রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:১২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

সেন্টমার্টিনে ধর্ষক ঘুরে বেড়াচ্ছে, ধর্ষিতা লুকাচ্ছে মুখ!

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩০ জুলাই, ২০১৮
  • ৩৪১ Time View

বিশেষ প্রতিবেদক:-

দেশের একমাত্র প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিনের এই ঘটনা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বত্র আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রূপ নিয়েছে। ধর্ষককে গ্রেফতারের দাবীতে ফেইজবুকে চলছে নানান প্রতিবাদ। কিন্তু ওইসব প্রতিবাদ কর্ণপাত করছেনা ধর্ষক ও পরিবার। ধর্ষক ও তার পরিবার প্রভাবশালী ও বর্তমান চেয়ারম্যান এর নিকট আত্মীয় হওয়ায় কোনকিছু পরওয়া করছেনা বলে জানান ধর্ষিতার ভাই নুরু। এদিকে অপবাদ ও সামাজিক রীতির কারণে লোক-সম্মুখে মুখ দেখাতে পারছেনা ধর্ষিতা ও তার পরিবার। ধর্ষিতা ওই তরুণীর মা বলেন, ‘আমরা গরীব মানুষ! তাদের সাথে কিভাবে পেরে উঠব! টাকা দিয়ে তারা সবকিছু জয় করতে চাচ্ছে। আমাদেরকেও টাকা নিয়ে মীমাংসা হওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে। টাকা দিয়ে তারা আমার মেয়ের ইজ্জতও কিনতে চাচ্ছে। মেয়ের সাথে ছেলেটার খুব গভীর সম্পর্ক ছিল। আমরা কিছু বুঝে উঠার আগেই তারা দু’জন দু’জনের প্রেমে পড়ে গিয়েছিল। ছেলেটিও আমার মেয়েকে বিয়ের করবে বলে বিভিন্ন শপথ দেওয়ায় আমরাও বেশি চাপ দেইনি। এখন মেয়েটির কি হবে কিছুই বুঝতেছিনা। ৬ মাস ধরে শুধু চোখের জলে ভাসছে মেয়েটির দিনরাত। অপবাদে বাড়ি থেকে কোথাও বের হয়না। কারও সাথে কথাও বলেনা। এমনকি কাউকে মুখ পর্যন্ত দেখাইনা। তরুণীর বাবা আব্দুর রহমান বলেন, আমি কিছুই চাইনা। শুধু মেয়েটির ইজ্জত ফেরত চাই। যে নরপশু আমার অবুঝ মেয়ের ইজ্জত হরণ করে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

উল্লেখ্য যে, সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের মাঝের পাড়ায় সেতারা বেগম নামের এক তরুণীকে (২৩) ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসের ১১ তারিখ ওই তরুণীর ভাই বাদী হয়ে কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন। যার সিপি মামলা নং-২২৮।
মামলায় মোঃ তৈয়ব (২৭) নামের এক যুবককে আসামি করা হয়েছে। অভিযুক্ত যুবক হলেন একই গ্রামের ৫ নং ওয়ার্ডের আব্দুর রহিমের ছেলে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি পুলিশব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)কে তদন্তের দায়ভার দেন। দীর্ঘসময় তদন্তের পর পিবিআই কর্মকর্তা এস.আই (নিঃ) শাহেদুল্লাহ ১৫ জুলাই আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। পিবিআই কর্মকর্তার দেওয়া প্রতিবেদনে তরুণীকে ধর্ষণের কোন আলামত পাওয়া যায়নি। কিন্তু পিবিআই’য়ের দেওয়া প্রতিবেদন মানতে নারাজ বাদীপক্ষ। তারা এই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দেওয়ার কথা বলেন।

ধর্ষিতার ভাই মামলার বাদী নুরুল হক অভিযোগ করে বলেন, ‘এই প্রতিবেদন বানোয়াট ও কালো টাকার প্রতিবেদন। বাদী নূরুল হক বলেন, ‘প্রতিবেদনে টাকার কাছে আমার বোনের ইজ্জতভ্রষ্ট করা হয়েছে। আমরা আগে থেকে যা সন্দিহান করে আসছি, তাই হল’। বাদী নূরুল হক আরও বলেন, ‘আমরা এই প্রতিবেদন মানিনা। দু’বছর প্রেমের অভিনয় করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমার বোনকে ইচ্ছামত ব্যবহার করার পরও নাকি মেডিকেল রিপোর্টে ধর্ষণের কোন আলামত পাওয়া যায়নি। এর চেয়ে দুঃখের বিষয় আর কি হতে পারে। আমি এই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আদালতে নারাজি দিব’। বাদীপক্ষের দাবী ইজ্জত হরণ করেও ধর্ষক তৈয়ব মুক্তভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে, আর আমার বোন সমাজে মুখ দেখাতে পারছেনা।

সেন্টমার্টিন মানবাধিকার কমিশন এই বিষয়ে প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমরা সবসময় নির্যাতিতদের পক্ষে থাকি, এখনও আছি। ধর্ষক যতবড় প্রভাবশালী হউক আইনের হাত থেকে রেহাই পাবেনা বলে জানান’। সেন্টমার্টিন দ্বীপের সাবেক এক চেয়ারম্যান জানান, ‘লোকমুখে যতটুকু শুনতে পাচ্ছি ঘটনাটি সত্য বলে মনে হচ্ছে৷ এত বড় অপরাধ করে ছাড় পাওয়ার কোন সুযোগ নেই বলে জানান তিনি’। ভিকটিম সেতারা বেগম বলেন, বিয়ের লোভ দেখিয়ে তৈয়ব আমার কাছে বিশ্বাস স্থাপন করে আমার ইজ্জতভ্রষ্ট করে এখন সাধু সন্ন্যাসী হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর এদিকে আমি তথা পুরা পরিবার সমাজে মুখ দেখাতে পারছিনা। এর চাইতে মরে যাওয়া অনেক ভাল হবে। তৈয়ব যদি আমাকে বিয়ে না করে তাহলে এই জীবন রাখবনা বলে কেঁদে ওঠেন ভিকটিম সেতারা বেগম।

বিবাদী তৈয়ব ও তার পরিবারের সাথে এই বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তারা বাদীপক্ষের অভিযোগ অস্বীকার করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী ইয়াছমিন শওকত জাহান রুজি বলেন, ‘একজন নারী তখনই আদালতে আসেন যখন সে পুরাপুরি নিরুপায় হয়ে যায়। একজন নারীর ইজ্জতভ্রষ্ট না হলে সে কখনো ইজ্জতভ্রষ্টের কথা বলতে পারেনা। আমরা আদালতে পিবিআই’র দেওয়া প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দিব’।

এই বিষয়ে পিবিআই’য়ের তদন্তকারী এস.আই শাহেদুল্লাহ সাথে কথা হলে তিনি বলেন, তদন্তে সাক্ষী ও মেডিকেল রিপোর্ট বাদীর পক্ষে আসেনি এখানে আমার কিছু করার নেই। তাছাড়া বাদীপক্ষ যদি মনে করে প্রতিবেদন তাদের মনের মত হয়নি, তাহলে তারা বিকল্প ব্যবস্থা নিতে পারেন বলে জানান তিনি।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH