সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন

পতাকা বৈঠকে সেনা মোতায়েনের কথা স্বীকার মিয়ানমারের

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২ মার্চ, ২০১৮
  • ৩৫৮ Time View

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু সীমান্তের ওপারে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার প্রয়োজনে সেনা মোতায়েনের কথা স্বীকার করেছে মিয়ানমার। তবে ফাঁকা গুলিবর্ষণের কথা অস্বীকার করেছে তারা।

শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ সীমান্তের ঘুমধুম পয়েন্টে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে পতাকা বৈঠকে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) পক্ষ থেকে ওই দাবি করা হয়।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন এতে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের প্রধান বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান।

বিকেলে সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত দু’দেশের মধ্যে ওই বৈঠক হয়। এতে মিয়ানমারের পক্ষে নেতৃত্ব দেন দেশটির বিজিপির ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক সুচায়ে হু।

বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে.ক. মঞ্জুরুল হাসান খান জানিয়েছেন, অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার প্রয়োজনে বান্দরবানের তুমব্রু সীমান্তের ওপারে সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করা হয়েছে বলে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার রাতে সীমান্তের ওপার থেকে ফাঁকা গুলি ছোড়ার বিষয়টি তারা অস্বীকার করেছে।

এছাড়া শূন্যরেখায় আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে আবারও তারা আশ্বস্ত করেছে বলে জানিয়েছেন ওই বিজিবি কর্মকর্তা।

তুমব্রু সীমান্তের ওপারে বৃহস্পতিবার ভোরে থেকে মিয়ানমারের ভারী অস্ত্র ও অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের ঘটনায় ওই এলাকায় থমথমে অবস্থা তৈরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে দেশ দুটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে এই পতাকা বৈঠকে হলো।

এদিকে, বৃহস্পতিবার দুপুরে সমকালের কক্সবাজার অফিসের নিজস্ব প্রতিবেদক আবু তাহের ও উখিয়া প্রতিনিধি মুহাম্মদ হানিফ আজাদ তমব্রু কোনারপাড়া সীমান্তের জিরো লাইনের কাছাকাছি গিয়ে দেখেন, সীমান্তের ওপারে পাহাড়ে বাংকার খুঁড়ে মিয়ানমারের সেনারা ভারী অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অবস্থান করছে। সেনাদের সঙ্গে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি সদস্যরাও অবস্থান করছে।

ওই পয়েন্টে দেড় শতাধিক সেনা মোতায়েনের কথা জানান বিজিবির এক সদস্য। সীমান্তের ওই স্থানে শূন্যরেখায় গত আগস্ট থেকে অবস্থান করছে প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা।

শূন্যরেখায় থাকা রোহিঙ্গা নুর মোহাম্মদ জানান, সকাল (বৃহ্স্পতিবার) থেকে মিয়ানমারের সেনাসদস্যরা মর্টার, কামানসহ ভারী অস্ত্র নিয়ে এসেছে। তারা শূন্যরেখায় অবস্থান নেওয়া রোহিঙ্গাদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দিয়েছে। সকাল থেকে মাইকিং করেছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ।

পরে বিকেলে ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবাদ জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে রাত ৮টার দিকে শূন্যরেখায় অবস্থানরত রোহিঙ্গারা বিক্ষোভ করলে সীমান্তের মিয়ানমারের অংশ থেকে দুই রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়।

সংশ্নিষ্টরা বলছেন, হঠাৎ মিয়ানমার মর্টার শেল ছুড়ে সীমান্ত এলাকায় পরিস্থিতি ঘোলাটে করার মধ্য দিয়ে রোহিঙ্গা ইস্যু থেকে বিশ্ববাসীর নজর ভিন্ন খাতে প্রবাহের চেষ্টা করছে। এর আগেও বেশ কয়েকবার বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে মিয়ানমার সেনারা। বাংলাদেশ সরকার এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH