বিশেষ প্রতিনিধি।

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্টিত হবে ২১ জুন। নির্বাচনকে সামনে রেখে ১নং হোয়াইক্যং ইউনিয়নে মোট ৫জন প্রার্থী বিরামহীন ভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচারনা। তবে এবারে ভোট যুদ্ধ হবে নৌকা মনোনীত প্রার্থী ও জেলা জামায়াতের আমির বর্তমান চেয়ারম্যানের মধ্যে। এই পর্যন্ত নৌকার প্রার্থী জন সমর্থনে এগিয়ে রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে জামায়াত প্রার্থীর পক্ষে বরাবরের মতো স্থানীয় সাবেক এক সাংসদের গোপন সমর্থন রয়েছে। তার ধারাবাহিকতায় নৌকা ডুবাতে কৌশলগত কারনে আওয়ামীলীগের এক বিদ্রোহী প্রার্থীকে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে মাঠে নামিয়েছেন ওই সাংসদ। জামায়াত প্রার্থীর পক্ষে গোপন সমর্থন থাকলে নৌকার প্রার্থীর জয়লাভ করা অনিশ্চিত বলে মন্তব্য স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের।

আওয়ামীগের দূর্গখ্যাত হোয়াইক্যং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মোট প্রার্থী ৫ জন। এদের মধ্যে আজিজুল হক হোয়াইক্যং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং তৃনমূল থেকে উঠে আসা একজন সৎ ও পরিচ্ছন্ন আওয়ামীলীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত। তিনি নৌকা মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী। অপরজন মোহাম্মদ আলমগীর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং টেকনাফ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি জাফল আলম চৌধুরীর ছেলে। মৌলানা আব্দুল হক ইসলামী শাসনতন্ত্রের দলীয় প্রার্থী এবং মৌলভী ফরিদ স্বতন্ত্র প্রার্থী। এছাড়াও কক্সবাজার জেলা জামায়াতের আমির বর্তমান চেয়ারম্যান নূর আহমদ আনোয়ারী তিন বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান। বিগত সময়ে আওয়ামীলীগের সবেক এক স্থানীয় সাংসদের আশির্বাদে তিনি তিনবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিগত জোট সরকারে আমলে হোয়াইক্যং ইউনিয়ন জামায়াতের ঘাটি হিসেবে পরিচিত ছিলো। সেই সময় নূর আহমদ আনোয়ারী ও তার দলীয় লোকজনের হাত থেকে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা রেহায় পায়নি। জোট সরকারের পতনের পর আওয়ামীলীগের সাবেক এক স্থানীয় সাংসদের মদদে তিনি তিনবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। চেয়ারন্যান নির্বাচিত হয়ে সাধারণ বেশভূষা নিয়ে চলাফেরা করলেও তিনি গোপনে টাকার কুমিরে পরিনত হয়েছেন। নামে বেনামে গড়েছেন অঢেল সম্পদ।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের দাবী, এবারে নেতৃত্বের পরিবর্তন চান সাধারণ ভোটাররা, তাই ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে নৌকার প্রার্থী এই পর্যন্ত দলীয় ও সাধারণ ভোটারদের সমর্থনে এগিয়ে আছেন। তার কাছাকাছি অবস্থানে রয়েছে জামায়াত প্রার্থী। জামায়াত ও আওয়ামীলীগের মধ্যে চূড়ান্ত ভোটযুদ্ধ হলে কৌশলগত কারনে নৌকার প্রার্থীর ভোট কাটতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীকে দাঁড় করিয়ে দেয়ার অভিযোগ সাবেক এই সাংসদের বিরুদ্ধে।

ইউনিয়ন যুবলীগের একটি দায়িত্বশীল সূত্রের দাবী, বরাবরের মতো গোপনে জামায়াত প্রার্থী উপর সাবেক এই সাংসদের আশির্বাদ রয়েছে। ওই সাংসদ সমর্থিত দলীয় নেতা কর্মীরা এখনো দু’টানার মধ্যে আছেন। যদি গতবারের মতো জামায়াতের পক্ষে গোপন ইশারা থাকে তবে নৌকা বিজয় নিশ্চিত করাটা কষ্টসাধ্য হবে।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুন সিকদার বলেন- নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করতে ইউনিয়নে নৌকার পরিবারের সবাইকে নিয়ে এক যোগে কাজ করে যাচ্ছি। কেউ নৌকার বিদ্রোহ করে সুবিধা করতে পারবে না। এবার সবাই মিলে জামায়াতের হাত থেকে এই ইউনিয়নকে উদ্ধার করতে হবে।

নৌকার মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আজিজুল হক বলেন- এবারে ভোটাররা নেতৃত্বের পরিবর্তন চাইছেন। দলীয় নেতা কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের যতেষ্ট সাড়া পাচ্ছি। বিগত দিনের সমস্ত গন্ডি ছিন্ন করে যদি সাবেক সাংসদ আব্দুর রহমান বদির নৌকার পক্ষে কাজ করলে এই ইউনিয়ন জামায়াতের হাত থেকে উদ্ধার করে প্রধান মন্ত্রীকে উপহার হিসেবে তুলে দিতে পারবো