বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৪৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

মিয়ানমার থেকে গবাদি পশু আমদানির রেকর্ড

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২০ আগস্ট, ২০১৮
  • ১৮৫ Time View

জাকারিয়া আলফাজ, টেকনাফ | 

শেষের ক’দিন বৈরি হাওয়ায় উত্তাল সাগর পাড়ি দিয়ে মিয়ানমার থেকে টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ করিডরে গবাদি পশু নিয়ে কোন ট্রলার ভিড়েনি। এতে পশু আমদানিকারকরা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন পশুর হাটের ব্যবসায়ীরাও অনেকটা শঙ্কায় ছিলেন। আশংকা ছিল দেশের দক্ষিণাঞ্চলের পশুর হাটে পশু সংকটেরও। তবে বৈরি হাওয়া কেটে যাওয়ায় সে আশংকা আপাতত কেটে গেছে। মিয়ানমার সীমান্তবর্তী টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ করিডরে গবাদি পশু আমদানি বেড়েছে। গত শুক্রবার থেকে শাহপরীর দ্বীপ করিডরে স্থানীয় পশু আমদানিকারকদের কাছে আসতে শুরু করেছে ঝাঁকে ঝাঁকে কোরবানির পশু। বৈরি হাওয়ায় গত কয়েক দিন ধরে পশু আমদানি বন্ধ থাকার পর ফের পশু আমদানি বাড়াতে স্বস্তি প্রকাশ করছেন আমদানিকারক ও গবাদি পশু ব্যবসায়ীরা।
টেকনাফ শুল্ক স্টেশন সূত্র মতে, গত শুক্রবার ও শনিবার দুইদিনে শাহ পরীর দ্বীপ করিডরে মিয়ানমার থেকে এসেছে ৩ হাজার ২৯৯ টি গবাদি পশু। তন্মধ্যে গত শুক্রবার ১১ টি ট্রলারে ১ হাজার ১২৯ টি এবং শনিবার বিকাল পর্যন্ত সময়ে আরো ১৩ টি ট্রলারে এসেছে ২ হাজার ১৭০ টি পশু। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে রেকর্ড পরিমাণ গবাদি পশু আমদানি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আমদানিকারকরা। করিডরে আমদানিকৃত পশুগুলো গুলো সরকারি কোষাগারে রাজস্ব আদায় শেষে বিক্রি হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত পশু ব্যাপারীদের কাছে। পরবর্তীতে এসব ব্যাপারীরা তাদের ক্রয়কৃত পশুগুলো দেশের বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে নিয়ে যাচ্ছেন। টেকনাফ শুল্ক স্টেশন সূত্র জানায়, গতকাল শনিবার ২ হাজার ১৭০ টি গবাদি পশু আমদানি হয়েছে। এটিই এ পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ পশু আমদানির রেকর্ড।
একদিনের পশু আমদানিতে সরকারের কোষাগারে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা। শাহপরীর দ্বীপ করিডর প্রতিষ্ঠার পর অতীতের কোন সময়ে একদিনে এত বিপুল সংখ্যক পশু আমদানি হয়নি বলেও জানায় সংশ্লিষ্ট সূত্র। এদিকে চলতি মাসের ১৫ আগস্ট পর্যন্ত করিডরে মিয়ানমার থেকে ১২ দিন পশু আমদানি হয়েছে। এ ১২ দিনে আমদানি হয়েছে ৫ হাজার ৭২৩ টি গবাদি পশু। তন্মধ্যে ৫ হাজার ৪৯১ টি গরু এবং ২৩২ টি মহিষ। প্রতিটি গরু-মহিষ প্রতি ৫০০ টাকা হারে রাজস্ব আয় হয়েছে ২৮ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ টাকা। এবং গত দু’দিনের আমদানিকৃত ৩ হাজার ২৯৯ টি পশু থেকে রাজস্ব আয় হয়েছে ১৬ লাখ ৪৯ হাজার ৫০০ টাকা। সর্বসাকুল্যে চলতি মাসের ১৭ আগস্ট পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে ৯ হাজার ২২ টি পশু আমদানির বিপরীতে রাজস্ব আয় হয়েছে ৪৫ লাখ ১১ হাজার টাকা।
যা গত জুলাই পুরো মাসে করিডর থেকে রাজস্ব আয়ের চেয়ে ১৪ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকা বেশি। টেকনাফ শুল্ক স্টেশন কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, মিয়ানমার থেকে পশু আমদানী করে এ করিডর রাজস্ব প্রাপ্তিতে ব্যাপক ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। বৈরি হাওয়ায় গত কয়েকদিন পশু আমদানি বন্ধ থাকার পর শুক্রবার থেকে আবারো মিয়ানমার থেকে পুরোদমে পশু আমদানি শুরু হয়েছে। করিডরে পশু আমদানির এ ধারা অব্যাহত থাকলে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করা সম্ভব হবে। শাহপরীর দ্বীপ করিডরের পশু আমদানিকারক সমিতির সভাপতি ও টেকনাফ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র আব্দুল্লাহ মনির জানান, ‘বৈরি আবহাওয়ার কারণে সাগর উত্তাল থাকায় গত কয়েক দিন মিয়ানমার থেকে গবাদি পশু বোঝাই কোন ট্রলার করিডরে আসতে পারেনি।
তবে এখন বৈরি হাওয়া কেটে যাওয়ায় মিয়ানমার থেকে পশু আমদানি আবারো শুরু হয়েছে। আশা করছি, আবহাওয়া পরিস্থিতি গত দু’দিনের মতো স্বাভাবিক থাকলে কোরবানির আগ পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে রেকর্ড পরিমাণ গবাদি পশু আমদানি করা সম্ভব হবে। এতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলসহ বিভিন্ন পশুর হাটে কোরবানির পশুর চাহিদা পূরণের পাশাপাশি সরকারের রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পাবে।’ তিনি আরো জানান, মিয়ানমার থেকে করিডরে পশু আমদানি এবং ক্রয়-বিক্রয়ে তারা সর্বস্তরেরর প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছেন এবং কোথাও কোন ব্যাঘাত ঘটছেনা। টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপ করিডরটি শুল্ক স্টেশনের আওতাধীন একটি রাজস্ব জোন। ২০০৩ সালে ২৫শে মে মিয়ানমার থেকে চোরাই পথে গবাদি পশু আসা রোধে সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীরদ্বীপ জেটি ঘাট বিজিবির চৌকি সংলগ্ন এলাকায় এ করিডর চালু করা হয়।
আমদানীকৃত গবাদি পশু প্রথমে বিজিবির তত্বাবধানে করিডরে রাখা হয়। পরে সেখান থেকে টেকনাফ সদরে অবস্থিত সোনালী ব্যাংকে রাজস্ব জমা এবং স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশনের অনুমতি নিয়েই পশুগুলো করিডর থেকে ছাড় পাওয়া যায়। সময়, অর্থ ও যাতায়ত সুবিধার্তে গবাদি পশু আমদানিকারকরা দাবি জানান, টেকনাফ সদর থেকে শাহপরীর দ্বীপের দূরত্ব এবং যাতায়ত সমস্যার বিষয়টি বিবেচনা করে শাহপরীর দ্বীপ করিডর সংলগ্ন একটি সোনালী ব্যাংক এবং শুল্ক স্টেশনের অস্থায়ী বুথ স্থাপন করা গেলে আমদানিকারক ও ক্রেতা- বিক্রেতা উভয়ের জন্য সুবিধাজনক হবে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH