নিজস্ব প্রতিনিধি 

টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহ্‌পরীরদ্বীপ এলাকায় মিয়ানমার থেকে টেকনাফ স্থল বন্দরগামী একটি ট্রলার থেকে অর্ধকোটি টাকার মালামাল লুটপাত করা হয়েছে। ট্রলারে অর্ধকোটি টাকার আদা এবং জিরা মজুদ ছিল। এই ট্রলারটি ঠিকমত খালাস করা গেলে ১২ লাখের মত রাজস্ব আদায় করা যেত। কিন্থু লুটপাতের কারণে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হল সরকার। 

গত শনিবার (২ অক্টোবর) ভোড় ৬ টার দিকে শাহ্‌পরীরদ্বীপ এবং সেন্টমার্টিনের মধ্যবর্তী এলাকায় জেগে উঠা চরে লুটপাতের এই ঘটনা ঘটে। 

জানা যায়,ট্রলারটি জিন্নাহ অ্যান্ড ব্রাদার্স নামে একটি সিএন্ডএফ এজেন্টের জন্য মিয়ানমার থেকে ১১৪ মেট্রিক টন আদা (৩৮০০ বস্তা) এবং ৭ টন ৭০০ কেজি (২২০ বস্তা) জিরা নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছিল। পতিমধ্যে শাহ্‌পরীরদ্বীপ জেটি সংলগ্ন চরে পৌঁছালে পানি স্বল্পতায় তা আটকে যায়। ট্রলারটির সাথে থাকা মাঝি মাল্লারা প্রাণনাশের ভয়ে আশেপাশের মাছধরার নৌকার সহযোগিতায় স্থলে ফিরে আসে। ফলে, ট্রলারটি লোকশুন্য হয়ে পরে। 

এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আশেপাশের জালিয়া পাড়া, দক্ষিণ পাড়া, মাঝেরপাড়া এবং মিস্ত্রিপাড়ার লোকজন ছোট ছোট নৌকা নিয়ে ট্রলার থেকে আদা এবং জিরা লুটপাত করে। 

জিন্নাহ অ্যান্ড ব্রাদার্সের ম্যানেজার মোঃ সোহেল বলেন, শনিবার (২ অক্টোবর) দিবাগত রাতে মালবাহী ট্রলারটি শাহ্‌পরীরদ্বীপ জেটি সংলগ্ন চরে আটকে যায়। ট্রলারটির মাঝি এবং অন্যান্যরা ভয়ে কুলে চলে আসে। ফলে মাঝিশুন্য হয়ে পরে ট্রলারটি। শাহ্‌পরীরদ্বীপে প্রায় প্রতিদিন ৩০০ নৌকা সাগরে মাছ ধরে। সেদিনও অনেক নৌকা সাগরে ছিল। তারা ট্রলারটি লোকশুন্য দেখতে পেয়ে মাছের পরিবর্তে আদা এবং জিরা লুটপাত করে। মালামালের পরিমাণ বেশী হওয়ায় তারা নিজ নিজ এলাকার লোকজনকে ও খবর দেয়। 

খবর পেয়ে দ্রুত শাহ্‌পরীরদ্বীপ যায়। এরমধ্যে মালামাল লুটপাত হয়ে গেছে বলে জানতে পারি। স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুস সালামের সহযোগিতা চায়।  জিরা প্রতি বস্তা ১০০ টাকা এবং আদা ৫০ টাকার বিনিময়ে ফেরত দেওয়ার প্রস্তাব করি। কিন্থু সে টাকা বেশী দাবী করে আমাকে বলে এত কম টাকায় আমি উদ্ধার করে দিতে পারবোনা। তারা আমাকে ভোট দিয়ে ইউপি সদস্য নির্বাচিত করেছে। আগামীতে আমাকে ভোট ও দিবে না। মালামাল আনতে তাদের পরিবহণ খরচ বেশী হয়েছে। 

মালামাল উদ্ধারে প্রশাসনের সহযোগিতা ছেয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলে, আমরা পুলিশ, বিজিবি এবং কোস্টগার্ডকে অবহিত করেছিলাম। 

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুস সালাম মালামাল লুটপাতের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, জেগে উঠা চরে আটকে পরা একটি ট্রলার থেকে আদা এবং জিরা লুতপাত হয়েছে বলে জানতে পারি। আমার লোকজন ছোট ছোট নৌকা নিয়ে মালামাল গুলো নিয়ে আসে। মালিক পক্ষ আমার সাথে যোগাযোগ করেছিল কিন্থু তাদের প্রস্তাবে টাকার পরিমাণ কম হওয়ায় আমি উদ্ধার করে দিতে পারিনাই। 

এদিকে এই ঘটনায় একজন ইউপি সদস্যের অসহযোগিতায় ক্ষোভ জানিয়েছে বন্দরের ব্যবসায়ীরা। ইউপি সদস্যের ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্য রাষ্ট্র বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হল।