শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

টেকনাফে স্বামীর প্রহারে গৃহবধু সুমির মৃত্যু : ঘাতক স্বামী গ্রেফতার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৮
  • ৩১১ Time View

আবদুল করিম, স্পেশাল করেসপনডেন্ট :

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের কান্জর পাড়ায় স্বামীর প্রহারে এক গৃহবধুর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। নিহত গৃহবধু বেবী আক্তার  সুমি (২০) কাঞ্জর পাড়ার মোঃ সোহেল (২৬) এর স্ত্রী। সুমির পিতার নাম মোঃ আইয়ুব আলী ও মাতার নাম মুনিরা বেগম। ঘটনার পর পরই ঘাতক স্বামী সোহেল পালিয়ে যায়। সোহেল স্থানীয় আবুল কালামের ছেলে।

সংবাদ পেয়ে টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রনজিত কুমার বড়ুয়া ঘটনাস্থলে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম আতিক, পরিদর্শক (অপস্) শরীফ ও এস আই দীপাঙ্কর সহ  পুলিশ দলকে পাঠান। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।

অবশেষে ৩০ আগষ্ট ভোর সাড়ে ৪ টায় গোপন সূত্রের সংবাদের ভিত্তিতে ওসির নেতৃত্বে এস আই দীপাঙ্কর ও স্থানীয় ইউ পি সদস্য আব্দুল গাফ্ফার সহ পুলিশ দল হোয়াইক্যং করাচি পাড়ায় অভিযান চালিয়ে সোহেলকে গ্রেফতার করা হয়।

সুমির অভিভাবক, এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শি জানায়,গত ৩ বছর পূর্বে কান্জর পাড়ার মোঃ আইয়ুব আলীর কন্যা সুমি আক্তার বেবীর সাথে একই এলাকার আবুল কালামের ছেলে মোঃ সোহেল এর সাথে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে সম্পন্ন হয়। গত বছর এক ধরে স্বামী সোহেল ইয়াবা আসক্ত হয়ে পড়ে। সময়ে অসময়ে নানা অজুহাত তুলে সুমির উপর নির্যাতন চালাত। গত ৭ মাস আগে সুমির এক ছেলে সন্তানের মা হয়। তার নাম রাখা হয় মোঃ সাইফুল ইসলাম।

গত ২৭ আগষ্ট দিবাগত রাত ১টায় নিহত সুমির স্বামী মোঃ সোহেল  বাড়ির দরজা খুলতে বলে। তখন সদ্য প্রসূতি সুমি তার স্তন্যপিপাসু শিশু সন্তানটিকে দুধ খাওয়াচ্ছিলেন। স্বামীকে দরজা খুলে দিয়ে কান্নারত শিশুটির কান্না থামাতে পূনরায় শিশুর পাশে যায়। পাষান স্বামী মোঃ সোহেল এক পর্যায়ে “খাবার আনতে এতো দেরী কেন” ? বলে স্বামী  স্বজোরে সুমির থল পেটে কয়েক দফা লাথি অতঃপর কিল ঘুষি মারে। এতে সুমি অজ্ঞান হয়ে পড়লে স্থানিয়রা ডাক্তারের কাছে প্রাইমারী চিকিৎসা করান।

একদিন পর সুমির অবস্থার অবনতি ঘটলে ২৯ আগষ্ট দুপুরে হ্নীলা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেওয়ার পথে সুমি মারা যায়।

সুমির সাথে থাকা ফুফু আনারকলি জানান,লাশ হ্নীলা থেকে বাড়িতে আনার পথে স্বামী সোহেল নয়াবাজার থেকে পালিয়ে যায়। বর্তমানে সুমির ঘরে রেখে যাওয়া ৭ মাসের শিশুসন্তান নিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছে সকলে। চলছে শোকের মাতম।

ঘটনার ব্যাপারে স্থানিয় জনপ্রতিনিধি আব্দুল গফফার মেম্বার জানান, স্বামী ২দিন আগে মারধর করেছে শুনেছি। দ্রুত চিকিৎসার জন্য ও স্বামী কে চাপ দিয়েছি। হতেপারে স্বামীর প্রহারেই তার মৃতু হয়েছে।
হোয়াইক্যং মডেল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাওঃ নুর আহমদ আনোয়ারীর সাথে এব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান,আমি অসুস্থ এখন হাসপাতালে। এলাকা থেকে জানতে পেরেছি, স্বামীর লাথির কারণে মহিলাটির মৃতু হয়েছে।

টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়ার সাথে যোগোযোগ করা হলে তিনি জানান, ৩০ আগষ্ট ভোর সাড়ে ৪ টায় গোপন সূত্রের সংবাদের ভিত্তিতে ওসির নেতৃত্বে এস আই দীপাঙ্কর ও স্থানীয় ইউ পি সদস্য আব্দুল গাফ্ফার সহ পুলিশ দল হোয়াইক্যং করাচি পাড়ায় অভিযান চালিয়ে সোহেলকে গ্রেফতার করা হয়।

নিহত সুমির পিতা আইয়ুব এর দায়েরকৃত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সুমির স্বামী সোহেল, শ্বশুড় আবুল কালামের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়ার আরো জানান, ধৃত আসামী সোহেলকে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH