বাড়িআলোকিত টেকনাফর‍্যাগ ডেঃ নৈতিকতার পাঠের বিপরীতে অশ্লীলতার র‍্যালী

র‍্যাগ ডেঃ নৈতিকতার পাঠের বিপরীতে অশ্লীলতার র‍্যালী

একটি শরীরের পচন যখন মাথা দিয়ে শুরু হয় তখন নিশ্চিত হয়ে যায় মানুষটি বেশি দিন বাঁচবে না। ঠিক তেমনি একটি জাতির পচন যখন শিক্ষিতদের কাছ থেকেই শুরু হয় তখন নিশ্চিত হতে হয় এই জাতির ধবংস অনিবার্য। কারণ মাথা হলো একজন মানুষের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সেজন্য তো প্রধান শিক্ষককে বলা হয় Head Teacher ( হেড অর্থ মাথা; এখানে প্রধান বা গুরুত্বপূর্ণ অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে)
্যাগ ডে ও রাগিং শব্দদ্বয়ের প্রচলিত অর্থও ভিন্ন। স্বাভাবিকভাবে রাগিং বলা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনিয়রদের কতৃক জুনিয়র বা নবীনদের তাচ্ছিল্যের নামে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন। এই রাগিং নেতিবাচক হিসেবে পরিচিত ও সমাদৃত। বিশেষত এই কাজগুলি করে যে কোন ক্ষমতাসীন দলের বিশ্ববিদ্যালয়ের মিনি ও পাণ্ডা নেতারা। এভাবে তারা তাদের শক্তিমত্তার জানান দেয়। এটি গর্হিত কাজ তা সবার কাছে স্পষ্ট। এই র্যাগিং’র কারণে অনেক শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে ; ছাত্রত্ব বাতিল করেছে; এমনকি আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটেছে।
দ্বিতীয়ত “র্যাগ ডে”। এই শব্দটির উৎপত্তি নিয়ে তেমন কোন উৎস পাওয়া না গেলেও ১৮৬৪ সালের পূর্বে অক্সফোর্ড ডিকশনারিতে ছিলো না। তবে ১৮২৮-১৮৪৫ সালের দিকে আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচলনের যাত্রা শুরু হয়। তবে মজার ব্যাপার হলো, ইউরোপ আমেরিকাতে যাত্রার সূচনা হলেও বর্তমানে ভারতীয় উপমহাদেশে এর ব্যাপকভাবে প্রচার হতে লাগলো। ইতিহাস বলে, ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষ অনুকরণ বিদ্যায় বেশ পারদর্শী।
তবে একদল গবেষক বলেন, ভিক্টোরিয়ান যুগে বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল যুবক গরীব দুস্থদের র্যাগ বা পুরনো কাপড় সংগ্রহ করতে শুরু করে। পড়ালেখার পাশাপাশি এই সামাজিক ও দাতব্য কাজ ব্যাপকভাবে সাড়া পায় এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপকভাবে আগ্রহের সৃষ্টি করে। এই কর্মসূচির নাম Raise And Give বা Raise And Grand ( RAG) নামে পরিচিত।
কিন্তু কালের বিবর্তনে এই ‘র্যাগ ডে’ নিজস্ব আবেদন হারাতে থাকে।ফলে এই উপমহাদেশে “র্যাগ ডে” পালনের মুখোশ পাল্টে যায় এভাবে যে, স্নাতকোত্তর পাশের শেষের দিন দিনে র্যালি ও বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য সবার সামনে মোটিভেশনাল ও উৎসাহমূলক বক্তব্য প্রদান করে ডিনারের ব্যবস্থা করতো। এভাবেই কিছুদিন পালনের পরে ধীরে ধীরে তা হিন্দু ধর্মের একটি উৎসবের রূপ লাভ করে। এভাবেই বিশ্ববিদ্যালয়ে তা অব্যাহত আছে। কিছুদিন পূর্বেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ “র্যাগ ডে” পালনের বিপক্ষে মত দিলে প্রচুর সমালোচনার মুখে পড়ে তা থেকে সরে বসে।
তবে দুঃখের বিষয় হলো, যে দিনটি স্নাতকোত্তর শেষে করা হতো সেই উৎসবকে এতো নিচে নেমে এনে এস. এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায়ের দিন বা সমাপনী দিন এ র্যাগ ডে পালন শুরু হয়েছে যা জাতির জন্য ঘোর অশনি সংকেত। এই তো কয়েকবছর পূর্বেও এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের বিদায়ের দিন ছিলো বন্ধু বান্ধবের সাথে বিচ্ছেদের শোকার্ত সময়। কান্না ও শিক্ষকদের থেকে ক্ষমা চাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ সময় ও সামনের জীবনের জন্য উৎসাহমূলক নসিহত শোনার গুরুত্বপূর্ণ আসর।
এই ডিজিটাল যুগে বিদায়ের দিনকে লাথি মেরে র্যাগ ডে নামক দিনটি কিশোর কিশোরিদের মাঝে নৈতিকতার বিপরীতে অশ্লীলতার প্রচার শুরু করছে যা আমাদের অজান্তে শিক্ষিতদের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করছে অশ্লীলতার সয়লাব। যে যুবকদের কাছে সমাজ আশা করে নৈতিকতার পাঠ, সেই যুবকের পিঠে আজ অশ্লীলতার র্যালী। যে যুবকের মুখে সমাজ আশা করে বিদ্যার প্রতিচ্ছবি, সেই যুবকের মুখে আজ বান্ধবীদের হাতে যৌন সুড়সুড়িমূলক শব্দ।
এই সময়ে যদি এই অপসংস্কৃতির লাগাম টেনে ধরা না হয়, ধীরে ধীরে ক্লাস ফাইভের পরীক্ষার্থীরাও র্যাগ ডে পালন করবে।
RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments