সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৬:৫৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

বর্ষার আগেই প্রস্তুত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ স্থান

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৯ মে, ২০১৮
  • ৩১২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:-

বাংলাদেশে আসন্ন ঘূর্ণিঝড় ও ভারী বর্ষা মৌসুমে আনুমানিক দুই লাখ মানুষ বন্যা ও ভূমিধসের অধিক ঝুঁকিতে পড়বে বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।

বর্ষা মৌসুমের আগেই ভূমিধসের ঝুঁকিতে থাকা রোহিঙ্গা শরণার্থী পরিবারগুলোকে স্থানান্তরের জন্য প্রথম জমিটি প্রস্তুত হয়েছে।

৮ মে, মঙ্গলবার রোহিঙ্গাদের জন্য কাজ করা মানবাধিকার সংস্থাগুলো এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

আইওএম, ইউএনএইচসিআর এবং ডব্লিউএফপি এর একটি যৌথ উদ্যোগে ১২ একর জমির ওপর স্থানটি প্রস্তুত করা হয়।

সংস্থাগুলো বলছে, নতুন এই স্থানটিতে প্রয়োজনীয় সেবা যেমন- পানি, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা সুবিধাসহ শরণার্থী শিবিরে সর্বোচ্চ বিপদ ঝুঁকিতে থাকা ৫০০ নতুন পরিবারকে আশ্রয় দেওয়া সম্ভব হবে।

কক্সবাজার আইওএমের জরুরি সমন্বয়ক ম্যানুয়েল মারকুয়েস পেরেইরা বলেন, ‘স্থানান্তরের জন্য প্রথম এলাকাটি প্রস্তুত হওয়া থেকে বোঝা যায় যে, বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে যৌথ উদ্যোগের মাধ্যমে বাস্তবিক এবং জীবন রক্ষাকারী কাজে সফলতা অর্জন সম্ভব।’ বর্ষা আসন্ন হওয়ায় নতুন জমি প্রস্তুত করতে আরও দ্রুত কাজ করে যাওয়ার কথা বলেন তিনি।

২০১৭ সালের আগস্টের পর থেকে প্রায় সাত লাখ শরণার্থী মিয়ানমারে সহিংসতা থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসেছে। তাদের ঠাঁই হয়েছে জনবহুল ও ঘনবসতিপূর্ণ শরণার্থী শিবিরে। এসব স্থাপনায় বেশির ভাগ শরণার্থী খাড়া বালুময় পাহাড়ের ওপর তেরপল ও বাঁশের তৈরি বাসস্থানে থাকছে।

আসন্ন সপ্তাহগুলোতে যখন বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় ও ভারী বর্ষা আঘাত হানবে, তখন সব স্থাপনা মিলে আনুমানিক দুই লাখ মানুষ বন্যা ও ভূমিধসের অধিক ঝুঁকিতে পড়বে বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে জরুরি কাজ হচ্ছে ভূমিধসের অত্যাধিক ঝুঁকিতে থাকা প্রায় ২৪ হাজার মানুষকে স্থানান্তরের চেষ্টা করা।

সম্ভাব্য স্থানান্তরের জন্য বাংলাদেশ সরকার সম্প্রতি ৫০০ একর জমির বরাদ্দ দিয়েছে। কিন্তু কক্সবাজার এলাকার ভূসংস্থানগত কারণে বিশেষ করে অনেক এলাকা পাহাড় হওয়ার কারণে বরাদ্দকৃত জমির একটি ক্ষুদ্র অংশকে আসন্ন বর্ষার আগে নিরাপদ করে তৈরি করা যাবে।

সম্প্রতি দ্রুত গতিতে বাসস্থান স্থাপন হওয়ার আগে থেকেই এই এলাকাটি ভূমিধস প্রবণ ছিল, যা বর্তমানে আরও বেশি বেড়ে গেছে এবং যারা শরণার্থীদের সুরক্ষার জন্য কাজ করছে তাদের জন্য অধিকতর প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম বলেন, ‘আমাদের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে বছরের এই সংকটপূর্ণ সময়ে শরণার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

রোহিঙ্গাদের নিরাপদ স্থানে স্থানান্তরের জন্য বাংলাদেশ সরকার, জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা এবং সহযোগী সংস্থাগুলো নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।’

এ বিষয়ে ইউএনএইচসিআরের কক্সবাজার অপারেশনের প্রধান কেভিন জে. অ্যালেন বলেন, ‘এই উচ্চাকাঙ্ক্ষী প্রকল্পের পরবর্তী ধাপে অগ্রসর হতে পেরে আমরা খুবই খুশি, যা বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তায় আন্তঃসংস্থার পারস্পরিক সহযোগিতার একটি ভালো উদাহরণ।

ভূমিধস ও বন্যায় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবারগুলোকে বর্ষা মৌসুমের বৈরি পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার আগেই নিরাপদে সরানোর প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে সময়ের সাথে পাল্লা দিতে হবে।’ নিউজ কক্সবাজার ডট কম

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH