রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৪২ পূর্বাহ্ন

সাড়ে ৪ বছরেও শুরু হয়নি ১৪০টি মডেল মসজিদের নির্মাণকাজ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩ Time View

জোসনা জামান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্পে বিরাজ করছে এমন ধীরগতি। প্রকল্পের মেয়াদের সাড়ে চার বছর শেষ হলেও এখনো কাজ শুরু হয়নি ১৪০টি মসজিদের। এই অবস্থায় প্রকল্পটির ব্যয় ও মেয়াদ বাড়িয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে।

সূত্র জানায়, এরই মধ্যে ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের নির্মাণকাজ শেষে উদ্বোধন করা হয়েছে। ৩৭০টির নির্মাণকাজ চলমান। অবশিষ্ট ১৪০টির কাজ শুরু করার জন্য জমি সংগ্রহ, জমি অধিগ্রহণ ও টেন্ডার প্রক্রিয়া চলমান। প্রকল্পের অবশিষ্ট কাজ সম্পাদনের জন্য প্রকল্পটির দ্বিতীয় সংশোধন প্রস্তাব করা হয়েছে।

জানা গেছে, গত জুন মাস পর্যন্ত প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি ১৭ দশমিক ৮৭ শতাংশ। খরচ হয়েছে এক হাজার ৫৫৮ কোটি ২৭ লাখ টাকা। তবে এ সময়ে বাস্তব অগ্রগতি ৩২ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।

গত জুন মাসে অনুষ্ঠিত প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভার বক্তব্য হচ্ছে, প্রকল্পের বর্তমান অগ্রগতি বিবেচনায় নিয়ে প্রকল্পের সুষ্ঠু ও যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য বাস্তবতার নিরিখে প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যেতে পারে। এছাড়া জটিলতার কারণে নির্ধারিত মেয়াদে কোনো মসজিদ নির্মাণ করা সম্ভব না হলে, তা অসমাপ্ত রেখে প্রকল্প সমাপ্ত করা যেতে পারে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক (পরিকল্পনা) হাজেরা খাতুন বুধবার সারাবাংলাকে বলেন, প্রকল্পটিতে চাহিদা মতো অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। ফলে বাস্তবায়ন কাজ দেরী হয়েছে। তবে আগামী একনেক বৈঠকে সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন পেলে আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আশা করছি বর্ধিত মেয়াদ ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে বাকি মসজিদগুলোর কাজ শেষ করা সম্ভব হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের একাধিক কর্মকর্তা সারাবাংলাকে জানান, ইতোমধ্যেই প্রকল্পটি প্রক্রিয়াকরণের কাজ শেষ হয়েছে। প্রকল্পটির সংশোধনী প্রস্তাব জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় উপস্থাপনের প্রস্তুতি চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রকল্পটির মূল অনুমোদিত ব্যয় ছিল ৯ হাজার ৬২ কোটি ৪১ লাখ টাকা। পরবর্তীতে প্রথম সংশোধনীর মাধ্যমে ব্যয় কিছুটা কমিয়ে ধরা হয় ৮ হাজার ৭২২ কোটি টাকা। তবে এবার ৭১৩ কোটি টাকা বাড়িয়ে মোট ৯ হাজার ৪৩৫ কোটি বাড়িয়ে দ্বিতীয় সংশোধনীর প্রস্তাব করা হয়েছে।

এদিকে প্রকল্পটির মূল অনুমোদিত মেয়াদ ছিল ২০১৭ সালের এপ্রিল হতে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। বাস্তবায়ন মেয়াদ দুই বছর ৯ মাস ধরা হয়েছিল। এরপর প্রথম সংশোধনীর মাধ্যমে মেয়াদ দেড় বছর বাড়িয়ে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত করা হয়েছিল। এতেও বাস্তবায়নের গতি না আসায় ৩ বছর বাড়িয়ে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে মোট যাচ্ছে ৭ বছর ৩ মাস।

প্রকল্পের সংশোধনী প্রস্তাবনায় বলা হয়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের প্রচার ও প্রসারের জন্য ১৯৭৫ সালের ২ শে মার্চ এক অধ্যাদেশ বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। গত ৪৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশব্যাপী ইসলামের প্রচার প্রসারের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন অ্যাক্ট অনুযায়ী ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। মুসলিম নারী ও পুরুষদের নামাজ আদায়ের সুবিধাদি বৃদ্ধির জন্য জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আনুষঙ্গিক সুযোগ-সুবিধাসহ ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের জন্য প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প বাংলাদেশ সরকার ও সৌদি আরব সরকারের অর্থায়নে মোট ৯ হাজার ৬২ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে ২০১৭ সালের এপ্রিল হতে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাস্তবায়নের জন্য ২০১৭ সালের ২৫ এপ্রিল একনেকে অনুমোদিত হয়।

প্রকল্পটি অনুমোদিত হওয়ার প্রায় এক বছর পার হলেও বৈদেশিক সাহায্যে প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়ায় সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পটির প্রথম সংশোধনী প্রস্তাব করা হয়।

প্রস্তাবিত প্রকল্পের মাধ্যমে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করে মুসল্লিদের নামাজ আদায়, সামাজিক সচেতনতা, ধর্মীয় শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে মুসলমানদের মধ্যে ধর্মীয় বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। এছাড়া ইসলামের মৌলিক বিষয়ে গবেষণা কার্যক্রম, মুসলমানদের ইসলামিক মূল্যবোধ ও নৈতিকতা উন্নয়নের জন্য সাংস্কৃতিক কার্যক্রম বাস্তবায়ন এবং সমাজে অশিক্ষা, নারী নির্যাতন, যৌতুক, মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের যে প্রভাব রয়েছে তা দূর করার জন্য এ প্রকল্পটি নেয়া হয়। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে এবং মুসলমান সম্প্রদায়ের ইসলামিক মূল্যবোধ ও নৈতিকতা উন্নয়নের জন্য প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

প্রকল্প সংশোধনের কারণ হিসাবে বলা হয়, প্রকল্পের প্রথম সংশোধিত মেয়াদ ২০১৭ সালের এপ্রিল হতে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত নির্ধারিত ছিল। এই সময়ের মধ্যে ৫০টি মসজিদের নির্মাণ কাজ সমাপ্ত করে ইতোমধ্যে উদ্বোধন করা হয়েছে। ৩৭০টি মসজিদের নির্মাণকাজ বাস্তবায়নাধীন। নির্মাণাধীন ৩৭০টিসহ অবশিষ্ট ১৪০টি মসজিদের নির্মাণকাজ সম্পন্ন করার জন্য প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৭ সালের এপ্রিল হতে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত বৃদ্ধির প্রয়োজন।

রেইট শিডিউল পরিবর্তনের জন্য নির্মাণ খাতের ব্যয় বৃদ্ধি: প্রথম সংশোধিত উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) নির্মাণকাজের ব্যয় প্রাক্কলন গণপূর্ত অধিদপ্তরের ২০১৪ সালের রেইট শিডিউল অনুযায়ী প্রণয়ন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে ২০১৮ সালের রেইট শিডিউল অনুযায়ী ব্যয় প্রাক্কলন করায় প্রকল্পের নির্মাণকাজের প্রাক্কলিত ব্যয় বৃদ্ধি পেয়ে ৭ হাজার ৪১৪ কোটি ২০ লাখ ৭২ হাজার টাকার স্থলে ৮ হাজার ৬৫৫ কোটি ৬৪ লাখ ৬৬ হাজার টাকা হয়েছে।

জমি অধিগ্রহণ খাত ব্যয় হ্রাস: এ খাতে মোট ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। প্রয়োজনীয়তার জন্য ২৮৮ কোটি ৯৬ লাখ ৮৪ হাজার টাকা কমিয়ে এ খাতে ৩১১ কোটি ৩ লাখ টাকা ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে।

অন্যান্য খাতে ব্যয় বৃদ্ধি: কর্মচারীদের বেতন ভাতা, গাড়ির গ্যাস ও জ্বালানি, মোটরযান, আসবাবপত্র, কম্পিউটার ও যন্ত্রাংশ মেরামত ও সংরক্ষণ খাতে ব্যয় বৃদ্ধি এবং ভ্রমণ, কনসালটেন্সি, সম্মানী, প্রচার ও বিজ্ঞাপন ইত্যাদি খাতে ব্যয় কমেছে। প্রধানত এসব কারণে প্রকল্পটি সংশোধন করতে হচ্ছে বলে জানা গেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH