বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০১:১৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
নববধূ সেজে ঢাকা থেকে ইয়াবা কিনতে এসে পুলিশের হাতে ধরা উখিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা গ্রেফতার কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার

টেকনাফে ইয়াবার টাকায় তৈরি বিলাস বহুল প্রাসাদ জব্দ করা হবে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৮ জুন, ২০১৮
  • ২৮১ Time View

ইয়াবা কারবারিদের সালাম দিবেন না * ইয়াবা কারবারিদের মনোনয়ন দিবেন না

মিজানুর রহমান মিজান, স্পেশাল করেসপনডেন্ট :

কক্সবাজার মাদক বিরোধী অভিযানের পর আত্মগোপনে রয়েছে টেকনাফে চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। ইয়াবার টাকায় তৈরি তাদের বিলাস বহুল প্রাসাদ খালি পড়ে আছে। ওইসব প্রাসাদের তালিকা করা হয়েছে। প্রাসাদগুলো অতি শীঘ্রই জব্দ করে সরকারি কর্মকান্ডে ব্যবহৃত হবে। গত ২৬ জুন মঙ্গলবার সকালে বিয়াম ফাউন্ডেশনের মিলনায়তনে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ মাদক পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এ কথা বলেন। জেলা প্রশাসক আরও বলেন, মাদকবিরোধী অভিযান গৌরবান্বিত। সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে গৌরবের এই অভিযানে অংশীদার হতে হবে। তিনি মাদকের বিরুদ্ধে সংগ্রামকারীদের আলাদাভাবে সম্মানিত করা হবে বলে জানান।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক বলেন, সীমান্তের ইয়াবা কারবারিদের অবৈধ আয়ের টাকায় নির্মিত এসব বাড়ীর তালিকা করার কাজ শুরু হয়েছে। সীমান্তে নির্মিত কমপক্ষে দুই শতাধিক ইয়াবা বাড়ী গত মাসের মাদক নির্মুল অভিযান শুরুর পর থেকে একদম খালি রয়েছে। মাদক বিরোধী অভিযানের পর আত্মগোপনে রয়েছেন টেকনাফের চিহ্নিত ইয়াবা কারবারিরা। ইয়াবার টাকায় তৈরি তাদের বিলাস বহুল ওইসব প্রাসাদের তালিকা করার কাজ চলছে। মাদক বিরোধী অভিযানের পর থেকেই এসব ইয়াবা বাড়ীর মালিকগন পলাতক রয়েছেন। এসব বাড়ী রিকুইজিশন করে রোহিঙ্গা শিবিরে কর্মরত সরকারি চাকুরিজীবীদের বসবাসের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক মাদক বিরোধী দিবসে কক্সবাজারে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এমন সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি জানান, ইয়াবা কারবারিদের অবৈধ আয়ে গড়া সহায় সম্পদের একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলা প্রশাসক বলেন, মাদক বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য জেলা প্রশাসনের তরফে বিশিষ্ট নাগরিকদের সন্মাননা জানানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

তিনি বলেন- কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা একজন অভিজ্ঞ আইনজীবী হয়েও তিনি কোন ইয়াবা কারবারির জামিনের প্রার্থনা করেন না বা তাদের পক্ষে আইনী লড়াইয়ে যান না বলে তিনি জানতে পেরেছেন। অথচ একজন ইয়াবা কারবারির পক্ষে লড়রে অনেক টাকা পাওয়া সহজ। একজন আইনজীবী হয়েও তিনি টাকা রোজগারের লোভ সামলাতে পেরেছেন। এজন্যই এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফার মত পেশাজীবীকে সন্মাননা জানানো হবে বলে তিনি ঘোষণা দেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেন বলেন, নাফ নদীর ওপারে যে সব ইয়াবা কারখানা রয়েছে সেইসব কারখানা থেকেই ইয়াবা পাচার হয়ে আসে। পুলিশ সহ অন্যান্য আইন প্রয়োগকারি সংস্থার সদস্যরা সীমান্ত এলাকায় জোর তৎপরতা চালাচ্ছে যাতে ইয়াবার চালান পাচার প্রতিরোধ করা যায়।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) আশরাফুল আফসার। বিয়াম ফাউন্ডেশন সম্মেলন কক্ষের সভায় বক্তৃতা দিতে গিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেন- ‘ইয়াবা কারবারিদের সামাজিকভাবে বয়কট করা প্রয়োজন। রাস্তায় তারা হাটলে যেন কেউ সালাম না দেয়। যে কোন অফিস-আদালতে বসতে চাইলে চেয়ারও তাদের দেয়া যাবে না।

ইয়াবা কারবারিরা জনপ্রতিনিধি হতে চাইলে তাদের ঐক্যবদ্ধভাবে দমন করতে হবে।’ সভায় আলোচনায় অংশ নিয়ে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক তোফায়েল আহমদ নিজেকে উখিয়া-টেকনাফ সংসদীয় আসনের বাসিন্দা পরিচয় দিয়ে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে সরকারি দলের ভাবমুর্তি অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে কোন ইয়াবা কারবারিকে মনোনয়ন না দিতে দলীয় নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

এতে অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজারের বিজিবি-৩৪ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মনুজুরুল হাসান খান, ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডাঃ মহিউদ্দিন আলমগীর, ট্যুরিস্ট পুলিশের এএসপি ফজলে রাব্বি ও কক্সবাজার মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সোমেন মন্ডল বক্তৃতা করেন।

সভায় মাদকের করাল গ্রাস থেকে ফিরে আসা ১০ জন যুবককে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন অতিথিরা। তারা নোঙ্গর নামের মাদক নিরাময় কেন্দ্রের চিকিৎসায় সুস্থতা ফিরে পেয়েছেন। পরে অতিথিরা রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। এরপর বের করা হয় বর্ণাঢ্য র‌্যালী।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH