সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

১০০ ফুট উচু পাহাড় কেটে সাবাড়, চারজনের কারাদণ্ড

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১৭০ Time View

কক্সবাজার প্রতিনিধি |কক্সবাজার শহরের বৈদ্যঘোনা খাজা মঞ্জিল এলাকায় ১০০ ফুট উচু পাহাড় কেটে সাবাড় করে আসছিলেন পাহাড় খেকো আহম্মদ নবী। ইতোমধ্যে পাহাড়ের নিচে টিনশেড বাড়িও তৈরী করে।

ওই পাহাড়ে রোববার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় মূলহোতা আহম্মদ নবী পালিয়ে গেলেও তার চার সহযোগীকে পাহাড় কাটা অবস্থায় হাতেনাতে আটক করা হয়। পরে তাদের চারজনকেই এক বছর করে কারাদন্ড দেওয়া হয়।
ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাবিবুল হাসান। এসময় সঙ্গে ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব এবং পুলিশ  ফোর্স।

পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব বলেন, খাজা মঞ্জিল এলাকায় পরিবেশগত ছাড়পত্র ব্যতিরেকে সরকারি ১নং খতিয়ানের পাহাড় বিগত ২ থেকে ৩ মাস ধরে প্রায় ১০০ ফুট উচু একটি পাহাড় সাবাড় করে আসছিল একটি চক্র। যার নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন ওই এলাকার আহম্মদ নবী নামে এক ব্যক্তি। পরে অভিযান চালিয়ে চারজনকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- স্থানীয় বাদশাঘোনা এলাকার সুলতান আহমদের ছেলে মো. রফিক (২৮), একই এলাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে মো. নবী হোসেন (২৬), সদরের লিংকরোড় দক্ষিণ মুহুরীপাড়া এলাকার মৃত আব্দুস সালামের ছেলে মো. জামাল হোসেন (২৬), ও একই এলাকার আবু বক্কর ছিদ্দিকের ছেলে মো. ফারুক (২৫)। এসময় পাহাড় কাটার মালামাল জব্দ করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী ইউএনও হাবিবুল হাসান বলেন, পাহাড় কেটে টিনের বাড়ী নির্মাণ এবং অবৈধভাবে পাহাড় কাটায় বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষন আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১০) এর ৬(খ), ১৫(১)৫ ধারা অনুযায়ী আটক চারজনকে এক বছর করে কারাদন্ড দেওয়া হয়। একই সাথে পাহাড়টি ধ্বংসের মূলহোতা আহম্মদ নবীর বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজুর জন্য পরিবেশ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়া ওই স্থানে নির্মাণ করা স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH