সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

ধর্মীয় লেবাসে হাফেজ মঈনের রমরমা মানবপাচার ও ইয়াবা কারবার!

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৯
  • ১৬৯ বার পঠিত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, আলোকিত টেকনাফঃ-
ধর্মীয় লেবাসে ভালো মানুষের মুখোশে একেরপর এক মানব পাচার ও ইয়াবা কারবার চালিয়েও বহাল তবিয়তে রয়েছে হাফেজ মঈন উদ্দিন উরফে মইন্যা। তিনি হোয়াইক্যং ইউনিয়নের উনচিপ্রাং এলাকার সৈয়দ আলমের ছেলে। স্থানীয় ও মালয়েশিয়া প্রবাসীদের মতে, গেলো ২০১২ সাল হতে হাফেজ নামধারী মইন্যা টানা ৪ বছর সাগর পথে মালয়েশিয়া মানবপাচারে জড়িত ছিলেন বলে এমন অভিযোগ রয়েছে। উক্ত সূত্র মতে অন্তত দশ হাজারোধিক মানুষ তার হাত ধরে অবৈধ ভাবে সাগর পথে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া পাচার হয়েছে। অপরদিকে হাফেজ মঈন মালয়েশিয়া অবস্থান কালীন মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত প্রবাসী বাঙ্গালীদের একটি সংগঠনের এক কোটি টাকা মেরেদিয়ে দেশে পালিয়ে আসার অভিযোগ তুলেছেন সংগঠনের ভূক্তভোগী সদস্যরা। সে অর্থে দেশে এসে বিলাসবহুল বাড়ি ও দু’তলা বিশিষ্ট মার্কেটসহ বিপুল অর্থ বিত্তের মালিক বনেযায় রাতারাতি। তাছাড়া উনচিপ্রাং এলাকায় প্রভাবশালী ইউপি সদস্যের ভাতিজিকে বিয়ে করে নিজের প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে।
এদিকে ২০১৫ সালের দিকে সরকারী সংশ্লিষ্ট বাহিনী কর্তৃক প্রস্তুতকৃত মানবপাচার তালিকায় তার নাম উঠে আসলে কৌশলে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তালিকা থেকে নিজেকে আড়াল করেনেন বলে এলাকায় জনশ্রুতি রয়েছে।
অপরদিকে, তার বিরুদ্ধে ইয়াবা কারবারের বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। টেকনাফ, হ্নীলা, হোয়াইক্যং এলাকার বেশ ক’জনের একটি সক্রিয় সিন্ডিকেট মিলে তারা মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করতো। অনুসন্ধানে, ফেইসবুক মেসেঞ্জারে তার সিন্ডিকেট সদস্যদের সাথে ইয়াবা ব্যবসা সংক্রান্ত আলাপের সূত্রধরে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত তা অনেকটা নিশ্চিত হওয়া গেছে।
তারসাথে মুটোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে কল ফরোয়ার্ড করে রাখায় কোন ভাবেই যোগাযোগ স্থাপন করা সম্ভব হয়নি। তাই তার বক্তব্য জানাযায়নি।
এই বিষয়ে টেকনাফ মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ দোহা জানান, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গুলো খতিয়ে দেখা হবে। সত্যতা প্রমান পেলেই আইনের আওতায় আনা হবে।
আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel