সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:২২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

লবণ আমদানির পক্ষে মিল মালিক, চাষিদের ‘না’

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১৯১ Time View

আজিম নিহাদ, কক্সবাজার | 

বর্তমানে বাজারে লবণ সংকটের প্রভাব নেই। কিন্তু মিল মালিকরা আশঙ্কা করছেন শীঘ্রই দেশে লবণের চরম সংকট তৈরি হবে। যেটি মোকাবেলা করতে এখনই দেড় থেকে দুই লাখ টন লবণ আমদানির দাবি তুলছে মিল মালিকেরা।
অন্যদিকে লবণ চাষিরা বলছেন, চাষীদের কাছে লবণ মাঠে মাটির নিচে এবং মিল মালিকদের কাছে লবণ মজুদ আছে। বর্তমানে সাড়ে তিন থেকে চার লাখ টন লবণ মজুদ রয়েছে। এই মুহুর্তে লবণ আমদানির মত হটকারী সিদ্ধান্ত নিলে চাষীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হবে। যা আগামী নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে।

লবণ আমদানি নিয়ে চাষী এবং মিল  মালিকদের দু’মুখি অবস্থানে অনেকটা সিদ্ধান্তহীনতায় সরকার। তাই এই মুহুর্তে কোন সিদ্ধান্তে যেতে যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী। তবে মাঠ পর্যায়ে যাচাই বাচাই করার জন্য শিগগিরই কমিটি করে দেয়ার কথা বলছেন তিনি।
মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকাল চারটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত কক্সবাজার হিলটপ সার্কিট হাউজে মিল মালিক এবং লবণ চাষীদের সাথে দু’দফায় বৈঠক করেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। ওই বৈঠকে লবণ আমদানি নিয়ে মিল মালিক এবং চাষীদের মুখোমুখি অবস্থানের কথা গুলো উঠে আসে। বিসিক সূত্র জানায়, ২০১৮ সালে দেশে লবণের চাহিদা ধরা হয় ১৬ লাখ ১১ হাজার টন। কিন্তু উৎপাদন হয়েছে সাড়ে ১৪ লাখ টন। তবে ২০১৭ সালে চাহিদা পূরণ করে উদ্বৃত্ত ছিল প্রায় আড়াই লাখ টন। সেই হিসেবে এখনো এক লাখ টন লবণ উদ্বৃত্ত থাকার কথা।

চাষীদের অভিযোগ, একটি চক্র ২০১৭ সালের উদ্বৃত্ত থাকা লবণকে বিবেচনায় না এনে ২০১৮ সালের চাহিদার তুলনায় উৎপাদন ঘাটতিকে ইস্যু করে দেশে লবণ আমদানির পায়তারা করছে। চাষীদের গলা টিপে হত্যা করার জন্য সরকারকে বেকায়দায় ফেলার মিল মালিকেরা এই চক্রান্ত শুরু করেছে।

বাংলাদেশ লবণ চাষী কল্যাণ সমিতির তথ্যমতে, বর্তমানে লবণ মাঠে চাষীদের কাছে মাটির নিচে ৩ থেকে ৪ লাখ টন লবণ মজুদ আছে। এছাড়া মিল মালিকদের কাছেও দেড় থেকে দুই লাখ টন লবণ মজুদ রয়েছে। লবণের উৎপাদন মৌসুম শুরু হতে বাকি আর মাত্র দুই মাস। বর্তমানে যে পরিমাণ লবণ আছে, সেগুলো দিয়ে আগামী মৌসুম শুরু হওয়া পর্যন্ত নির্বিঘ্নে চলবে। কোন ধরনের ঘাটতির আশঙ্কা নেই। কিন্তু মিল মালিকেরা লবণের ঘাটতি দেখিয়ে আমদানির পায়তারা শুরু করেছে। এটা হলে চাষীরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

বাংলাদেশ চাষী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক কায়সার ইদ্রিস বলেন, মাঠ পর্যায়ের চাষীরা নিয়মিত মিলে লবণ সাপ্লাই করছে। লবণের পরিস্থিতিও স্বাভাবিক আছে। কিন্তু হঠাৎ লবণ আমদানির অশুভ তৎপরতার লক্ষণ ভাল নয়।
সংগঠনটির সভাপতি মোস্তফা কামাল চৌধুরী বলেন, বর্তমানে দেশে লবণ সংকটের কোন পরিস্থিতি নেই। যদি লবণ সংকট হতো, তাহলে লবণের দাম বেড়ে যেত। কিন্তু এখন পর্যন্ত লবণের দাম নিম্নমুখি। এই মুহুর্তে লবণ আমদানির সিদ্ধান্ত নিলে মাঠ পর্যায়ে চাষীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হবে। যেটা আগামী নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে। তিনি আরও বলেন, কক্সবাজারের বিশাল একটি জনগোষ্ঠি লবণ চাষের সাথে জড়িত। নির্বাচনের আগমুহুর্তে এসে লবণ আমদানি করলে, এসব চাষীদের মধ্যে ক্ষমতাসীন দল সম্পর্কে নেগেটিভ ধারণা তৈরি হবে। যেটার ফল হবে ভয়াবহ।

তবে মিল মালিকরা বলছেন ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, নির্বাচনের আগ মুহুর্তে দেশে লবণ সংকট তৈরি হলে সরকার বেকায়দায় পড়বে। তাই সরকারের উচিত হবে কোন ধরনের ঝুঁকি না নেওয়া।
কক্সবাজার লবণ মিল মালিক সমিতির সভাপতি রইস উদ্দিন বলেন, বর্তমানে মাঠে লবণ নেই। মিল মালিকদের কাছেও তেমন নেই। যা আছে সেগুলো দিয়ে বেশি দিন চলা যাবে না। শিগগিরই সংকট তৈরি হবে। তাই মাঠ পর্যায়ে দ্রুত তদারকি করে সংকট মোকাবেলায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে সরকারকে।

বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সদস্য ফরিদুল ইসলাম খান বলেন, ‘শিল্প মন্ত্রণালয় এবং বিসিকের পক্ষ থেকে একটি কমিটি গঠন করা হোক। যে কমিটি মাঠ পর্যায়ে লবণের ঘাটতি আছে কি নেই তা তদারকি করে পাঁচ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে। ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হউক।’ পটিয়া পৌরসভার মেয়র ও পটিয়া লবণ মিল মালিক সমিতির সভাপতি হারুন রশিদ বলেন, আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারত পাঁচ বছরের লবণ উদ্বৃত্ত রাখে। কিন্তু বাংলাদেশে ১৬ কোটি মানুষ। এত বিপুল মানুষের জন্য এক মাসের লবণও উদ্বৃত্ত নেই। তাই কোন ধরনের ঝুঁকি নেওয়া উচিত হবে না। ঝুঁকি মোকাবেলায় দ্রুত লবণ আমদানি প্রয়োজন।

বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সহ সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এক কথায় দেশে বর্তমানে লবণের সংকট আছে। সংকট মোকাবেলায় দ্রুত ২ লাখ টন লবণ আমদানি প্রয়োজন।
সদরের লবণ শিল্প নগরী ইসলামপুর এলাকার মিল মালিক আব্দুল কাদের বলেন, দ্রুত লবণ আমদানি করে চাহিদা পূরণ না করলে ইসলামপুর এলাকার বেশির ভাগ মিল বন্ধ হয়ে যাবে। তাই সরকার যেই সিদ্ধান্ত নেয়, তা যেন দ্রুত নেয়া হয়।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH