সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

আবার আলোচনায় নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্ট

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১৮
  • ২৫২ Time View

নিউজ ডেস্কঃ-

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা হয়েছিল ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে গুলশান হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয়। ওই হামলায় ৯ ইতালীয়, ৭ জাপানি, ১ ভারতীয় ও ২ বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হন। হলি আর্টিজান হামলার পর পরই নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্টসহ দেশের নামকরা অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের জঙ্গি তৎপরতায় সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি সামনে চলে আসে। গণমাধ্যমে অনেক প্রতিবেদন হয়। কয়েকটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে জঙ্গি সংশ্লিষ্ট বইও পাওয়া যায়। ধনাঢ্য পরিবারের সন্তানদের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি দেশজুড়ে আলোড়ন তোলে।

প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের জঙ্গি ও চরমপন্থায় সংশ্লিষ্টতা নিয়ে আলোচনা চলে কিছুদিন। কিন্তু বাংলাদেশের অন্যসব বিষয়ের মতোই কিছুদিনের মধ্যেই সবাই বিষয়টি ভুলে গেল। আলোচনার টেবিল থেকে উধাও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা ইস্যু।

গত কয়েকদিন ধরে রাজধানীসহ দেশজুড়ে চলেছে শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলন স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে চলে কয়েকদিন। শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী সব কিছুই মেনে নিয়েছে সরকার। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা কয়েকদিন আন্দোলনের পরই ফিরে গেছে। স্বাভাবিকভাবেই স্কুল-কলেজে ক্লাসও চলছে। এরপর যেসব সংঘর্ষ হয়েছে সেখানে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী নয় বরং বহিরাগত সন্ত্রাসীরাই সংশ্লিষ্ট তা প্রমাণিত হয়েছে। এখন সবকিছু স্বাভাবিকের দিকে যাচ্ছে ঠিক তখনই ইস্ট ওয়েস্ট ও নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি থেকে আবার আন্দোলনের প্রচেষ্টা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। থেমে যাওয়া ইস্যুতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আবার পুনর্জীবিত করতে চায় কেন?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্টসহ কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে জামাত-শিবির, জঙ্গি ও চরমপন্থীরা বরাবরই ক্রিয়াশীল। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী আন্দোলনের সমাপ্তি চায় না। তারা চাচ্ছে, আন্দোলন চলতে থাকুক। ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন জিইয়ে রাখার প্রচেষ্টা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিশেষজ্ঞরা বলেন, এসব প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের সাধারণত বাংলাদেশের কোনো কিছুতেই খুঁজে পাওয়া যায় না। পাবলিক পরিবহনে এমন শিক্ষার্থীরা কতোটা যাতায়াত করেন তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ আছে। বিত্তশালী পরিবারের সন্তানেরাই সাধারণত এসব প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির খরচ বহন করে পড়ার ক্ষমতা রাখে। তারা নিজস্ব গাড়িতেই যাতায়াত করে এটাই তো স্বাভাবিক। তাঁরা নিরাপদ সড়কের কতটুকু বোঝেন তা নিয়েও প্রশ্ন কারও কারও। তাই নিরাপদ সড়ক নিয়ে এই শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রচেষ্টা কিসের আলামত সেই প্রশ্ন উঠেছে।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, ইস্ট ওয়েস্টের শিক্ষার্থীরা আজ যেমন সংঘর্ষে জড়িয়েছে তেমনি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়েরও অনেক শিক্ষার্থী প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এজন্য সেখানে পুলিশসহ নিরাপত্তা বাহিনীর অনেক সদস্যই মোতায়েন করা হয়েছে।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নর্থ সাউথ এবং ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী জঙ্গি ও চরমপন্থীদের নেটওয়ার্কে একসময় যোগ দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছিল। সেই নেটওয়ার্কের আওতায়ই বর্তমান আন্দোলনের প্রচেষ্টা হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH