সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৬:৩১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

কক্সবাজারে বিপুলসংখ্যক পর্যটকের আগমন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৮
  • ১৮৪ Time View

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, আলোকিত টেকনাফ :–

সপ্তাহিক ছুটি মিলে এবারও ঈদে টানা ৫ দিনের ছুটি। সরকারি চাকুরেদের পরিবারে এ টানা ছুটি ঈদের আনন্দের মাত্রা বাড়িয়েছে। টানা এই ছুটিকে কাজে লাগাতে অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে আনন্দ ভ্রমণে এসেছেন কক্সবাজারে।

দেশে-বিদেশের মানুষের কাছে বেড়ানোর সবচেয়ে জনপ্রিয় ঠিকানা কক্সবাজার। তাই এবারের ঈদুল আজহার ছুটিতে কক্সবাজারে ৫ লক্ষাধিক পর্যটকের আগমন ঘটবে বলে আশা করছেন পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। তবে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে প্রশাসন টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচলের অনুমতি না দেয়ায় পর্যটকরা কিছুটা হতাশ।

দূর দুরান্ত থেকে আসা পর্যটকের ঢল নেমেছে দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতে। ঈদের দিন পর্যটকের সংখ্যা কম দেখা গেলেও রয়েছে ভিড়। সকাল থেকেই পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সৈকতে আসেন পর্যটকরা। সমুদ্র স্নান ঈদ আনন্দে দ্বিগুন মাত্রা যোগ করেছে। অনেকেই বীচ বাইক ও ওয়াটার বাইকে করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

এবারের ঈদের ছুটিতে পর্যটক ছাড়াও শহরের আশপাশের এলাকা থেকে প্রচুর মানুষ শহরে এবং সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে এসেছেন। তাই শহরের রাস্তাঘাট ও বিপণীকেন্দ্রগুলোতে বেশ ভিড় পরিলক্ষিত হচ্ছে। সেইসাথে পর্যটন কেন্দ্রগুলো জমজমাট হচ্ছে।

কক্সবাজারে রেকর্ডসংখ্যক পর্যটক সমাগমের আশা করছেন হোটেল মালিকরা। বেশ কয়েক বছর পর ঈদের ছুটিতে এবার কক্সবাজারের হোটেলে ফুল বুকিং হয়েছে। তবে তা ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার ও তার পরের দিন শুক্রবারের জন্য। অবশ্য শনিবারের জন্যও প্রায় ৮০ ভাগ কক্ষ আগাম বুকিং হয়ে গেছে। সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, ঈদের ছুটির সাথে সাপ্তাহিক ছুটির দিন যুক্ত হওয়ায় এবারের ঈদে ৫ লক্ষাধিক পর্যটক কক্সবাজারে বেড়াতে আসবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

এ ঈদ চলতি অর্থবছরের পর্যটন মৌসুমের যাত্রা হিসেবে ধরছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।

 

সাগরপাড়ের হোটেল-মোটেল ও বিপণীকেন্দ্রগুলোতে সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, এবারের ঈদুল আজহার ছুটিতে বিপুলসংখ্যক পর্যটকের আগমন ঘটেছে।

ঈদের ছুটিতে ইতোমধ্যে অনেক পর্যটক কক্সবাজারে এসে ভিড় করেছেন। ২১ আগস্ট ঈদের আগেরদিনও প্রায় ১৫ হাজার পর্যটক কক্সবাজার অবস্থান করছেন বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

কক্সবাজারের হোটেল মালিকদের মতে, প্রতিবছর দুই ঈদে কক্সবাজারে পর্যটকের আগমন ঘটে। এসময় হোটেল-মোটেলে রুম খালি পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। তবে গত কয়েক বছরে শহরে এবং শহরের বাইরে সমুদ্র তীরবর্তী উপ-শহরগুলোসহ বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র ঘিরে বেশ কিছু নতুন হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউস চালু হওয়ায় কক্সবাজারে আগের মতো থাকার সংকট নেই। বর্তমানে কক্সবাজার শহরেই রয়েছে চার শতাধিক আবাসিক হোটেল ও গেস্টহাউস। এখানে প্রতিদিন লক্ষাধিক পর্যটকের থাকার সুবিধা রয়েছে।

 

এবারের ঈদের ছুটিতেও বৃহস্পতিবার ও শুক্রবারের জন্য প্রায় ২ লাখ পর্যটক কক্সবাজারের হোটেলে কক্ষ বুকিং দিয়েছেন। বুকিং ছাড়াই আরো কয়েক লাখ পর্যটক এবারের ঈদুল আজহার ছুটিতে বেড়াতে আসবেন বলে মনে করেন কক্সবাজার ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন (টোয়াক বাংলাদেশ)-এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম কিবরিয়া খান।

তিনি মনে করেন, এবারের ঈদুল আজহার তিনদিনের ছুটির সাথে সাপ্তাহিক ছুটির দিনও যুক্ত হয়েছে। ফলে এবার মানুষ মনভরে বেড়াতে পারবে। এ কারণে এবারের ঈদের ছুটিতে আগের বছরের তুলনায় অধিক পর্যটক কক্সবাজারে বেড়াতে আসবে।

 

কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে শহরে পর্যটকদের চাপে তীব্র যানজটের যাতে সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফজলে রাব্বি জানান, ঈদের ছুটিতে পর্যটকরা যাতে নির্বিঘ্নে ঘুরতে পারেন সে বিষয়ে ট্যুরিস্ট পুলিশ শহর ও শহরের বাইরে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে টহল দিচ্ছে। এছাড়া সমুদ্র সৈকতের কয়েকটি পয়েন্টে থাকবে দিনরাত সার্বক্ষণিক প্রহরা। নিরাপত্তায় ২৪ ঘণ্টা দায়িত্বে রয়েছে ৩০ জন বিচকর্মী ও সমুদ্র সৈকতে রয়েছে ৯০ জন ট্যুরিস্ট পুলিশ।

 

জেলা পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবাল হোসেন বলেন, কক্সবাজার সদর থানার নিয়মিত ৮৪ জন পুলিশের পাশাপাশি ঈদুল আজহায় নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে ১৪৯ জন পুলিশ। আটটি মোবাইল টিমে ৮০ জন, আটটি পিকেটে ৬৪ জন, ২০ জন নিরাপত্তা চৌকির, টহল ডিউটিতে পাঁচজন এবং মোটরসাইকেল মোবাইল আটজন এবং ৩৪ জন পুলিশ ঈদগাহ ময়দানের নিরপত্তার দায়িত্বে রয়েছে। তাদের তদারকির দায়িত্বে রয়েছে তিনজন কর্মকর্তা। এভাবেই ঈদের পরের এক সপ্তাহ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, পর্যটকসহ স্থানীয়দের নিরাপত্তায় পুলিশ, বিচকর্মী ও র্যা বকে সহযোগিতার জন্য দু’জন নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেটের অধীনে দু’টি মোবাইল টিম পর্যটন জোনে অবস্থান করছে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH