স্বাভাবিক ন্যায় বিচারের মূলনীতিঃ ১ম পর্ব

এডভোকেট জিয়াবুল আলম

স্বাভাবিক ন্যায়বিচার মানুষেরই বিশ্বজনীন ন্যায়বােধ থেকে উদ্ভূত এবং বিকাশিত বিভিন্ন পন্ডিত লেখক, আইনজীবী এবং দার্শনিক স্বাভাবিক ন্যায়বিচারকে বিভিন্ন ভাবে ব্যাখ্যা করেছেন। এর রয়েছে বিভিন্ন ধরণ ও বৈশিষ্ট্য মূলত স্বাভাবিক ন্যায়বিচারের নীতিমালা কোন বিধিবদ্ধ নীতিমালা নয় এবং তা অনমনীয় সুলিখিত কোন নীতিমালাও নয় । স্বাভাবিক ন্যায়বিচার নির্ভর করে পরিস্থিতির প্রয়ােজন ও প্রকৃতি এবং মানুষের ন্যায় বােধের উপর মানুষের অধিকারের প্রকৃতি, অধিকার বিনষ্টের ধরন, প্রচলিত আইনকানুন ইত্যাদির উপরও স্বাভাবিক ন্যায়বিচার খানিকটা নির্ভরশীল। স্বাভাবিক ন্যায় বিচারের নীতির ধরন সম্পর্কে Lord Harman বলেন, স্বাভাবিক ন্যায়বিচারের নীতি কি রকম । সে সম্পকে “আমি বলব প্রথমেই যে ব্যক্তির বিরুদ্ধে। অভিযােগ আনা হয়েছে তাকে অভিযােগের প্রকৃতি সম্পকে অবহিত করা। দ্বিতীয়ত তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনে সুযােগ দেওয়া ও তৃতীয়ত বিচার বিভাগ যাতে সৎ বিশ্বাসে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা করে সেই দিকে লক্ষ্য রাখাই হচ্ছে স্বাভাবিক ন্যায় বিচার” । বিচারক এমন একটি অবস্থান ও পদমর্যাদার হবেন যাতে তিনি সততা ও নিরপেক্ষতার সাথে বস্তুনিষ্ঠ সিদ্ধান্ত দিতে পারেন। যেখানে বিচারকের আর্থিক কিংবা অন্য কোন প্রকার স্বার্থ জড়িত সে বিষয়ে তিনি বিচারকার্য পরিচালনা করতে পারবেন না । (i) Nemo debet esse judex in propria causa (ii) Audi alteram partem আলােচনাঃ মূলত Natural Justice এর তিনটি স্বীকৃত নীতি পরিলক্ষিত
★★★Rule against bias:
যার অর্থ হচ্ছে কোন ব্যক্তিই তার নিজের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিচারক হতে পারবে অথবা সিদ্ধন্ত গ্রহণকারী কর্তৃপক্ষ নিরপেক্ষ এবং প্রভাবমুক্ত হবেন। অর্থাৎ Principle against bias or interest হচ্ছে এই নীতির মূল সুর । এই নীতিটি বিশ্লেষন করলে আমরা নিতটি maxims এর অস্তিত্ব দেখতে পাই- a. কোন ব্যক্তি তার নিজের বিষয়ের বিচারক হবেন না। b. শুধু সুবিচার করলেই হবে না। সুবিচার করার বিষয়টি প্রকাশ্য এবং সন্দেহাতীত ভাবে প্রদর্শন করতে হবে। c. বিচার ও বিচারক এবং সকল প্রকার প্রমাণাদি হতে হবে সন্দেহমুক্ত। বিচার পক্ষপাতিত্ব বা Bias বলতে বুঝায় একদিকে ঝুঁকে পড়া এবং এর দ্বারা ন্যায়বিচার বাধাগ্রস্ত হয়। আসলে Bias কথাটি দ্বারা এমন কিছু বুঝায় যা বিচারককে সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে মামলার যে সিদ্ধান্তে প্রদান করা উচিত তা থেকে ভিন্ন সিদ্ধান্ত প্রদানে প্ররােচিত করে মূলত বিচারক Stuative Satisfaction এর উপর ভিত্তি করে কোন সিধান্ত দিলে পক্ষপাত হতে পারে।

a. Pecuniary bias b. Personal bias and c.official bias

(a) Pecuniary bias :-

অর্থনৈতিক স্বার্থ জড়িত থাকে সেক্ষেত্রে বিচারক bias হতে পারেন এবং ন্যায় বিচাৰ লংঘন হতে পারে।

সামান্যতম আর্থিক স্বার্থ জড়িত হলে তা বিচারক হিসাবে তাকে অযোগ্য বলে গণ্য করবে এমনকি বিচারকের সাথে সংশ্লিষ্ট লেনদেন বা স্বার্থটা কিংবা কোন ধরনের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হয় নাই এটা প্রমান হওয়া স্বত্বেও এটা pecuniary bias বলে গণ্য করবে।

Dr. Bonham (1610) মামলায় বলা হয়, ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের Dr. Bonham লাইসেন্স ছাড়াই লন্ডন শহরের বাইরে ডাক্তারী করার কারণে College of physician) কর্তৃক তাকে জরিমানা করা হয়। সে আইন দ্বারা ক্ষমতা প্রাপ্ত হয়ে college উক্ত কাজ করে সেই আইন বিধান ছিল যে, জরিমানার অর্ধেক টাকা king বাকী অর্ধেক College এর কর্মকান্ডের ফান্ডে যাবার কথা ছিল।

C.J coke বলেন, যেহেতু এর একটি অংশ কলেজের ফান্ডের নিকট প্রদান করার কথা এবং সংশ্লিষ্ট কলেজের স্বার্থ এতে জড়িত থাকার কারণে সিদ্ধান্তটি বাতিল হবে।
(b) Personal bias :- কতগুলাে বিশেষ পরিস্থিতিতে personal bias এর উদ্ভব ঘটে। এক্ষেত্রে বিচারক যে কোন পক্ষের আত্মীয় বা বন্ধু কিংবা কোন পক্ষের সাথে ব্যবসায়িক সহযােগী হতে পারে। এতে পক্ষের কারাে সাথে ব্যক্তিগত রাগ, ঝগড়া, ক্ষোভ বা ব্যক্তিগত শত্রুতাও থাকতে পারে। এই বিষয় গুলাে বিবেচনা করলে দেখা যায় একজন বিচারক পক্ষপাত অবলম্বন করতে পারেন এবং এ ধরনের ক্ষেত্রে বিচারক হলে সেটাকেই আমরা personal বা ব্যক্তিগত Bias বলতে পারি ।

State of U.P V5 Mohd Noor (1958) মামলায় দেখা যায় একটি Departmental inquiry তে A অভিযুক্ত হয় যেখানে B বিচারক, কিন্তু ঐ তদন্তে একমাত্র সাক্ষী না পাওয়াতে B তার তদন্ত পরিচালনা বাদ দিয়ে A এর বিরুদ্ধে সাক্ষী দেয়। তদন্ত শেষ করে A, বিরুদ্ধে Dismissal order দেয় কিন্তু Sc বলে, সে স্বাভাবিকপ্রশাসনিক আইনের কলরেখা ন্যায়বিচারের নীতি সম্পূর্ণ রূপে discard হয়েছে and all canons of fair play were grievously violated by B.

(iii) official bias। এটা হচ্ছে বিষয়বস্তুর সংশ্লিষ্টতার কারণে পক্ষপাতিত্ব। বিচারক বিচার্য বিষয়ের ব্যাপারে সাধারণ সুবিধাদি থাকলে তাকে official Bias বগা যেতে পারে। এই সুবিধা (দূরবর্তী) সুবিধা হতে চলবে না এটাকে অবশ্যই সরাসরি স্বার্থ সংশ্লিষ্ট হতে হবে। এ ধরনের bias অবশ্যই শক্তিশালী এবং সরাসরি হতে হবে।

Wade 2, Ministerial or departmental policy cannot be regarded as a disqualifying bias.

এ বিষয়ে বলা হয়েছে, কেবল অফিসিয়াল বা নীতির জন্য একজন কর্মকর্তাকে বিচারকারী হিসাবে অযােগ্য ঘােষনা করা যায় না এবং তা করতে হলে দেখতে হবে এতে পুরােপুরি তার মনােনিবেশ ঘটেনি এবং স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পরিবর্তে এতে উচ্চতর কতৃপক্ষের হুকুম তামিল করা হয়েছে বা এতে অবিচার করা হয়েছে। বা এতে বেঠিক দৃষ্ঠিভঙ্গি গ্রহণ করার মাধ্যমে আইনের Bias সংঘটন করা হয়েছে ।

Krishna Bus Service Ltd Vs State of Haryouna (1985) start

Institute of chartered Accounts Vs L.K Ratna (1986) 42 মামলায় Institute থেকে ব্যাক্তিকে অসদাচরন এর জন্য Disciplinary committee বহিষ্কার করে। এই Committee র Chairman এবং Vice Chairman ছিলেন। উক্ত Institute এর ex-officio president এবং Vice- President এবং Committee র অন্যান্য সদস্যরাও ছিল উক্ত council এর সদস্য supreme Court এর কাছে বিচার্য বিষয় হয় যে, উক্ত ব্যক্তিদের উপস্থিতির ফলে committee সিদ্ধা প্রভাবমুক্ত ছিল না।
সুতরাং ন্যায় বিচারেরণীতিতে কোনটা কোনটাকে প্রভাবিত করবেনা।যদি প্রভাবিত করে তাহলে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হবে।

তথ্য সুত্র” Lectures on Administrative Law by C. K. Takwani

লেখক-  এডভোকেট জিয়াবুল আলম
এডভোকেট

চট্রগ্রাম জর্জ কোর্ট,  চট্রগ্রাম।