রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:০২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

ইয়াবা ও রাজাকার খেতাবে অস্থির মহেশখালী মেয়র মকসুদ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৮
  • ২১১ Time View

নিউজ ডেস্কঃ-

অস্থির সময় পার করছেন মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া। সম্প্রতি বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও নগদ টাকা নিয়ে ছেলে নিশান এবং নিকটাত্মীয় মুমিনুলসহ ঢাকায় র‌্যাবের হাতে ছয়জন ইয়াবা ব্যবসায়ী আটকের পর মকছুদ মিয়াকে নিয়ে চলছে কক্সবাজারের সর্বমহলে চুলচেড়া বিশ্লেষণ। গ্রেফতার ইয়াবা ব্যবসায়ীরা ৭ দিনের রিমান্ডে পুলিশের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে বলে সূত্র জানায়।

সূত্রমতে, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর থেকেই একের পর এক সমালোচনা চলে আসছিল মহেশখালী দ্বীপের রাজাকার পরিবারের সন্তান মেয়র মকছুদ মিয়াকে নিয়ে। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক পদ এবং সদস্য হিসেবে এ রকম স্থান দেয়া আরও কয়েক জনের বিরুদ্ধেও সম্প্রতি অনুরূপ অভিযোগ উঠেছে।

যাদের পরিবারগুলো কখনও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না তারাই বর্তমানে বড় নেতার খেতাব নিয়ে ঘুরছে। তবে সেদিক দিয়ে মেয়র মকছুদ মিয়ার পরিবারের লোকজন কিংবা আত্মীয়স্বজন কখনও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না।

বরং তার চৌদ্দ পুরুষ বিএনপি, জামায়াত ও রাজাকারের শীর্ষ তালিকাভুক্ত। এছাড়া আওয়ামী লীগেও মকছুদ মিয়ার আগমন বেশি দিন হয়নি। যে কারণে তার সমালোচনায় প্রায় সময় সরগরম থাকে কক্সবাজার জেলা শহরের রাজনৈতিক অঙ্গন। বাবার রাজাকারের খেতাবের সঙ্গে সম্প্রতি ছেলের ইয়াবা ব্যবসা বা ইয়াবাসহ আটকের খবরে মকছুদ মিয়াকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমসহ রাজনৈতিক অঙ্গনে তোলপাড় চলছে।

সূত্র জানায়, ১৬ আগস্ট ঢাকায় মহেশখালীর মেয়র মকছুদ মিয়ার ছেলে নিশানসহ ছয়জন ইয়াবা ও নগদ টাকা নিয়ে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়ার সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে ওই খবরের কাগজগুলো ঢুকতে দেয়া হয়নি। জেটি ঘাটেই একটি প্রভাবশালী মহল ক্ষমতার অপব্যবহার করে পত্রিকা চেক করে কেড়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

গত বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) রাজধানী ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের বিলাসবহুল বাড়ি থেকে ইয়াবা বিক্রির ৭ কোটি ২৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকাসহ ২ লাখ ৭ হাজার ১শ’ পিস ইয়াবা নিয়ে সিন্ডিকেটের ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এর মধ্যে মেয়রের ছেলে মিরাজ উদ্দিন নিশান ও ভায়রার ছেলে মুমিনুল আলম। অভিযোগ উঠেছে দুই খালাতো ভাই দীর্ঘদিন ধরে মরণ নেশা ইয়াবার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

মেয়র মকছুদ মিয়া ও তার পূর্বপুরুষদের নিয়েও রয়েছে নানা সমালোচনা। কারণ বংশানুক্রমিকভাবে তাদের কেউ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না। তাছাড়া তার পূর্বপুরুষদের অধিকাংশই ছিল যুদ্ধাপরাধী। তাদের রাজনৈতিক পরিবারে মকছুদ মিয়া ব্যতীত অন্য কেউ আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই।

মকছুদ মিয়ার দাদা মোহম্মদ আবদুল আজিজ ছিলেন ঘাটের সাম্পান মাঝি ও খুচরা সুপারি বিক্রেতা। তার দুই ছেলের একজন মৌলভী জকরিয়া। যিনি মকছুদ মিয়ার চাচা এবং যুদ্ধাপরাধী মামলার পলাতক আসামি।

অন্য ছেলে মকছুদ মিয়ার বাবা হাসেম সিকদার প্রকাশ বড় মোহাম্মদ যুদ্ধাপরাধী মামলার ২২নং আসামি। মকছুদ মিয়ার ফুফা রসিদ বি.এ যিনি যুদ্ধাপরাধী মামলার ৩নং আসামি। মকছুদ মিয়ার মামা মৌলভী ওসমান যিনি যুদ্ধাপরাধী মামলার ২৭নং আসামি। মকছুদ মিয়ার চাচা মৌলভী অলি আহম্মদ যিনি যুদ্ধাপরাধী মামলার ৪নং আসামি।

মকছুদ মিয়া ১৯৯৮ সালে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। তবে এসব বিষয়ে এবং ছেলের ইয়াবা চালানের ব্যাপারে জানার জন্য মকছুদ মিয়ার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হয়। তিনি একবার ফোন রিসিভ করে মিটিংয়ের অজুহাত দেখিয়ে ফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেন।

সুত্র-যুগান্তর।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH