শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

রোহিঙ্গা তরুণীও ভুলে থাকতে চায় সেই নৃশংসতা!

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৮
  • ২৬৪ Time View

আলোকিত টেকনাফ রিপোর্টঃ-

মিয়ানমারে সহিংসতায় মাকে হারিয়েছে রোহিঙ্গা যুবতী আনোয়ারা বেগম। মনে সেই ভয়াবহতা এখনো তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে তাকে। তবুও সাধ্যের মধ্যে নিজেকে পরিপটি করে আনোয়ারা এখন ভুলে থাকতে চায় মিয়ানমারের সেই নৃশংসতা।

এই দৃশ্যটি দেখা গেছে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে। রোহিঙ্গা আগমনের এক বছর উপলক্ষে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় ও ইন্টার সেক্টর কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ যৌথভাবে রোহিঙ্গা পরিস্থিতির এক বছরের বিভিন্ন ছবি নিয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে। সেখানে একটি ছবিতে এই দৃশ্য দেখা গেছে।

ছবির নিচের বর্ণনা অনুযায়ী ২০১৭ সালের কোরবানের ঈদের কয়েকদিন পর কক্সবাজারের বালুখালী রোহিঙ্গা শিবিরে পৌছে আনোয়ারা বেগম। এখন তার ঠাঁই হয়েছে বালুখালী- ২ আশ্রয় শিবিরে। সেখানে সে নিকটাত্মীয়দের সাথে থাকে।

প্রদর্শনীতে উঠে এসেছে রোহিঙ্গা ঢলের সময়ের বিভিন্ন করুণ দৃশ্যের ছবি। বাবার হাতে গুলিবিদ্ধ সন্তান, সন্তানের কাঁদে বৃদ্ধ মা, সীমান্তে খাবারের জন্য হাহাকারসহ নানা করুণ দৃশ্যের ছবি দর্শণার্থীদের ফিরিয়ে নিয়ে যায় সেই অতীতে।

তবে এখন সেই করুণ দৃশ্য পাল্টেছে। উখিয়া-টেকনাফের আশ্রয় শিবিরে নিরাপদ আশ্রয়ের ঠিকানা পেয়েছে রোহিঙ্গারা। রাস্তাঘাটের উন্নতি হয়েছে। সব মিলিয়ে এখন তারা ভালই আছে। এমন দৃশ্যও প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে। প্রদর্শনীতে প্রায় ৭০টি ছবি স্থান পেয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই প্রদর্শনী চলে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রদর্শনী দেখতে আসেন দুর্যোগ ব্যবস্থা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, জাতিসংঘের বাংলাদেশস্থ আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সাপ্পো, উখিয়া-টেকনাফের সাংসদ আব্দুর রহমান বদি, দুর্যোগ ব্যবস্থা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ফয়জুর রহমান, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম।

এছাড়াও প্রদর্শনী দেখতে যান জাতিসংঘের বিভিন্ন দাতা সংস্থা ও বিদেশি এনজিও সংস্থার উচ্চ পর্যায়ের কর্মকতারা।

এসময় সেখানে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় অংশ নেন অতিথিরা। মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে প্রদর্শিত এক একটি ছবি যেন তাদের দুঃখ দুর্দশার মহাকাব্য। এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সংস্থার দৃষ্টি আকর্ষণ হবে। বাংলাদেশ যদি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় না দিত তাহলে এ অঞ্চলে একটি মহা মানবিক বিপর্যয় সংগঠিত হতো। কিন্তু এখন রোহিঙ্গা নাগরিকেরা বাংলাদেশের আর্থিক ও সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি করছে। তাই তাদেরকে (রোহিঙ্গা) দ্রুত ফিরিয়ে নিতে হবে মিয়ানমারকে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH