নিজস্ব প্রতিবেদকঃ-

সরকারি ভাবে মার্কেট-শপিং মল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত আসলেও কক্সবাজারে কোন মার্কেটই খোলা হবে না। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে মার্কেট না খুলতে যৌথভাবে ঐক্যমতে পৌঁছেছেন কক্সবাজারের ব্যবসায়িরা। এ নিয়ে ব্যবসায়ী অনলাইনে সভাও করেছে। ওই সভায় মার্কেট না খোলার সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত হয়েছে।

শুক্রবার (৮ মে) কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ও কক্সবাজার মার্কেট মালিক সমিতি ওই অনলাইন মতবিনিময় সভাটি করেছে।

কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরী খোকা সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, অনলাইনে দোকান মালিক সমিতির নেতাদের যোগাযোগ করা হয়েছিল। তাদের অধিকাংশই মার্কেট, দোকান না খোলার পক্ষে মতামত দিয়েছেন। প্রাথমিক ভাবে মার্কেট না খোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে আজ শনিবার (৯ মে) চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

আবু মোরশেদ খোকা জানান, শুক্রবার অনলাইন মিটিংয়ে কক্সবাজার চেম্বারের পক্ষে বলা হয়েছে, কক্সবাজারে মার্কেট, শপিংমল, দোকান কেউ খোলা রাখতে চাইলে সম্পূর্ণ নিজ দায়িত্বে সামাজিক ও শারিরিক দুরত্ব বজায় রেখে, সরকারি বিধিমালা মেনে, নিজ দায়িত্বে সুরক্ষিত থেকে খুলতে হবে। কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি কিংবা কক্সবাজার মার্কেট ওনার্স এসোসিয়েশন এ বিষয়ে কোন দায়দায়িত্ব নেবে না।

এই বিষয়ে কক্সবাজার মার্কেট ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ও শহরের পূর্ব বাজারঘাটার সৈকত টাওয়ারের সত্বাধিকারী মাহবুবর রহমান জানান, আজ শনিবার (৯ মে) বেলা ২টায় এসোসিয়েশনের উদ্যোগে আবু সেন্টারস্থ কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির কার্যালয়ে যৌথ সভা আহবান করা হয়েছে। সভায় সার্বিক করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে মতামতের ভিত্তিতে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

তিনি জানান, এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে অধিকাংশই মার্কেট বন্ধ রাখার পক্ষে।

এদিকে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি কক্সবাজার জেলা শাখা এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, দেশের করোনা মহামারি রোধকল্পে যে সকল ব্যবসায়ী ও দোকান কর্মচারি কক্সবাজারের বাইরে আছেন, তাদের কাউকে লকডাউন কিংবা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত কক্সবাজার না আসার বিনীত অনুরোধ জানিয়েছে।

দোকান মালিক নেতা আমিনুল ইসলাম মুকুল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই বিষয়টি জানিয়েছেন। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘যদি সে রকম (কেউ যদি আসেন) আমাদের চোখে পড়ে আমরা প্রশাসনের নিকট জানাতে বাধ্য হব।’

তাদের মতে, এ বছর তেমন ব্যবসা হওয়ার সম্ভাবনা নাই, সুতরাং অনর্থক ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়া উচিৎ হবে না।