শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

টেকনাফ নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পে দু’ডাকাত গ্রুপের গোলাগুলি : নেপথ্যে রোহিঙ্গা নুর হাফেজ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ জুন, ২০১৮
  • ৪২০ Time View

মিজানুর রহমান মিজান, স্পেশাল করস্পন্ডেন্টঃ-

টেকনাফে নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পে আবারো আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সশস্ত্র দু‘দল ডাকাত গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটনা ঘটেছে। এতে সাধারণ রোহিঙ্গারা আতংকিত হয়ে পড়েছে। রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিম ও তার সেকেন্ড ইন কমান্ড রোহিঙ্গা নুর হাফেজ এর নিয়ন্ত্রণে এসব রোহিঙ্গারা নানা অপরাধে সম্পৃক্ত বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে ।

জানা যায়, ২৫ জুন রাত পৌণে ৮টার দিকে টেকনাফের নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের এইচ ব্লকের ছমুদা পাহাড় সংলগ্ন এলাকার সশস্ত্র ডাকাত মোঃ হাশিম গ্রুপ এবং নুরুল আলম গ্রুপের মধ্যে অস্ত্র বাণিজ্য, ইয়াবা চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ, অপহরণ করে মুক্তিপণ বাণিজ্যসহ আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

এসময় নুরুল আলম গ্রুপের সেকেন্ড ইন কমান্ডা হাসান গুলিবর্ষণ করলে প্রতিপক্ষও গুলিবর্ষণ করে। এতে উভয়পক্ষ ৬/৭ রাউন্ড ফাঁকাগুলি বর্ষণ করলে আতংক সৃষ্টি হয়। এতে হাশিম ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে সর্বত্র গুজব ছড়িয়ে পড়ে।
এই ঘটনার সংবাদ পেয়ে পুলিশ-বিজিবির বিশেষ দল অভিযানে চালালেও গুলিবিদ্ধ কোন লোকজনের সন্ধান পায়নি। আতংকিত রোহিঙ্গাদের শান্ত করে চলে আসেন।

এ বিষয়ে রোহিঙ্গা নেতা ইয়াছিন বলেন, সশস্ত্র গ্রুপের কারণে আমরা সাধারণ রোহিঙ্গারা চরম আতংকে আছি। ডাকাতদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিষয়ে সকলের সজাগ থাকা দরকার।

নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের আইসি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গোলাগুলি ও আহত হওয়ার কোন ধরনের লক্ষণ পায়নি। তবে উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে সাধারণ রোহিঙ্গাদের শান্ত করে চলে আসি।

এদিকে একাধিক সুত্রের দাবী, নয়াবাজার, রঙ্গিখালী, আলীখালী, লেদা-মোচনী ও জাদিমোরা এলাকার চিহ্নিত কিছু ইয়াবা চোরাকারবারী এবং সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ ও রোহিঙ্গা অপরাধীদের সাথে মিলে ইয়াবা চোরাচালান, নিয়ন্ত্রণ, ছিনতাই, অবৈধ অস্ত্রের মওজুদ, অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় বাণিজ্য চালিয়ে আসছে।

তাদের মধ্যে গ্রুপিং হওয়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রায় সময় গুলাগুলি, মারামারি সহ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে আসছে। আর এসব কাজের ইন্দনদাতা হিসেবে টেকনাফের বনদস্যু হিসেবে খ্যাত রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিম, তার সেকেন্ড ইন কমান্ড রোহিঙ্গা নুর হাফেজ এর নিয়ন্ত্রণে এসব রোহিঙ্গারা নানা অপরাধে সম্পৃক্ত বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে । রোহিঙ্গা ডাকাত নুর হাফেজ নয়াবাজার , রঙ্গীখালী ও নয়াপাড়ায় আস্তানা ঘেরে ইয়াবা ব্যবসা, অস্ত্র ব্যবসা, ডাকাতি সহ বিভিন্ন অপরাধ প্রকাশ্যে সংগঠিত করে আসলেও পুলিশের হাতে গ্রেফতার না হওয়ায় জনমনে নানান প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH