বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৯:৪১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

১১৪ এনজিও’র রোহিঙ্গাদের জন্য ব্যয় প্রায় ৬৭০ কোটি টাকা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ২৮৯ Time View

নিউজ ডেস্ক :

বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে ব্যয় করা হয়েছে ৬৬৯ কোটি ৬৮ লাখ ৩২ হাজার ৭৯৩ টাকা। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে উদ্ভুত সহিংস পরিস্থিতির পর জেলার উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের নাগরিকদের জন্য ১১৪ টি বেসরকারি সংস্থা এসব অর্থ বরাদ্দ করে। কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী আব্দুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।
তিনি জানান, গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর থেকে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করা হয়। এতে সেনাবাহিনীকে সংযুক্ত করা হয় ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে। শুরুতে ত্রাণ সাহায্যের বিষয়টি উখিয়ায় স্থাপিত নিয়ন্ত্রণ কক্ষে নিবন্ধন করা হতো। নিবন্ধনের পর এসব ত্রাণ প্রয়োজন অনুসারে এবং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ১৪ টি পয়েন্টে বিতরণ করা হতো। বর্তমানে উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার ২৩ টি পয়েন্টে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে।
গত রোববার সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় বসবাসরত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা সংক্রান্ত সমন্বয় সভা’ অনুষ্ঠিত হয়। এতে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনার মাধ্যমে কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী আব্দুর রহমান। এসময় তিনি জানান, স্থানীয় প্রশাসন ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যে সমন্বয়ের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম চলছে। বর্তমানে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) ৫ লাখ ৫৪ হাজার ৮১ জন রোহিঙ্গাকে খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে। বিভিন্ন এনজিও খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে ২০ থেকে ৩০ হাজার রোহিঙ্গাকে। এছাড়াও জেলা প্রশাসন ১০ থেকে ১৫ হাজার রোহিঙ্গাকে খাদ্য সহযোগীতা দিচ্ছে। শুরুর দিকে প্রচুর ত্রাণ সহায়তা পাওয়া যায়। তবে পরবর্তীতে এ সহায়তার হার কমে আসে।
কাজী আব্দুর রহমান আরও জানান, আশ্রয় শিবির ঘিরে ইতোমধ্যে ৯ কিলোমিটার বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। ৪টি মোবাইল চার্জিং পয়েন্ট করা হয়েছে। এছাড়াও এক হাজার সোলার প্যানেল, ১০টি ফ্ল্যাড লাইট ও ৫০টি স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হয়েছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধিনে নির্মাণ করা হয়েছে ৫ হাজার স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ও ৪৯০টি ওয়াশ রুম। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা উদ্যোগে স্থাপন করা হয়েছে ৪৫ হাজার ৪৪১ টি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা এক হাজার ২৯০টি ওয়াশ রুম। আশ্রয় শিবিরগুলোতে ৬ হাজার ৯৮৫টি টিউবয়েল স্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর করেছে ২ হাজার ৪৪৮টি এবং বিভিন্ন সংস্থা করেছে ৪ হাজার ৫৩৭টি।
তিনি জানান, আশ্রয় শিবিরের অভ্যন্তরে যাতায়াতের জন্য বেশ কিছু সংযোগ সড়ক নির্মাণ করছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। সেনাবাহিনীও কিছু সড়ক নির্মাণ করছে। কুতুপালং বাজার এলাকায় ৪৬৮ মিটার দৈর্ঘ্যের, বালুখালীর পানবাজার এলাকায় ৪৮০ মিটার, থাইংখালী-১ এ ১২০০ মিটার, থাইংখালী-২ এ ১৬৫০ মিটার, থাইংখালী-৩ এ ৮৭০ মিটার, থাইংখালী-৪ এ ৪২০ মিটার, থাইংখালী-৫ এ ৯৩৬ মিটার, কুতুপালং শিবিরে ১৮৬৫ মিটার এবং থাইংখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪৭০ মিটার সড়ক নির্মাণ করছে এলজিইডি। এছাড়াও ২২ কিলোমিটার মূল সড়কের মধ্যে ৭ দশমিক ৭ কিলোমিটারের কাজ শেষ করেছে সেনাবাহিনী। তারা তিনটি রিং কালভার্টও নির্মাণ করেছে।
সভায় জানানো হয়, মিয়ানমারের সহিংস পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত ৬ লাখ ৯২ হাজার বা এর চেয়েও বেশি মিয়ানমারের নাগরিক বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। এর আগে ২০১৬ সালে পালিয়ে এসেছে ৮৭ হাজার। এছাড়াও প্রায় দুই লাখ মিয়ানমারের নাগরিক বর্তমানে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে অবস্থান করছে। নতুন-পুরুনো মিলিয়ে দেশে বর্তমানে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা আনুমানিক ১০ লাখ ৯৬ হাজার। ইতোমধ্যে ১০ লাখ রোহিঙ্গার বায়েমেট্রিক ৯২ হাজার রোহিঙ্গার নিবন্ধন সম্পন্ন করা হয়েছে। চলতি মাসেই শেষ হবে বায়োমেট্রিক নিবন্ধন কার্যক্রম।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী আব্দুর রহমান জানিয়েছেন, বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের মানবিক সহায়তার জন্য কক্সবাজারের সোনালী ব্যাংকে যে হিসাব খোলা হয়েছে তাতে বর্তমানে জমা রয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ ৭৫ হাজার ৭৩৫ টাকা ১৯ পয়সা। ত্রাণ ও কল্যাণ ট্রাস্ট্রে জমা রয়েছে ২০ লাখ টাকা এবং জিআর ক্যাশ হিসেবে জমা রয়েছে ৩০ লাখ টাকা। এছাড়াও ত্রাণ সামগ্রীর স্টক নিবন্ধনের পরিমান হচ্ছে, ৪৯০মেট্রিক টন সরকারি চাল, ২ হাজার ১১৪ মেট্রিক টন বেসরকারি চাল, ২০ মেট্রিক টন ডাল, ৭৬ হাজার ৩২৬ লিটার তেল, ২ দশমিক ৮৫ মেট্রিক টন লবন ও ৩ দশমিক ৮৪ মেট্রিক টন চিনি। সুত্র: দৈনিক কক্সবাজার

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH