সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন

টেকনাফে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে রোহিঙ্গা শ্রমিক!মে দিবস কি অনেকে জানেনা?

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১ মে, ২০১৮
  • ৫৩২ Time View

সীমান্ত শহর টেকনাফ উপজেলায় শিশু শ্রমিকদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর সেই সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে অর্থলোভী অসাধু চক্র। তারা শিশু শ্রমিকদের নিজের ইচ্ছে মত ব্যবহার করে যে কোন ঝুঁকিপুর্ন কাজ আদায় করে নিচ্ছে। এতে দিনের দিন বাড়ছে শিশু শ্রমিকদের উপর অমানিবক নির্যাতন। সুত্রে আরো জানা যায়, অনেক অসাধু দোকানদার ঠিকমত তাদের পারিশ্রমিকও দিচ্ছে না।

শিশু শ্রমিকদেরকে বিভিন্ন ঝুঁকিপুর্ন কাজে ব্যবহার করে সুবিধা আদায় করছে অর্থ লোভি ব্যবসায়ীরা।
টেকনাফ পৌর শহর ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ইট ভাঙ্গা, থেকে শুরু এমন কোন বিপদ জনক কাজ নেই যা শিশু শ্রমিকরা ব্যবহার হচ্ছে না। তবে ঝুঁকিপুর্ন কাজে লিপ্ত থাকা বেশীর ভাগ শিশু রোহিঙ্গা।

টেকনাফ পৌর শহরের বিভিন্ন হোটেল, রেস্তোরায় যে সমস্ত শিশুরা জীবনের তাগিদে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে,তাদের মধ্যে বেশির ভাগ শিশু রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে পালিয়ে আসা। কারন অসাধু ব্যবসায়ীরা কম টাকার বিনিময়ে যে কোন ঝুঁকিপুর্ণ কাজ আদায় করতে পারে। অথচ প্রতি বছর এই দিবসটি এলে শ্রমিকদের উপর নির্যাতন ও তাদের ন্যার্য পাওনার দাবী নিয়ে সভা,সমাবেশ,রাজপথ কাঁপানো মিছিল এবং লম্বা লম্বা গঠন মুলক বক্তব্য দিয়ে শ্রমিক সংগঠনের নেতারা দিবসটি পালন করে।

কিন্তু এই দিবসটি শেষ হওয়ার ঠিক ২৪ ঘন্টার পর নির্যাতিত শ্রমিকদের অধিকার আদায় করতে এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের ঝুঁকিপুর্ণ কাজে যেন আর শিশু শ্রমিকদের ব্যবহার করতে না পারে। সেই প্রতিবাদ,সেই লম্বা বক্তব্যদারী নেতাদের আর চোখে দেখা যায় না।

এই ভাবে টেকনাফ উপজেলার আনাছে কানাছে দিনের পর দিন শিশু শ্রমিকদের উপর নির্যাতন চলছে। এদিকে টেকনাফ স্থলবন্দরেও ঠিক একই অবস্থা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে শ্রমিকরা হচ্ছে আহত আর নিহত। শ্রমিকরা যেন খুব সহজে মালামাল উঠানামা করতে পারে সেই ধরনের কোন যন্ত্র এই স্থলবন্দরে দেখা যায় না। এতে বন্দরের শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত কাজ করছে চরম ঝুঁকি নিয়ে।

অথচ সরকার টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে প্রতিমাসে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করছে। আর সরকারের সেই রাজস্ব আদায়ে সর্ব প্রথম ভুমিকা রাখছে শ্রমিকরা।

কিন্তু সে পরিমাণ পারিশ্রমিক এবং সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে না বন্দরে কর্মরত শ্রমিকরা। সুত্রে আরো জানা যায় টেকনাফ স্থলবন্দরে কর্মরত স্থানীয় অনেক শ্রমিক এখন আর কাজে যায় না।

শ্রমিকরা তাদের ন্যার্য অধিকার চাইতে গিয়ে অমানবিক নির্যাতন হচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।
বন্দরের শ্রমিকদের কাছ থেকে খবর নিয়ে জানা যায়, প্রতি বছর ভারী মালামাল উঠানামা করতে গিয়ে অনেক শ্রমিক নিমর্মভাবে প্রাণ হারাচ্ছে। আর টেকনাফের স্থানীয় শ্রমিকদের বাদ দিয়ে বন্দরের অসাধু মাঝিরা কম টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গা শ্রমিকদের দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

এব্যাপারে স্থানীয় গরীব, দুঃখী, মেহনতী বেশ কয়েকজন শ্রমিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, টেকনাফ স্থল বন্দরে অর্থলোভী মাঝিদের কারণে আমরা সঠিকভাবে আমাদের পারিশ্রমিক আদায় করতে পারচ্ছি না। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেক সময় মাঝিদের সাথে আমাদের অনেক ঝগড়া বিবাদ সৃষ্টি হয়।

উল্লেখ্যঃ-পহেলা মে আসলে মনে পড়ে সেই দিনটির কথা। ১৮৮৬ সালের এদিনে যুক্তরাষ্ট্রে শিকাগো শহরে হে মাকের্টের সামনে সর্বোচ্চ ৮ ঘন্টা কাজ ও শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা দাবীতে কঠোর আন্দোলন করেছিল শ্রমিকরা। তাদের সেই দাবী অযোক্তিক ছিল না। তখনকার শোষক এক শ্রেনীর পুলিশের গুলিতে আন্দোলনে আসা শ্রমিকদের রক্তে শিকাগো শহর ভেসে গিয়েছিল লাল রক্তের বন্যায়। এঘটনার খবর সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়লে সারা বিশ্বের দিনমজুর শ্রমিকরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাদের সে অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ সারা বিশ্বে বিভিন্ন দেশে শ্রমিকদের জন্য আলাদা আইন হয়েছে এবং হয়েছে নীতিমালা। এদিনটি এখন আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৮০টি দেশে এদিন জাতীয় ছুটি হিসেবে পালন করা হয়।

দিবসটি এলে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শ্রমিক সংঘঠনের নেতারা শ্রমিকের দাবী নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়ে। মিছিল আর শ্লোগানে রাজপথ মুখরিত করে তোলে। তারা দেশবাসীকে বোঝাতে চায় তারা খুবেই শ্রমিক বান্ধব। শ্রমিকের অধিকার আদায়ের জন্য তারা নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকে। দিনটি শেষ হওয়ার সাথে সাথেই ভুলে যায় শ্রমিকদের কথা।
নেতাদের আর মনে থাকে না অসহায় শ্রমিকদের কথা। অথচ এ শ্রমিকরা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক আয়ের মূল চাবিকাঠি।

টেকনাফের শ্রমিক সংগঠনের নেতা মোঃ রশিদ মহান মে দিবসে ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্য করে বলেন টেকনাফ পৌর শহরে যে সমস্ত অসাধু ব্যবসায়ীরা ঝুঁকিপুর্ণ কাজে শিশু শ্রমিকদের ব্যবহার করছে সেই সমস্ত ব্যবসায়ীদের প্রতি অনুরোধ থাকবে শিশু শ্রমিকদের ঝুঁকিপুর্ণ কাজে যেন তারা তাদের ব্যবহার না করেন। টেকনাফ টুডে

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH