খাঁন মাহমুদ আইউব।

কক্সবাজার সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ফের বৃদ্ধি পেয়েছে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ। মিয়ানমার থেকে কারামুক্তির পর বিচ্ছিন্ন ভাবে ছোট ছোট দলে এই পর্যন্ত অর্ধ শতাধিক রোহিঙ্গা প্রবেশ করেছে। প্রবেশের পর তারা কক্সবাজারের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শিবিরে অবস্থান করছে। আরো কিছু সংখ্যক সীমান্ত অতিক্রমে অপেক্ষায় রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে টহল জোরদার করা হয়েছে বলে দাবী বিজিবির। তবে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয় এই ব্যাপারে মন্তব্য করতে নারাজ।

অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের দাবী গেলো ২০১৭ সালে রাখাইনে সাম্প্রদায়ীক দাঙ্গা চলাকালীন আটক হয়ে সম্প্রতি তারা কারামুক্ত হয়ে অনুপ্রবেশ করেছে। সম্প্রতি মিয়ানমারের জান্তা সরকার ২৩ হাজার বন্দিকে সাধারণ ক্ষমার আওতায় মুক্তি দিয়েছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। এদের মধ্যে ছয়শো রোহিঙ্গাও রয়েছে।

গেলো ২৯ এপ্রিল ৬ জনের একটি দল উনছিপ্রাং সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করে টেকনাফের জাদিমুড়া ও উনছিপ্রাং ক্যাম্পে অবস্থান নিয়েছেন। একই ভাবে ২ মে এসেছে ৩ জনের অপর একটি দল। তারাও ক্যাম্পে তাদের স্বজনদের সাথে অবস্থান করছেন। এভাবে অন্তত শতাধিক রোহিঙ্গা সীমান্ত অতিক্রম করেছে জানা গেছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইন শৃংখলার দায়িত্বে নিয়োজিত আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) ১৬ এর অধিনায়ক পুলিশ সুপার মো. তারিকুল ইসলাম বলেন- সপ্তাহ খানেক ধরে প্রতিদিনই বিচ্ছিন্ন ভাবে কিছু কিছু রোহিঙ্গা সীমান্ত অতিক্রম করে ক্যাম্প গুলোতে ঢুকে পড়ছে। ২০১৭ সাল থেকেই তারা মিয়ানমারে কারাবন্দী ছিল। সম্প্রতি মুক্তি পেয়ে তারা আগে থেকে এদেশে থাকা তাদের স্বজনদের কাছে টেকনাফের উনছিপ্রাং ও হ্নীলা সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করছে।  ক্যাম্পে নতুন করে আসা এসব রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়কে অবগত করা হয়েছে।
 
বিজিবির তথ্য মতে, ৪ মাসে অনুপ্রবেশকালে অন্তত দেড়শ রোহিঙ্গাকে সীমান্ত দিয়ে পুশব্যাক করা হয়েছে। বিজিবি সদর দপ্তরের পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান জানান, ‘অনুপ্রবেশের চেষ্টা যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে তেমনি অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে টহল দ্বিগুন করা হয়েছে। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশ ঠেকানো হচ্ছে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে বলে দাবী করেন তিনি।

তবে সম্প্রতি অনুপ্রবেশ করা রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি বিজিবির এই কর্মকর্তা। এদিকে, এবিষয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয়ের কর্মকর্তারা কোন মন্তব্য করতে রাজী না হওয়ায় তাদের বক্তব্য জানা যায়নি।