সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০১:০৯ পূর্বাহ্ন

“বিহাইন্ড দ্যা সিন”

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৮
  • ১৯৮ বার পঠিত

।। আহসান উল্লাহ তরুণ ।।

 তুমি যদি কোন কাজের পরিকল্পনা সঠিকভাবে করতে পারো, তবে কাজের অর্ধেকই সম্পন্ন হয়ে যায়। “FFSPCSL”  এর প্রথম এজিএম ও পুর্নমিলণী এর পরিকল্পনা করা হয় অনুষ্ঠানের প্রায় দেড় মাস পূর্বে। তরুণ, মারুফ, প্রিন্স, ফারুক, ফয়জুল, কায়সার প্রমুখ ছিল মূল কুশীলব। পরিকল্পনা শুরু হয় বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে। কমিটি গঠনের পাশাপাশি নির্ধারণ করে ফেললাম, কি কি করতে হবে। করতে হবে স্যুভেনির হিসেবে ম্যাগাজিন, টি-শার্ট, মগ,পেন হোল্ডার। আরো ঠিক করতে হবে থাকার হোটেল, ভ্রমণের জন্য লোকেশন । সবকিছু সঠিকভাবে করতে হলে বাজেট নির্ধারন করা প্রয়োজন। প্রিন্স ও ফারুক মিলে আসা যাওয়া, থাকা,ভ্রমণ সবকিছুর একটা প্রাথমিক বাজেট আমাকে প্রেরণ করে। পর্যালোচনা করে দেখলাম প্রদত্ত বাজেটে সংকুলান হবে না। আরো বাজেটের সংস্থান প্রয়োজন হবে। স্পনসর কালেকশনে নেমে পড়ি। কনফিডেন্ট ছিলাম স্পনসর পাবো। স্পনসর পাওয়া শুরু করার সাথে সাথে কাজে নেমে পড়ি। আসা যাওয়ার টিকিট ম্যানেজ করার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নেয় ফারুক। পুরো এক বগি ক্যাবিন বুকড্ করে নেয় যা অন্য কেউ পারতো বলে মনে হয় না। টিশার্ট এর ডিজাইন করাই। কালার ও লেখাও ঠিক করে ফেলি। কাপড়ের মান ভাল নেয়ার জন্য ঢাকা থেকে কাপড় বাছাই করি এবং ঢাকা থেকে প্রিন্ট করাই। মগ ও পেন হোল্ডার এর ডিজাইন ঠিক করি এবং স্টার পোরসেলিন থেকে প্রিন্ট করাই।

 

 

                                                                                                                                                                                                                                      অনুষ্ঠানের একটি পর্ব ছিল ইনডোর গেমস্ ও লটারি। এর যাবতীয় প্রস্তুতি নেয় প্রিন্স। পুরস্কার কিনে নেয় ও আর ফারুক। প্রথমে ভেবেছিলাম জৈন্তাপুর হিল রিসোর্টে থাকবো। তবে তপন সিলেট যোগদান করার দিন সিলেটে একটি ভাল হোটেলের সন্ধান পাই।তপন কথা বলে ঠিক করে দিল। নিশ্চয়ই সবার পছন্দ ও হয়েছে। কোথায় কোথায় যাওয়া যায় তা নিয়ে তপনের সাথে বেশ কয়েকবার আলোচনা করে ঠিক করলাম চা বাগান, জাফলং আর নাজিমঘর রিসোর্টে যাবো। অনুষ্ঠানের এক সপ্তাহ আগে চা বাগানের ম্যানেজার ও নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ ঢাকাতে কথা বলি।কারণ এতজনের বসার স্থান, বিকেলের নাস্তা করানো চাট্টিখানি কথা নয়। তারপর ও সম্পর্ক থাকার কারণে সবকিছু ম্যানেজ হয়ে গেল। এক সপ্তাহ আগে নিজে গাড়ী ড্রাইভ করে রিসোর্টে যাই, খাবারের ম্যানু ও বোটিং ঠিক করি। দুই দিনের প্রোগ্রাম এর মধ্যে আমার কাছে এই রিসোর্টের অংশ টুকুই সবচেয়ে উপভোগ্য মনে হয়েছে। তারপর হোটেলে রুম বুকিং, প্রতি বেলার খাবারের ম্যানু ঠিক করতে বেশ কয়েকবার হোটেলে যেতে হয়েছে, কারণ কারো বউ আসে, সালী আসে, ছোট বোন আসে, শ্বাশুড়ি আসে, আবার আসে না।

 

 

 

 

 

যাই হোক অনুষ্ঠানের দুই দিন সবকিছু ম্যানেজ করার দিকে খেয়াল ছিল বেশি। পরে যখন বাসায় এসে ছবি দেখছিলাম তখন অনুভব করলাম যে কত ভাল সময় কাটিয়েছি আমরা। সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ অন্তরের অন্তস্থল থেকে। পরবর্তী অনুষ্ঠানের অপেক্ষায়।

লেখকঃ আহসান উল্লাহ তরুণ  , সভাপতি- FFSPCSL

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel