বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৪০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বেহাল দশা : দেখার কেউ নেই

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৮ জুলাই, ২০১৮
  • ৩২৪ Time View
শাহজাহান চৌধুরী শাহীন::--

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ১৬০ কিলোমিটারে মধ্যে সহ¯্রাধিক গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম পৌঁছতে সময় লাগে স্বাভাবিকভাবে মাত্র সাড়ে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা। এখন কেউ পৌঁছতে গেলে কমপক্ষে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা সময় লাগছে। বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ এই মহাসড়কে যে কোন সময় ভয়াবহ দুর্ঘটনার আশংকা ব্যক্ত করেছেন সচেতন মহল।

সরজমিনে দেখা গেছে, মহাসড়কের কক্সবাজার কেন্দ্রিয় বাসটার্মিনাল থেকে লিংক রোড, খরুলিয়া, চাকমারনকুল, রামু হাসপাতাল, চাবাগান, জোয়ারিয়ানালা, পানিরছড়া, কালিরছড়া, ঈদগাও, ফুলছড়ি নতুন অফিস, খুটাখালি বাজার, ডুলাহাজার, মালুমঘাট, হাসেরদিঘি, চেয়ারম্যান গাড়া, বেন্ডীবাজার, চকরিয়া পৌর এলাকা, কলেজগেইট, নলবিলা, হারবাং, আজিজ নগর, আধুনগর খান হাট, রাজঘাটা, খালেকের দোকান, পদুয়া, ঠাকুরদিঘী, হাসমতের দোকান, দোহাজারী, চন্দনাইশ, পটিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে বড় ছোট অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকার অবস্থা উদ্বেগজনক। ঝুঁকি নিয়ে চলছে গাড়িগুলো।

সা¤প্রতিক অতিবৃষ্টির কারণে গর্তগুলোর অবস্থা আরো বেহাল হয়ে পড়েছে। এসব ভাঙ্গনের ওপর দিয়ে যানবাহন যাওয়ার সময় যাত্রীরা উৎকণ্ঠিত হয়ে পড়েন। একাত-ওকাত করে গাড়িটা পার হয়ে গেলেই যাত্রীরা হাফ ছেড়ে বাঁচে। এ অবস্থায় কোন কোন স্থানে গর্তসমূহে কিছু ভাঙ্গা ইট দিয়েই দায়িত্ব শেষ করেছে সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ। একটু বৃষ্টি হলেই গর্তগুলো পানিতে ভরে যায়।

এ গর্তগুলোর কারণেই সাম্প্রতিক সময় বেশ কিছু দুর্ঘটনা ঘটেছে। বিশেষ করে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার আসার জন্য দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে গাড়ি আসে এ রাস্তা দিয়ে। নতুন চালক রাস্তার হাল অবস্থা বুঝতে না পেরে পড়ে যান বিপাকে। ফলে এ পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় অনেক চালক ও যাত্রীদের প্রাণহানী ও আহতের ঘটনা ঘটেছে। দিনদিন মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে এ সড়কে।

গাড়ির চালক মুফিজুর রহমান জানান, কক্সবাজার থেকে সড়ক পথে চট্টগ্রাম পৌঁছতে সময় লাগে স্বাভাবিকভাবে মাত্র সাড়ে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা। এখন কেউ পৌঁছতে গেলে কমপক্ষে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা লাগছে। শুধু রাস্তার করুণ হালের কারণেই অতিরিক্ত ২ থেকে ৩ ঘণ্টা সময় লাগছে। ৩ ঘন্টার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগে ৭ ঘন্টা। বেশি গতিতে গাড়ি চালালে গর্তে পড়ে গাড়ি উল্টে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

এ সড়কের নিয়মিত যাত্রী কক্সবাজারের জাফর আলম বলেন,কক্সবাজা-চট্টগ্রাম সড়কের একটি দীর্ঘ অংশ বিশাল বিশাল খানাখন্দে ভরপুর থাকার কারণে তাকে দীর্ঘ সময় পথেই কাটাতে হয়। শুধু তিনি নন, পর্যটননগরী কক্সবাজারে ভ্রমণে আসা পর্যটকের বেশির ভাগই সড়কপথের যাত্রীদের প্রত্যেককেই রাস্তার এই অবর্ণনীয় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে কক্সবাজার পৌঁছার পথে। তিনি বলেন, ‘নরক-যন্ত্রণা টের পেতে হলে আপনি একবার সড়কপথে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার গেলেই হবে।’

তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, সওজ কর্তৃপক্ষের অবহেলা আর ক্ষুদ্র কাজে বড়ো দুর্নীতির কারণেই আমরা আজ বঞ্চনার শিকার। তারা চাইলে যাত্রীদেরকে এ অবস্থা থেকে মুক্তি দিতে পারেন। বর্তমানে এ গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কের সংস্কার পথচারী, যাত্রী, চালক ও মালিকদের প্রাণের দাবিতে পরিণত হয়েছে।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রানা প্রিয় বড়–য়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ভাঙ্গনের কথা স্বীকার করে বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে আমরা অবহিত করেছি। বরাদ্দ পেলে অতি শীঘ্রই সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হবে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH