শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল,
সম্পাদক
আলোকিত টেকনাফ ডটকম

শারীরিক প্রতিবন্ধকতা যে কখনো ইচ্ছাশক্তির পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ বোধহয় হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন, স্মরণীয় বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিংস, অসামান্য লেখক হেলেন কেলার, সাঁতারু বুলা চক্রবর্তীরা। এবার সেই তালিকায় যোগ দিলেন আমান উল্লাহ আমান। 

করোনা আবহে একদিকে যেমন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে অনেক সামাজিক সম্পর্ক। দূরত্ব বাড়ছে মানুষে মানুষে তেমনি আবার একই সঙ্গে এই অন্ধকারে আলোর পথ দেখাচ্ছেন অনেকেই। আবার কখনো সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে দূরে সরিয়ে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছেন সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের তরুণ শিক্ষক আমান উল্লাহ আমান। জীবন বলতে হুইল চেয়ার। কিন্তু ৯০% প্রতিবন্ধকতাকে কাটিয়ে দিতে রয়েছে তার ১০০% মনের জোর। 

বয়সে তরুণ শিক্ষকতার বয়স ৩। সবকিছু ঠিকটাক চলছিল। চলতি বছরের ৭ই মার্চ। আলোর পথ দেখানো এই শিক্ষকের জীবনে নেমে আসে এক বিভীষিকাময় অন্ধকার। কিছু উচ্ছৃঙ্খল, আইন অমান্যকারী দুস্কৃতিকারীর এলোপাতারী কুপে হাত পায়ে মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। সাথে থাকা তার প্রিয় সহধর্মিনী ও এই দুস্কৃতিকারীদের হাত থেকে রেহাই পাইনি। তাকে ও লাঞ্ছিত করা হয়। 

এরপরের ঠিকানা ঢাকা পঙ্গু হাসপাতাল। মার্চ,জুন এবং সর্বশেষ এই মাসের ২৮ তারিখ মোট তিনবার অস্ত্রোপচারের মুখোমুখি হতে হয় আলোর দিশারী এই শিক্ষককে। তবুও থেমে নেই তার জীবন। 

বাড়ীতে ফিরে সোজা তার প্রিয় কর্মস্থল কাটাবনিয়া ও কচুবনিয়া সরকারী প্রাথামিক বিদ্যালয়ের সেই প্রিয় শ্রেণীকক্ষ। নিজে চলতে পারেনা হুইলচেয়ার তাকে চলাই। প্রিয় মুখগুলো দেখার জন্য হাসপাতেলের বেডে ছটফট করছিলেন। 

এরই মধ্যে হুইলচেয়ারে শিক্ষকের পাঠদানের ছবিটি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। ছবিতে দেখা যায়, শিক্ষক আমান উল্লাহ আমান হুইলচেয়ারে বসে ক্লাস নিচ্ছেন। ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার মুহূর্তে প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। 

তিনি বলেন, ভাইরাল হওয়ার জন্য এই কাজ করিনি। দায়িত্ব আমাকে ছুটি দিলেও আমি দায়িত্বকে ছুটি দিতে পারিনা।

আজ বিশ্ব শিক্ষক দিবস। শিক্ষকদের নিরাপদ জীবনযাপন নিশ্চিত করা হোক এবারের বিশ্ব শিক্ষক দিবসের কামনা। 

অন্ধকার বেঁধ করে আলো ছিনিয়ে আনে এই শিক্ষকের হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তীর দাবী করেছেন এলাকার শিক্ষিত সমাজ। প্রশাসনের সর্বোচ্চ মহল এই ব্যাপারটি গুরুত্বের সাথে দেখার ও দাবী তাদের। 

অদম্য ইচ্ছাশক্তি থাকলে যে কোন ভাবেই সাহায্য করা যায় মানুষকে। আর সেই কথা আরেকবার প্রমাণ করছেন আমান উল্লাহ আমান। প্রতিমুহূর্তে আমান উল্লাহ আমান ফের একবার দেখিয়ে দিচ্ছেন ইচ্ছা থাকলেই বলতে পারা যায়, সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।