অন্য কাজে ব্যবহার হচ্ছে প্রকল্পের স্কেলেভেটর-ডাম্পার!
দূভোর্গের শেষ নেই ৪০ হাজার অধিবাসির: ২০২০ সালের জুনে শেষ হচ্ছে না শাহপীরদ্বীপ রক্ষা বাধঁ

প্রধান প্রতিবেদক,আলোকিত টেকনাফ ডটকম।

নির্দিষ্ট সময়েই শেষ হবে বাংলাদেশের মূল ভূখন্ডের শেষ ঠিকানা শাহপরীরদ্বীপ রক্ষা বাধঁ এমনটি প্রত্যাশা ছিলো সংশ্লিষ্টদের। কিন্তু তা হয়ে উঠেনি।

২০১২ সালের ১২ জুলাই অতিবৃষ্টির কারনে পুরাতন বেড়ি বাধঁ লন্ডভন্ড করে দিয়ে টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ মূল সড়কটি ভেঙ্গে যায়। এরপর হতে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে দু অঞ্চলের মানুষের মধ্যে। দাবী উঠে দ্রত বেড়ি বাধঁ নির্মানের।

বহু আন্দোলন সংগ্রাম ও তদ্বিরের পর অবশেষে একনেকে পাশ হয় ১০৬ কোটি টাকার প্রকল্প। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এ প্রকল্পটি নৌ বাহিনীর ডকইয়ার্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড কনস্ট্রাকশন লিমিটেড এর সহযোগি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠিান এসএস ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড কনস্ট্রাকশন ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে কাজ শুরু করে। ২০২০ সালের জুন মাসে কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ২০২০ সালের এ পযর্ন্ত কাজ শেষ করা হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। ইতিমধ্যে বর্ষা মৌসুম হাতছানি দিচ্ছে। তবে কাজ শেষ করার তাগিদই নেই সংশ্লিষ্ঠ কারোই।

খোজঁ নিয়ে জানা যায়, ১০৬ কোটি টাকায় শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমপাড়া, মাঝেরপাড়া, ঘোনারপাড়া হয়ে দক্ষিণ পাড়া পর্যন্ত ২ দশমিক ৬৪৫ কিলোমিটার লম্বা স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মিত হবে। উচ্চতা হবে সাড়ে ৬ মিটার, প্রস্থ সাড়ে ৪ মিটার। বাঁধ রক্ষার জন্য এক পাশে (সমুদ্রের দিকের অংশে) বসানো হবে পাথরের সিসি ব্লক। এই কাজ শেষ হওয়ার কথা ২০২০ সালের জুন মাসে। কিন্তু ঠিকাদারের নিয়োজিত কর্মকর্তা ও লোকজন অন্য মানুষের ব্যক্তিগত মাটি ভরাট কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় আসল কাজ শেষ করতে সময়ক্ষেপন হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বেড়িবাধঁ নির্মান কাজের উপর আবার নির্ভও করছে ভেঙে যাওয়া পাঁচ কিলোমিটার সড়কেরও সংস্কারকাজ। এটি ঠিক মত না হওয়ায় শাহপরী দ্বীপবাসীর কষ্ট থেকেই যাবে। এখনো সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ । ফলে চরম দূভোর্গে রয়েছে দ্বীপের ৪০ হাজার অধিবাসী।

যদিও বা সড়ক ও জনপথ (সওজ) কক্সবাজার বিভাগ টেকনাফ-শাহপরীরদ্বীপ সড়ক ও ব্রীজ নির্মাণ কাজের টেন্ডার দিয়েছেন। সেই অনুযায়ী ঠিকাদার নিয়োগ হয়েছে। ব্রীজ নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিকতাও করেছেন। কিন্তু আসল কাজ এখনো শুরুই হয়নি। অর্থাৎ আসন্ন বর্ষা মৌসুমেও যাতায়াত সমস্যার সমাধান হচেছ না শাহপরীরদ্বীপ বাসির।

এ প্রসংগে সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন বলেন, শাপপরীরদ্বীপ রক্ষাবাধঁ প্রকল্পটি নির্দিষ্ঠ সময়ের আগে শেষ হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু খামখেয়ালিপনার কারনে যথাসময়ে শেষ না হওয়ায় দূর্ভোগ শেষ হচ্ছে না এলাকাবাসির। তিনি দ্রত বেড়িবাধ ও সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ঠদের প্রতি লিখিত তাগিদপত্র পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছেন বলেও জানান।

সরেজমিন অনুসন্ধানে গিয়ে বেরিয়ে আসে কিছু তথ্য , শাহপরীরদ্বীপ রক্ষাবাধঁ প্রকল্পের ঠিকাদার নিয়োজিত লোকজন এ প্রকল্পটি দীর্ঘায়িত করে এখানে ব্যক্তিগত লাভের দিকে ঝুকেঁ পড়েছেন। বিভিন্ন জনের সাথে ব্যক্তিগত চুক্তি ভিত্তিক কাজ কন্ট্রাক্ট নিচ্ছেন। ফলে আসল কাজ পিছিয়ে যাচ্ছে।

এমন একটি কাজে শাহপরীরদ্বীপ বাজার পাড়ার আনিছুর রহমান ইয়াহিয়ার সাথে চুক্তি হয় শাহপীরদ্বীপ রক্ষাবাধ প্রকল্পের ঠিকাদারের প্রকল্প ব্যবস্থাপক উত্তম কুমার ননী বাবুর । তিনি ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে স্কেলেভেটর, শ্রমিক ও ডাম্ফার দিয়ে উত্ত জমি ভরাট করে দেবেনে। কাজও শুরু করে। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। যে কোন মুর্হুতে সংর্ঘষ বেধে যাওয়ার উপক্রম হয়।

বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নের নির্মিত বেড়ী বাধ প্রকল্প কাজের স্কেলেভেটর , ডাম্পার ইত্যাদি এখানে ব্যবহার করছেন তিনি। বিরোধীয় জমিতে শাহপরীরদ্বীপ রক্ষা বাধের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে মাটি ভরাট নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে চলছে উত্তেজনা।

স্থানীয়দের মতে বিএস রের্কড মূলে ক্রয় সুত্রে একপক্ষে অবস্থান করছে শাহপরীরদ্বীপ বাজার পাড়ার আনিছুর রহমান ইয়াহিয়া। আরএস রের্কড মূলে আমমোক্তার মূলে অপর পক্ষে রয়েছে শাহপরীরদ্বীপ হাজী পাড়ার মুহিব উল্লাহ। জমি ক্রয়-বিক্রয়সহ বিভিন্ন ব্যবসা বানিজ্য পরিচালনা করে দু’জনই চট্টগ্রামে স্থায়ীভাবে বসবাস করে থাকেন। আরএস ও বিএস রেকর্ড মূলে দু পক্ষের মালিকানা দাবী নিয়েই মূলত এমন পরিস্থিতি।

উপজেলার শাহপরীরদ্বীপ এলাকার ঘটনা এটি। কক্সবাজার বিজ্ঞ জজ ২য় আদালতে এ সংক্রান্ত মামলা চলমান রয়েছে। এরপরও এক পক্ষ জমিতে মাটি ভরাট কাজ শুরু করে সম্প্রতি। এ নিয়ে অপর পক্ষ বাধা দিলে কিছু দিন কাজ বন্ধ রাখে। ফের কাজ শুরু করলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। উত্তেজনায় ঘি ঢালছেন শাহপরীরদ্বীপ রক্ষাবাধ প্রকল্পের ঠিকাদারের লোকজন। তারা মাটি ভরাট কাজ শুরু করে উক্ত বিরোধপূর্ণ জমিতে।

এ নিয়ে শাহপরীরদ্বীপের হাজি পাড়ার অধিবাসী মুহিব উল্লাহ অভিযোগ করে বলেন, বেড়িবাধঁ প্রকল্পের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এসএস এসএস ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড কনস্ট্রাকশন এর প্রকল্প পরিচালক উত্তম কুমার শাখারী ননি বাবু শাহপরীরদ্বীপের বিভিন্ন বিরোধপূর্ণ জমি ভরাট কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকায় আসল কাজ পড়ে রয়েছে। এরা আমার ক্রয় করা বিরোধপূর্ণ জমিতেও অবৈধ ভাবে অন্য জনের সাথে চুক্তি করে অনেকটা কৌশলে জোর খাটিয়ে মাটি ভরাট কাজ চালাচ্ছে। জোর বা কৌশল খাটানোর অভিযোগ অস্বীকার করে আনিছুর রহমান ইয়াহিয়া বলেন, মামলায় আমাদের পক্ষে রায় এসেছে তাই কাজ করছি। তবে লক ডাউন অবস্থার কারনে রায়ের কপি দেখানো সম্ভব হচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

শাহপরীরদ্বীপ রক্ষাবাধের কাজ ফেলে কেনো ব্যাক্তমালিকানাধীন জমি ভরাট কাজ করছেন এমন প্রশ্নে উত্তম কুমার ননী বাবু বলেন, ‘বড় কাজের ফাকেঁ বসে থাকা যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে ছোট ছোট কিছু কাজ আমি কন্ট্রাক নিয়েছি। সে অনুযায়ি কাজ করছি। এখানে জমির মালিক কে বা মামলা চলছে কি না তা দেখার কি আছে।’
এ বিষয়ে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকোশলী মিজানুর রহমান বলেন, ২০২০ সালের জুন মাসে এ প্রকল্প শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো ১৫/২০ শতাংশ কাজ রয়ে গেছে। ঠিকাদার সময় বাড়ানোর আবেদন করেছে। তবে প্রতিষ্টানটি অন্য ব্যক্তিগত মাটি ভরাট কাজে নিয়োজিত এমন খবর অবহিত নন জানিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানান তিনি।