শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসার দ্বন্ধে খুনের ঘটনায় নিরীহরা আসামী : এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৮ জুলাই, ২০১৮
  • ৩৫০ Time View

আলোকিত টেকনাফ রিপোর্টঃ-

কক্সবাজারের টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসার দ্বন্ধের খুনের ঘটনায় নিরীহরা আসামী হওয়ায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ইয়াবা ব্যবসায়িদের মধ্যে এই ডাবল খুনের ঘটনা ঘটতে পারে বলে শুরু থেকেই ধারনা করা হয়েছিল। কিন্তু দুই জন ইউপি সদস্য সহ ১২ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়েরের পর থেকে ঘটনাটি অন্য মোড় নেয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, টেকনাফে ভাসমান অবস্থায় শামসুল হুদা (২৮) এবং রহিমুল্লাহ (২৩) নামে দুইজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সকালে উপজেলার হ্নীলাস্থ লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ের ছড়া  থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। মরদেহের বিভিন্ন স্থানে দায়ের কুপ ছিল।

নিহত শামসুল হুদা হ্নীলা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার নুরুল হুদার ছোট ভাই এবং রহিমুল্লাহ লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বি-ব্লকের ২৫৪ নং রোমের বাসিন্দা রশিদ আহমদ প্রকাশ লাল বুইজ্জার ছেলে।
টেকনাফ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল হতে লাশ দুটি উদ্ধার ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়। পরে ময়না তদন্ত শেষে মরদেহগুলো স্ব স্ব গোরস্থানে দাফন করেন। প্রাথমিকভাবে ইয়াবা ব্যবসার দ্বন্ধের জেরে এই হত্যাকাণ্ড বলে ধারণা করা হয়।
কিন্তু ঘটনার একদিন পর ডাবল মার্ডার গুলো পরিকল্পিত হত্যা কান্ড দাবী করে নিহত শামসুল হুদা মা বাদী হয়ে
শামসুল হুদাকে জবাই করে হত্যার অভিযোগে শাহ আজমকে প্রধান আসামী এবং অপর দুই ইউপি মেম্বারসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এতে অজ্ঞাতনামা হিসেবে ৬/৭ জনকেও আসামী করা হয়।  টেকনাফ থানার মামলা নং-টেক-২৬/১৫-০৭-১৮ ইং।
মামলার আসামীরা হচ্ছেন, হ্নীলা ইউপির আলীখালীর জামাল হোছন মেম্বারের ২য় ছেলে শাহ আজম (২৫) প্রকাশ ইয়াবা আজম, দক্ষিণ লেদার মৃত আবু বক্কর মেম্বারের ছেলে রাসেল প্রকাশ রাসেইল্যা (৩২), আলীখালীর মৃত হায়দর আলীর ছেলে জামাল হোছন মেম্বার, পশ্চিম লেদার মৃত আবু বক্কর মেম্বারের ছেলে আবছার কামাল ছিদ্দিকী (৩৮), মৃত আব্দুস সোবহানের ছেলে জাফর আলম মেম্বার (৪৮), মৃত হায়দর আলীর ছেলে জামাল হোসেন (৫০), আলীখালীর জামাল হোছন মেম্বারের ছেলে শাহ নেওয়াজ (২৭), শাহ জালাল জুয়েল (২১), দক্ষিণ আলীখালীর রশিদ মিয়ার ছেলে হারুন (২৮), দক্ষিণ লেদার আবছার কামাল ছিদ্দিকীর স্ত্রী মর্জিনা আক্তার (২৮), আলীখালীর জামাল হোছন মেম্বারের স্ত্রী খুরশিদা বেগম ও মকবুল আহমদের ছেলে জুহুর আলম (৩২) সহ অজ্ঞাতনামা ৬/৭ জন।

জানা গেছে, সরকারী ভাবে প্রস্তুতকৃত তালিকাভুক্ত টেকনাফের আলোচিত ইয়াবা কারবারি দুই পরিবারে ইয়াবার লেনদেন ও সম্পদ ভাগাভাগির জেরে খুন হয় শামসুল হুদাসহ দুইজন।

২০১৬ সালে ক্রসফায়ারে নিহত হন খুন হওয়া শামসুল হুদার ভাই নুর মোহাম্মদ । নুর মোহাম্মদের আপন জামাতা আজম শীর্ষ ইয়াবা কারবারি! তার বাবা জামাল মেম্বারও প্রভাবশালী ইয়াবা গডফাদার।

অন্যদিকে, হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য নুরুল হুদা,তিনিও ইয়াবা মামলায় আটক হয়ে  দীর্ঘদিন জেলে ছিল। খুন হওয়া শামসুল হুদা তারই ছোট ভাই।

স্থানীয়রা জানান, এটা দিনের মত পরিষ্কার যে,এই খুন পারিবারিক সম্পদ ভাগাভাগির দ্বন্দ্ব থেকে! অতচ আজম গংদের আসামী করা হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবী, একটি মহলের ইশারায় বা রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকেই উক্ত হত্যা মামলায় আসামী করা হয়েছে নিরীহ লোকজনকে। আসামীদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হচ্ছে,  টেকনাফ উপজেলা বিএনপির সভাপতি জাফর আলম মেম্বার ও তাঁর পরিবারের আরো কয়েকজন সদস্যকে। 

জাফর আলমের আপন ভাতিজা জেলা বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক,উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক এড. হাসান সিদ্দিকীর ছোট ভাই আফসার কামাল সিদ্দিকী(হ্নীলা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক), তার স্ত্রী হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনের দুই বারের নির্বাচিত মেম্বার,উপজেলা মহিলা দলের সাধারন সম্পাদক মর্জিনা সিদ্দিকা ও হাসান সিদ্দিকীর আরেক ভাই রাসেলকেও উক্ত মামলায় আসামী করা হয়েছে। 

হোয়াইক্যং ইউনিয়ন বিএনপির পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা জন্য
আক্রোশের এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। উক্ত মিথ্যা মামলা থেকে বিএনপি নেতৃবৃন্দদের নাম দ্রুত প্রত্যাহার করে নেয়ার জোর দাবি জানান স্থানীয়রা ও বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত নেতৃবৃন্দরা।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH