এম জুবাইদ, পেকুয়া (কক্সবাজার)

কক্সবাজারের পেকুয়ায় মুজিব কিল্লা নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স কাজল এন্ড ব্রাদার্সের বিরুদ্ধে। উপজেলার মগনামা ইউপির শরৎঘোনা ও উজানটিয়া ইউপির মালেকপাড়ায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে মুজিব কিল্লার নির্মাণ কাজ শুরু করছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামের সাথে যোগসাজশে অনিয়ম করে যাচ্ছে ঠিকাদার। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে বার বার জানানো হলেও কোন কর্ণপাত করেননি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পূর্ব উজানটিয়া মালেক পাড়া নির্মাণাধীন মুজিব কিল্লায় ফ্রেশ বালুর বদলে পাহাড়ি মাটিযুক্ত বালু, লবণাক্ত পানি ব্যবহার করা হচ্ছে। রোলার দিয়ে মাটির লেবেল ঠিক না করে অপরিষ্কার কংক্রিট ও সিলেটি বালি না দিয়ে কাজ চালিয়ে চালাচ্ছে এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এমনকি প্রকল্প এলাকায় কোনো ধরনের সাইন বোর্ডও দেওয়া হয় নি। বেইজ ঢালাই দেওয়ার পর ঢালা হয়নি পানি।

পানি না দেওয়ার কথা স্বীকার করে মেসার্স কাজল এন্ড ব্রাদার্সের ম্যানেজার আরমান বলেন, এখানে মিঠা পানি পাইনি তাই দেওয়া হয়নি। পাহাড়ি মাটি না বালু জানতে চাইলে তিনি বলেন-এই বালু আর ব্যবহার করা হবে না।

এছাড়া ভরাট মাটির ওপর লেবেল ঠিক না করে কিভাবে পিলার নির্মাণ হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা আমরা করি নাই। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম স্যার করতে বলেছেন তাই করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, কেউ তাদের অনিয়মের কথা দেখিয়ে দিলে উল্টো তাদের চাঁদাবাজির মামলার হুমকি দেন।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে মেসার্স কাজল এন্ড ব্রাদার্সের মালিক জয়নাল আবেদীন কাজল বলেন, সবার সাথে আমার ভালো সম্পর্ক, কেউ প্রকল্প দেখতে যায় না। স্থানীয় কিছু লোক অপ্রচার চালাচ্ছে। কেন গেছেন? ওখানে যাওয়ার কি ছিল আমাকে একটা কল দিলেই হয়, আমার ম্যানেজার আছে ওনার সাথে কথা বলেন, উনি খরচ পাতি দিয়ে দিবে।

অনিয়মের বিষয়ে জানার জন্য উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামের সাথে ফোনে কথা হয়। তিনি বলেন, ভাই শুধু অপ্রচারে কান দিয়েন না। সবকিছু ঠিক আছে। ঠিকমত চলতেছে কাজ, বলেই সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোতাছেম বিল্যাহ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অনিয়মের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি কাজ পরিদর্শন করতে গিয়েছিলাম। বালু ও কংক্রিটগুলো নিম্নমানের হওয়ায় এসব নিম্নমানের মালামাল সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জাহিদ ইকবাল এর সাথে যোগাযোগ করা হলে খোঁজ নিয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান তিনি।