বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:১৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

ভাঙ্গনের কবলে সেন্টমার্টিন: রক্ষার উদ্যোগ নেই!

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই, ২০১৮
  • ৩৫৬ Time View
খাঁন মাহমুদ আইউব(কক্সবাজার)প্রতিনিধি:-

সমুদ্র কন্যা স্বপ্নের সেন্টমার্টিন দ্বীপ জোয়ারের পানিতে ভাঙ্গনের কবলে পড়ে নিজস্ব সৌন্দর্য হারাচ্ছে।দ্বীপের দক্ষিন,পশ্চিম পাশে অন্তত দু’টি গ্রামে জোয়ারের লোনাপানি প্রবেশ করে ফসলি জমির বিপুল ক্ষয় ক্ষতি হচ্ছে।এতে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে দ্বীপের সাধারন কৃষকরা।এভাবে পানি প্রবেশ অব্যাহত থাকলে আচিরেই দ্বীপ পানির নিচে তলিয়ে যাবার আশংকা রয়েছে।

চারো দিকে নারিকেল গাছের সারি সারি বাগানে ঘেরা দ্বীপটি।সাগরের লোনাপানি তার মাঝে অবস্থিত একমাত্র প্রবাল দ্বীপ নারিকেল জিঞ্জিরা (সেন্টমার্টিন) দ্বীপ।৯টি ওয়ার্ড নিয়ে ছোট্ট এই দ্বীপ ইউনিয়নটি কালের পরিক্রমায় প্রকৃতির থাবায় ছোট হয়ে আসছে বছরের পর বছর।পরিবেশ অধিদপ্তর দ্বীপে অবৈধ স্থাপনা সরানোর কাজে ব্যস্ত।তবে দ্বীপের ভাঙ্গন রোধে কোন কার্যক্রম নেই বলে অভিযোগ জন প্রতিনিধি ও স্থানীয় জন সাধারনের।সরেজমিন ঘুরে স্থানীয়দের সাথে আলাপে জানা গেছে,দ্বীপের দক্ষিন পাড়া জামে মসজিদ এলাকা,বাতি ঘর এলাকা,বড় বিলের পশ্চিম সাইড এলাকা,মোশারফের পয়েন্ট,হোটেল অবকাশ,নীল দীগন্ত রিসোর্ট,সিমানা পেরিয়ে রিসোর্ট সহ দ্বীপের একমাত্র কবরস্থান এলাকাটি জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হতে দেখা গেছে। আমাবশ্যা-পূর্ণিমার জোয়ারে বারবার আঘাতের ফলে প্লাবিত এলাকা গুলো অনেকটা ভাঙ্গন শুরু হয়েছে।দিন যতো গড়াচ্ছে পানির উচ্চতা বাড়ছে আর নতুন নতুন এলাকা গ্রাস করছে।লোনাপানি লোকালয়ে ঢুকে পড়াতে বিস্তির্ণ এলাকা ফসলি জমি ক্ষয় ক্ষতি হচ্ছে।ফলে স্থানীয় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় চেয়ারম্যান নুর আহমদের অভিযোগ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপর।তিনি জানান,ভাঙ্গন কবলিত এলাকা গুলোতে বালির বস্তা ফেলে বাঁধ দিয়ে ঢেউয়ের আচড় থেকে দ্বীপকে রক্ষা করা প্রয়োজন।স্থানীয় উদ্যোগে বস্তবায়ন করতে গিয়ে জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে মৌখিক ভাবে সাফ নিষেধ করে দিয়েছে।ফলে দেশের একমাত্র কোরাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন সমুদ্র গর্ভে বিলিন হতে সময় লাগবেনা।এদিকে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাফ জানান,দ্বীপে কোন কাজ করতে গেলে অবশ্যই পরিবেশ অধিদপ্তরকে জানাতে হবে।আমরা তথ্য পেয়েছি সৈকতের বালি নিয়ে রাস্তা নির্মান করা হচ্ছে।এটা পরিবেশ আইন পরিপন্থী তাই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।তবে দ্বীপের ভাঙ্গন নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান লিখিত কোন আবেদন করে নাই।আবেদন করলেই আমরা প্র‍য়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে ভাঙ্গন রোধের ব্যবস্থা গ্রহন করবো।কারন দ্বীপটি রাষ্ট্রীয় সম্পদ,সুতরাং দ্বীপ রক্ষা করার দায়িত্ব সরকারের।এদিকে স্থানীয় দ্বীপবাসীর দাবী অনতিবিলম্বে দ্বীপের ভাঙ্গন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে চলতি বর্ষায় দ্বীপের একমাত্র কবর স্থান সমুদ্র সৈকতে বিলিন হওয়ার সম্ভবনা প্রবল।তাই এই দ্বীপটি রক্ষার্থে জরুরী ভিত্তিতে জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী।অন্যতায় এক সময় সেন্টমার্টিন মানচিত্র থেকে মুছে যেতে পারে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH