সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৬:২৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

কুরবানির ঈদে টেকনাফ করিডোর দিয়ে পর্যাপ্ত পশু আমদানি নিয়ে সংশয়

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১৮
  • ২০২ Time View

নিউজ ডেস্কঃ-

সপ্তাহ তিনেক পর দরজায় কড়া নাড়বে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। এ কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে সপ্তাহ খানেকপরই শুরু হবে টানা পশুর হাট। কোরবানিতে বিত্তশালী-উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর চাহিদা অনুসারে দেশীয় পশুর যোগান হয় না। তাই চাহিদা মেটাতে সীমান্ত প্রতিবেশী ভারত-মিয়ানমার থেকে আমদানি হয়ে থাকে নানা আকারের পশু।
প্রতি বছরের মতো এবারও চট্টগ্রাম বিভাগের চাহিদা মেটাতে মিয়ানমার থেকে ৪০ থেকে ৫০ হাজার পশু আমদানি হওয়ার প্রতিক্ষায় রয়েছেন সবাই। সেভাবে টার্গেট নিয়ে আমদানিকারকরা শত কোটি টাকা দাদনও পাঠিয়েছেন মিয়ানমারে। কিন্তু কেনা ও বিক্রয় দামের সামঞ্জস্য না থাকায় সীমান্ত ব্যবসায়ীরা শেষ পর্যন্ত চাহিদা অনুপাতে পশু আনবেন কিনা তা নিয়ে চরম সংশয় দেখা দিয়েছে।
কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিগত পক্ষকাল ধরে কেনা মূল্যের চেয়ে প্রতি গরুতে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা লোকসান দিতে হয়েছে সীমান্ত ব্যবসায়ীদের। ফলে, ঋণ ও দেনায় লগ্নিকরা অর্থ উঠে না আসার আতংকে অনেকে পশু আমদানি বন্ধ রেখেছেন। অনেকে আবার বাজারদর মনিটরিং করে সুদিনের অপেক্ষায় রয়েছেন।
আর দামের তারতম্যের পরও শাহপরীরদ্বীপ করিডরে গত সোমবার  সাতটি ট্রলারে ৯৪৪টি এবং মঙ্গলবার ৮৬ গবাদি পশু আমদানী করা হয়। যা থেকে ৫ লাখ ১৫ হাজার টাকা রাজস্ব আয় করেছে শুল্ক বিভাগ।
টেকনাফ শুল্ক বিভাগ সূত্র জানায়, সপ্তাহ খানেক বন্ধ থাকার পর ৩০ জুলাই একদিনে সাতটি ট্রলারে ৮৬৬টি গরু ও ৭৮টি মহিষ সমেত ৯৪৪টি এবং ৩১ জুলাই ৮৬টি গবাদি পশু আমদানী হয়েছে। চলতি অর্থ বছরের ৩১ জুলাই পর্যন্ত ৬ হাজার ১০৬টি পশু আমদানী হয়েছে। তৎমধ্যে ৪ হাজার ৬০১টি গরু ও ১ হাজার ৫০৫টি মহিষ। সদ্যগত অর্থবছরে ১ লাখ ২৫ হাজার ৫৬৭টি পশু আমদানী হয়। এর আগের অর্থ বছরে আমদানী হয় ৬৬ হাজার ৯৩৬টি পশু।
পশু ব্যবসায়ী স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. শরীফ জানান, সোমবার করিডর দিয়ে আমার আনা ১০০ গরু বাংলাদেশে পৌছাতে প্রতি গরুর দাম পড়েছে ৪২ হাজার টাকা। সে গরু বিক্রি করতে হয়েছে ৩৬ হাজার টাকা করে। এক দিনেই মূলধনের ৬ লাখ টাকা খোয়া গেছে। প্রতি ব্যবসায়ী বিগত মাসে এভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছেন। তাই ইচ্ছে থাকলেও আমদানী বাড়ানো যাচ্ছে না।
টেকনাফ শুল্ক ষ্টেশন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, কোরবানির ঈদের আর মাত্র বাকী ২১ দিন। কোরবানির ঈদের চাহিদা পূরণে পর্যাপ্ত পরিমাণ পশু আমদানি হবে এটা আমাদের প্রত্যাশা। কিন্তু বিগত বছর গুলোতে এ সময়ে যে পরিমাণ পশু আমদানি হয়েছিল চলতি বছরে তার সিঁকি ভাগও এখনো হয়নি। আমদানি পশুর বাজারে বিক্রয় মূল্য কম থাকায় হতাশায় ভুগছেন ব্যবসায়ীরা। এরপরও সোমবার-মঙ্গলবারে দু’দিনে ১০৩০টি গবাদি পশু আমদানী হয়েছে। আর গত একমাসে এসেছে ৬ হাজার ১০৬টি পশু। কোরবানির ঈদে টার্গেট পূরনে পশু আমদানি বৃদ্ধিতে ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
টেকনাফ উপজেলা পশু আমদানিকারক সমিতির সভাপতি আব্দুল্লাহ মনির জানান, মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পশু দেশের চাহিদা পূরণে ব্যাপক ভূমিকা রেখে আসছে। সীমান্ত প্রতিবেশী এদেশ থেকে পশু আমদানি কম হলে দক্ষিণ চট্টগ্রামে পশুর সংকট পড়ে। কোরবানির ঈদে মিয়ানমারের পশুর উপস্থিতি কমলে দামের টানাপড়েন পড়ে যায়। তাই কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মিয়ানমার থেকে ৪০ থেকে ৫০ হাজার পশু আমদানীর টার্গেট রয়েছে। সেভাবে টার্গেট নিয়ে পশু আমদানীকারকরা  শত কোটি টাকা অগ্রিম দাদন ইতোমধ্যে পাঠিয়েছেন। কিন্তু বর্ষার মূল সময় হওয়ায় বৈরি আবহাওয়া ও অন্যদিকে কেনা ও বেচায় পশুর দামে তারতম্য হওয়ায় আমদানীও আগের চেয়ে কম। দাম যা-ই হউক আমদানিকারক হিসেবে দায়িত্বের খাতিরে হলেও লক্ষ্য পূরণে চেষ্ঠা অব্যহত থাকবে। কেনার সাথে বেচা সমান্তরাল হলেও নিত্যদিন ট্রলার বোঝাই আমদানি পশু আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।
টেকনাফ শুল্ক বিভাগ সূত্র জানায়, ২০০৩ সালের ২৫ মে টেকনাফের সাবরাংয়ের শাহপরীর দ্বীপ নাফ নদীর পার্শ্বে একটি ক্যাডল করিডোর চালু করে। প্রতি গরু-মহিষ থেকে ৫শ ও ছাগল ২শ টাকা হারে রাজস্ব আদায় করা হয়। চলতি অর্থবছরের ৩১ জুলাই পর্যন্ত ৬ হাজার ১০৬টি গরু-মহিষ আমদানি করে ৩০ লাখ ৫৩ হাজার টাকা রাজস্ব পাওয়া গেছে।
সূত্র আরও জানায়, সদ্য গত অর্থবছরে এক লাখ ২৫ হাজার ৫৬৭টি পশু আমদানি করে ছয় কোটি ১৬ লাখ ৪৮ হাজার টাকা রাজস্ব পায় এনবিআর। গত বছরে আগস্টের শেষে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর নির্যাতনে লাখ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। এ সময় রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে গবাদিপশু আমদানিও থমকে যায়। এরপরও রোহিঙ্গা ইস্যুর প্রভাব কাটিয়ে বিপুলসংখ্যক পশু আমদানি করা সম্ভব হয়। এর আগের ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ৬৬ হাজার ৯৩৬টি পশু আমদানি করে তিন কোটি ৩৪ লাখ ৫৭ হাজার টাকা রাজস্ব পায় রাষ্ট্রীয় কোষাগার। পশু আমদানি যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণও।
সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, পশু আমদানি থেকে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব আয় করলেও করিডোরটির অবকাঠামোগত দৈন্যতা লেগেই আসে। আমদানিকৃত গবাদিপশুগুলো খোলা আকাশের নিচে রোদে পোড়ে, বৃষ্টিতে ভেজে। এছাড়াও পশু রাখার নেই কোনো পর্যাপ্ত ব্যবস্থা। সুষ্ঠু ব্যবস্থা নেই পশু পরিচর্যারও। এখন যে নির্দিষ্ট স্থানটি রয়েছে তার অবস্থা বেহাল। করিডোরে মহিষের স্থান হলেও আমদানি করা গরু রাখতে হয় নাফ নদীর বেড়িবাঁধের উপর।
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH