শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০১:০৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

নতুন দিগন্তে পা রাখলো : কক্সবাজার পর্যটন শহর ৬৪টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতায়

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ২৯০ Time View

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, আলোকিত টেকনাফ :

সৈকত ও পর্যটন নগরী কক্সবাজারে বেড়াতে আসা দেশ-বিদেশের পর্যটকদের নিরাপত্তার খাতিরে এবার বসানো হয়েছে ৪০টি স্থানে ৬৪টি ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা। ছিনতাই ও চুরিসহ পর্যটন শহরের অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও যে কোন ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে কক্সবাজার জেলা পুলিশ এ পদক্ষেপ নেন। সার্বক্ষণিক ফুটেজ মনিটরিংয়ের লক্ষ্যে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নির্মিত হয়েছে সিসি ক্যামেরার কন্ট্রোল রুম। পর্যবেক্ষণের নিয়োগ দেয়া হয়েছে লোকবলও।

শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১ টায় কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার ড. কেএম ইকবাল হোসেনের হাত দিয়েই আনুষ্ঠনিকভাবে উদ্বোধনের পর সিসি ক্যামেরার আওতায় এসেছে পর্যটন ও সমুদ্র নগরী কক্সবাজার। এতে করে পর্যটন শহর নতুন দিগন্তে পা রাখলো।  জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার পৌরসভা মেয়র মুজিবুর রহমান, কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতি আলহাজ্ব আবু তাহের চৌধুরী, জেলা পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি এড.তাপস রক্ষিত, আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আল রাজা শাহ আলম, এসআলম পরিবহণ ইনচার্জ মো. আলমসহ সরকারী পদস্থ কর্মকর্তারা।

এরআগে গত ১৭ আগস্ট সিসিটিভি মনিটরিং কন্ট্রোল এন্ড কমান্ড সেন্টারের উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন বলেন, বিশ্বের দীর্ঘতম সৈকত নগরী শহর কক্সবাজার। দেশের পর্যটন রাজধানী হিসেবে প্রতিবছর এখানে বেড়াতে আসেন লাখ লাখ পর্যটক। সম্প্রতি রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে কক্সবাজারের গুরুত্ব বিশ্বব্যাপী আরও বেড়েছে। ফলে পর্যটন শহরে অবস্থান করছে বিভিন্ন এনজিওতে কর্মরত কয়েকশ বিদেশি নাগরিক। আর লাখো পর্যটক আগমনকে লক্ষ্য করে মাথাচাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করে ছিনতাইকারীসহ নানা অপরাধী চক্র।

তিনি আরও বলেন, এসব বিষয় মাথায় রেখেই নিরাপদ পর্যটনের লক্ষ্যে কক্সবাজার শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সিসি ক্যামেরা বসানোর পরিকল্পনা নেয় জেলা পুলিশ সুপার ড.একেএম ইকবাল হোসেন। এরই ধারাবাহিকতায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন, মনিটরিং ভবণ নির্মাণ, ক্যাবল সংযোগ ও লোকবল নিয়োগসহ সব কিছু সম্পন্ন হওয়ার পর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছে। শনিবার উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে পর্যটন শহর নতুন দিগন্তে পা রাখলো।

ইকবাল হোসেন আরো বলেন, অপরাধীরা এমনিতেই মানসিকভাবে দুর্বল প্রকৃতির হয়। সমাজ ও আইনকে ফাঁকি দিয়েই তারা সচরাচর অপরাধ করে যাচ্ছে। এই সিসি ক্যামরা অপরাধীদের সনাক্ত করতে সহযোগিতা করবে। তাছাড়া পর্যটক ও স্থানীয়রা নিরাপদে অনেকটা চলাচল করতে পারবে। সিসি ক্যামেরার কারণে কমপক্ষে ৬০ শতাংশ অপরাধী অপরাধের অন্ধকার পথ ছেড়ে দেবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের স্পেশাল শাখা (এসবি) সূত্র জানায়, কক্সবাজার পৌরসভার গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন অলিগলিসহ সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউপির লিংকরোড় পর্যন্ত দেড় শতাধিক সিসি ক্যামেরা স্থাপন করার সিদ্ধান্ত হয়। তবে আপতত কক্সবাজার পৌরসভার প্রধান সড়কসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানের ৪০টি পয়েন্টে ৬৪ টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।

সিসি ক্যামেরার আওতায় আসা স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে, কেন্দ্রিয় বাসটার্মিনাল পুলিশ বক্স ও সিএনজি পাম্প, কক্সবাজার জেলা কারাগার, স্টেডিয়ামের সামনে ও মোহাজের পাড়ার মোড়, জেলা সদর হাসপাতালের দক্ষিণ ও পূর্ব পাশের মোড়, জেলা শিক্ষা অফিসের সামনে (সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়), গোলদিঘীর পাড়ের দক্ষিণ মোড়, অগগমেধা ক্যাং (বৌদ্ধ মন্দির) সড়ক, বার্মিজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের উত্তর মোড়, বড় বাজার সামনে মোড় (বাজারঘাটা) ,ভোলাবাবুর পেট্রোল পাম্প, লালদিঘীর পূর্ব পাড় মসজিদের সামনে, পৌরসভার সামনে, গুমগাছ তলা (শ্যামলী কাউন্টারের পাশে) , বিমানবন্দর গেইটের সামনে, ঝাউতলা গ্যান্ড হোটেল রেঁনেসার সামনের যাত্রী ছাউনিতে, হলিডের মোড়ের যাত্রী ছাউনীর সামনে ও পিটিআই স্কুলের সামনের মোড়ে (পিডিবির সামনে) সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়াও আরআরআরসি অফিসের সামনে (বাণিজ্য মেলার মাঠ), লাবণীর মোড়ের যাত্রী ছাউনী, কল্লোল মোড়, হান্ডি রেস্টুরেন্টের মোড়, সী ইন পয়েন্ট ট্যুরিস্ট পুলিশ বক্স, সুগন্ধার মোড় (ড্রাগন মার্কেটের সামনে), কলাতলীর পেছনের মোড় (সী ক্রাউন এর সামনে), কলাতলীর মোড়, হোটেল সী প্যালেসের উত্তর ও দক্ষিণ পাশ, সুগন্ধা পয়েন্ট ট্রাফিক পুলিশ বক্স, লং বীচের পাশে ( মোহাম্মদীয়া হোটেল সামনের পশ্চিম পাশ), নিরিবিলি অর্কিড এর এটিএম বুথের পাশে, সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সামনে (কটেজ জোনের পাশে) জাম্বুর মোড়, গোলচত্বর মোড়ের দক্ষিণ পাশে ( ইউএনএইচসিআরের পেছনের রাস্তা), পাসপোর্ট অফিসের সামনে, সার্কিট হাউস গেইট, পুলিশ সুপার বাসভবনের সামনের মোড় ও পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সামনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়।

কয়েকজন পর্যটক বলেন, পর্যটন শহর হিসেবে কক্সবাজার অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব সিসি ক্যামরা অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়িরা জানান, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সিসি ক্যামেরার বিশেষ ভুমিকা রাখবে। পর্যটন শহরের বিভিন্ন স্থানে লাগানো ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার উপকারিতা স্বীকার করে স্থানীয়রাও স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH