টেকনাফ প্রতিনিধি|

স্বদেশে ফেরত পাঠাতে প্রত্যাবাসন চুক্তি হলেও টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছেন রোহিঙ্গারা। বুধবার টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে ৮৯ পরিবারের ৩৩০ জন রোহিঙ্গা নতুন করে এসেছেন। কোনোভাবে থামছে না রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ।টেকনাফের সাবরাং হারিয়াখালীর সেনাবাহিনী ত্রাণকেন্দ্রে দায়িত্বরত জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি ও টেকনাফ উপজেলার জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন পরির্বতন ডটকমকে বলেন, বুধবার নতুন করে এসেছে ৮৯ পরিবারের মোট ৩৩০ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ। তারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে প্রথমে সাবরাং হারিয়া সেনাবাহিনীর হারিয়াখালী ত্রাণকেন্দ্রে আসে। এরপর তাদেরকে চাল, ডাল, সুজি, চিনি, তেল, লবণের একটি করে বস্তা দিয়ে গাড়িতে করে টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরে পাঠানো হয়েছে। নাফ নদীতে বিজিবি সতর্ক অবস্থায় থাকায় রোহিঙ্গারা এখন সাগর পাড়ি দিয়ে টেকনাফে আসছেন।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান বলেন, হঠাৎ করে আবারও সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিন কোনো না কোনো সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গারা ঢুকছে বাংলাদেশে। বুধবার নতুন করে এসেছে ৮৯ পরিবারের মোট ৩৩০ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ। পালিয়ে আসাদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু।

তিনি আরও বলেন, যেসব রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করছে তাদের মানবিক সহায়তা দিয়ে টেকনাফ নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরে পাঠানো হচ্ছে।