রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

২৩ হাজার টাকা লাভ পেতে মিয়ানমার থেকে আইস আনতেন হোছেন: র‍্যাব

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২১
  • ৯ Time View

প্রথম আলোঃ-

মিয়ানমারে এক গ্রাম আইসের দাম দেড় থেকে দুই হাজার টাকা। আর বাংলাদেশে এর দাম ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। প্রতি গ্রামে ১৩ থেকে ২৩ হাজার টাকা বেশি লাভ পেতে মিয়ানমার থেকে তাই দেশে আইস নিয়ে আসেন কক্সবাজারের টেকনাফের বাসিন্দা হোছেন ওরফে খোকন। এ আইস বিক্রি হয় ঢাকা ও চট্টগ্রামে।

আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব কথা জানান।

এর আগে সকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে পাঁচ কেজি আইস, বিদেশি অস্ত্র, মিয়ানমারের মুঠোফোন অপারেটরের সিমসহ হোছেন ও মোহাম্মদ রফিক নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‍্যাব জানায়, হোছেন এর আগে বার্মিজ কাপড় ও আচার ব্যবসার আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ইয়াবা নিয়ে আসছিলেন। তবে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ‘অভিজাত শ্রেণির’ কাছে আইস বা ক্রিস্টাল মেথ জনপ্রিয় হয়ে ওঠায় তিনি কয়েক মাস ধরে আইস নিয়ে আসছেন।

র‍্যাবের ভাষ্য, এখন পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে এত বড় আইসের চালান ধরা পড়েনি। এযাবৎকালের ধরা পড়া সবচেয়ে বড় চালান এটি। হোছেন চক্রের অন্যতম হোতা। আর রফিক তাঁর অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করছেন।

গ্রেপ্তার দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে খন্দকার আল মঈন বলেন, গ্রেপ্তার দুজন টেকনাফকেন্দ্রিক মাদক সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য। চক্রটি কয়েক বছর ধরে অবৈধ মাদক ইয়াবার কারবার করে আসছে। চক্রে ২০ থেকে ২৫ জন যুক্ত। সিন্ডিকেটের সদস্যরা নৌপথ ব্যবহার করে মাদকের চালান দেশে নিয়ে আসছে। ঢাকার উত্তরা, বনানী, গুলশান, ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় তাদের সিন্ডিকেট সদস্য রয়েছে। তাদের বিষয়ে অনেক তথ্য পাওয়া গেছে।
 
র‍্যাব জানায়, আগে আইস থাইল্যান্ড বা অন্যান্য দেশ থেকে মিয়ানমার হয়ে দেশে আসত। এখন মিয়ানমারে আইস তৈরি করা হয়। হোছেনের সঙ্গে মিয়ানমারের মাদক কারবারিদের সুসম্পর্ক রয়েছে। তিনি বার্মিজ আচার ও কাপড় আনার নাম করে অবৈধভাবে নিয়মিত মিয়ানমারে যাতায়াত করতেন। বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে কোনো আইসের চালান ধরা পড়লে সেই অর্থ আর তাঁকে পরিশোধ করতে হয় না। তাই এ চক্র ‘ঝুঁকিমুক্তভাবে’ আইসের চালান নিয়ে আসছিল বাংলাদেশে। মাদকের টাকা লেনদেন করেন হুন্ডির মাধ্যমে। হোছেনের বিরুদ্ধে মাদক আইনে একাধিক মামলা রয়েছে।

সূত্রঃ-প্রথম আলো

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH