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম হত্যার পর ডাকাত আব্দুল হাকিম এক আতংকের নাম। তবে ডাকাত জকির ও আব্দুল হাকিম এখনো অধরা।

এইসব সন্ত্রাসী বাহিনী গুলোর রয়েছে অত্যাধুনিক অস্ত্র শস্ত্র। রোহিঙ্গা শিবিরের পাশের পাহাড় গুলোতে রয়েছে এদের আস্তানা। সন্ধা নামলেই তারা পাহাড় থেকে নেমে এসে ক্যাম্প গুলোতে চালায় ত্রাসের রাজত্ব। শোনা যায় মুর্হুমুহ গুলির শব্দ। আইনশৃংখলা বাহিনী অভিযানে গেলেই তারা পাহাড়ে আত্মগোপন করে। উখিয়া টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্পে রয়েছে তাদের অদৃশ্য নিয়ন্ত্রণ। ডাকাত জকিরকে গ্রেফতার করতে হেলিকপ্টার ও ড্রোন নিয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশান ব্যাটালিয়ন র‌্যাব বেশ কয়েকদফা অভিযান চালালেও জকির অথবা হাকিম কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি এ পর্যন্ত। আবার এইসব সন্ত্রাসী বাহিনীর কোন সদস্যকে আইন শৃংখলা বাহিনী আটক করলেও অদৃশ্য ক্ষমতার বলে অল্পদিনেই তারা আইনের ফাঁক ফোকর গলে বেরিয়ে পড়ে পুনরায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড শুরু করে।

সম্প্রতি টেকনাফের নয়াপাড়া-শালবাগান-লেদা ও জাদিমুড়া শিবিরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে আরো বেশ কয়েকটি উঠতি সন্ত্রাসী বাহিনী। এদের মধ্যে নয়াপাড়া শিবির কেন্দ্রিক সালমান শাহ বাহিনী ইতিমধ্যে আতংক ছড়িয়েছে রোহিঙ্গা শিবিরে ও এর আশেপাশের এলাকায়। ইতিমধ্যে অনেকে তাদের হামলার শিকার হয়েছে। এদের হাতেও রয়েছে নানা অস্ত্র-শস্ত্র। স্বশস্ত্র গ্রুপ গুলো কথায় কথায় নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। আবার সাধারন রোহিঙ্গাদের উপরও চড়াও হয় এরা কোন কারন ছাড়াই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাধারন রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের মতে এইসব উঠতি গ্রুপ গুলোকে এখনি আইনের আওতায় আনতে না পারলে একসময় এরাও জকির, হাকিম কিংবা নুরুল আলমের মতো বড় সন্ত্রাসীতে পরিণত হয়ে আনসার ক্যাম্প লুটের মতো ভয়াবহ ঘটনা ঘটিয়ে দিতে পারে। তাই এদের বিরুদ্ধে জোরদার অভিযানের দাবী তাদের।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সালমান শাহ গ্রুপের নেতৃত্বে রয়েছে নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরের বি ব্লকের ১০৫২/২ নং শেডের সোনা মিয়ার ছেলে সালমান শাহ। এই গ্রুপের সেকেন্ড ইন কমান্ড নুরুন্নবী। তার গ্রুপের অন্য সদস্যদের মধ্যে রয়েছে নয়াপাড়া শিবিরের ই ব্লকের ৯৭২/১ নং শেডের শামসুল আলমের ছেলে নুরুন্নবী তার ভাই আব্দু নবি, ও খাইরুন্নবী, এইচ ব্লকের ৮৭৬/৬ নং শেডের লাল মিয়ার ছেলে কামাল(আনসার ক্যাম্প লুটের হোতা র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত নুরুল আলমের ভাই), সি ব্লকের ডি ব্লকের ৭৩৯/৪ নং শেডের মোগল আহমদেরর ছেলে মো. সাদেক, সি ব্লকের ৮২৬/৬ শেডের দিল মোহাম্মদের ছেলে মো. শফি,  এইচ ব্লকের ৫১৯/৪ শেডের ফারুকের ছেলে নুর হোসেন, ডি ব্লকের ৭৩৮/৫ শেডের লাল পুতিক্কার ছেলে মো. সাইফুল, সি ব্লকের ৮৩৩/১ শেডের ডা. নুর আলমের ছেলে ফয়েজ, ই ব্লকের ৯৪৯/২ শেডের হারুনের ছেলে আলম, তার ভাই মো. শাহ, ডি ব্লকের ৭২৩/১ শেডের মোস্তাক মাঝির ছেলে ফয়সাল, ভুলু ডাকাত সহ রয়েছে আরো বেশ কজন উঠতি সন্ত্রাসী। এদের মধ্যে নুরুন্নবী গত এপ্রিল মাসে অস্ত্র-গুলিসহ উখিয়া থানা পুলিশের হাতে আরো কয়েকজন সন্ত্রাসীসহ আটক হলেও কয়েকদিন আগে জামিনে মুক্ত হয়ে ক্যাম্পে বিচরন করছে। এছাড়া এই গ্রুপের কামালের রয়েছে হত্যা, ডাকাতিসহ একাধিক মামলা, আইন শৃংখলা বাহিনীর সোর্স হাসান হত্যা মামলার আসামী মো. আলম রয়েছে এই সন্ত্রাসী গ্রুপে। এছাড়া গ্রুপের অন্য অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। তারপরও রহস্যজনক কারনে তারা আইনশৃংখলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ সাধারন রোহিঙ্গাদের। তারা কখনো ক্যাম্পে কখনো পাহাড়ে অবস্থান করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। নয়াপাড়া ক্যাম্পের খোঁজ নিয়ে জানা গেছে গত গত ৮ সেপ্টেম্বর সালমান গ্রুপের হামলায় হামলায় আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তী হন স্থানীয় মোছনী পাড়ার কাদের হোসেনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন ও মেয়ে কালা বানু। জানা গেছে সামান্য কথা কাটাকাটির ঘটনায় ভাইবোনকে কুপিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা।
১১ সেপ্টেম্বর সালমান শাহ গ্রুপের হামলায় ছুরিকাহত হয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে মো. আইয়ুব নামে এক রোহিঙ্গা যুবক। তাকেও এলোপাতাড়ী ছুরিকাঘাত করে তারা। শামসুল আলম নামে আরেক রোহিঙ্গা যুবক এ বাহিনীর হামলায় পঙ্গু হওয়ার পথে।

নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সালমান শাহ্‌ বাহিনীর হামলায় আহত শাসসুল আলম

গত ১৪ সেপ্টেম্বর নয়াপাড়া ক্যাম্পের মোহাম্মদ আলমের দোকানে হামলা চালায় সালমান শাহ গ্রুপ। তাকে না পেয়ে দোকানে কিরিচ দিয়ে এলোপাতাড়ী কুপায় তারা পরে ফাঁকা গুলি বর্ষন করে চলে যায়। বর্তমানে নয়াপাড়া-জাদিমুড়া-লেদা ও শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সাধারন রোহিঙ্গা ও স্থানীয় বাসিন্দারা সালমান শাহ গ্রুপের ভয়ে আতংকে দিন কাটাচ্ছেন।

এই ব্যাপারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আইন শৃংখলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত ১৬ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন(এপিবিএন) অধিনায়ক পুলিশ সুপার মো. হেমায়ুতুল ইসলাম জানান, এপিবিএন রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে আইন শৃংখলা রক্ষার দায়িত্ব নেয়ার পর প্রায় প্রতিদিনই ক্যাম্প গুলোতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, মাদক সহ অপরাধে জড়িতদের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে যাচ্ছে। সালমান শাহ গ্রুপ সহ যে কোন বাহিনী ক্যাম্পে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করলে অবশ্যই তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান তিনি।  বুধবার ভোরে এপিবিএন সদস্যরা টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পেছনে আইব্লক এলাকা থেকে রবিউল ইসলাম নামে এক সন্ত্রাসীকে একটি কাটা রাইফেল ও ৩৬ রাউন্ড গুলিসহ আটক করেছে।