|| ইউছুফ আরমান ||

সারা বিশ্বের মানুষের বিনীত প্রত্যাশা- নিরাপদ বিশ্ব, অপার ভালবাসা ও পরম শান্তি, এরূপ জীবনের জন্য মানব সমাজ নিরলস প্রচেষ্টায় নিয়োজিত। তবু সমাজের মানুষ পরিপূর্ণ নিরাপত্তা ও শান্তি পাচ্ছে না। সুষ্ঠ পরিবেশ ও সচেতনতার অভাবের কারণে মানুষ আজ হিংসা, বিদ্বেষ, কাম, ক্রোধ, লোভ, লালসা, ক্ষমতা ও স্বার্থপরতায় লিপ্ত। এর ফলে সমাজে হানাহানি ঝগড়া-বিবাদ, অন্যায়-অত্যাচার, নির্যাতন-শোষণ, ধর্ষণ-অপহরণ বাড়ছে। অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক জীবনে আমাদের নারী-পুরুষেরা প্রায়ই নানা বৈষম্য ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষাপটে এবং বিভিন্ন পত্রপত্রিকা বা মিডিয়াতে চোখ রাখলে বুঝা যায় যে, নারী-পুরুষেরা তাদের পরিবারের ভেতরে আপনজনদের দ্বারা, সমাজের বখাটে যুবক-যুবতী দ্বারা এবং বিভিন্নভাবে নির্যাতের শিকার হচ্ছে। আমরা প্রায় নারী নির্যাতনের ঘটনা পত্রপত্রিকায় পড়ি বা মিডিয়ায় দেখি কিন্তু পুরুষ নির্যাতনের ঘটনা কখনো ফুটিয়ে উঠে নি। আমার লেখায় পুরুষ নির্যাতনের গল্প তুলে ধরার প্রায়েস মাত্র। আসুন জেনে নিই কীভাবে নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হন পুরুষরা।

নারী কর্তৃক পুরুষ নির্যাতনঃ- নারী কর্তৃক পুরুষ নির্যাতনের অভিযোগের কথা শুনলেও হাসেন অনেকেই। কিন্তু আসলে এটি হাসির ব্যাপার নয়। এটি বাস্তব এবং নিত্যদিনের ঘটনা। নারী নির্যাতন থেকে মুক্তি পেতে আইনের বাস্তবায়নের জন্য সেমিনার, আলোচনাসভা ও মানববন্ধন পর্যন্ত হচ্ছে। কিন্তু সামাজিকভাবে খুব একটা আমলে না নেয়ায় এর প্রতিকার মিলছে না। সমাজে অনেক পুরুষই বউয়ের যন্ত্রণায় নীরবে কাঁদেন। লোকচক্ষুর আড়ালে গিয়ে চোখ মোছেন। কিন্তু দেখার কেউ নেই।

ধর্ষণ ও যৌন কামনা চরিতার্থঃ- ধর্ষণ একটি অসভ্য যৌন আচরণ। সহজভাবে বললে, অসভ্য যৌন আক্রমণ। ধর্ষণের সংজ্ঞাটিই ভীষণ পুরুষতান্ত্রিক। এই সংজ্ঞা যতদিন থাকবে, ততদিন কেবল নারীই ধর্ষিত হবে, অসম্মানিত হবে, অপমানিত হবে ও নির্যাতিত হবে। এই সংজ্ঞাই নারীকে সম্ভ্রমহানির গুহা থেকে বেরুতে দেয় না। এই সংজ্ঞায় যৌনতা ও যৌন আক্রমণের সব ক্ষমতা চলে যায় পুরুষের কাছে। পুরুষ তখন ক্ষমতা ভেবে, আধিপত্য ভেবে আরও অধিক মাত্রা ও পরিমাণে ধর্ষণ করতে থাকে। অথচ বোকা নারীরা বোঝেন না, এই সংজ্ঞাটি মেনে নেওয়াই তাদের জন্য চরম অবমাননাকর।

ধর্ষণের রহস্যঃ- একজন পুরুষ ও একজন নারী। একে অপরের প্রতি থাকে আকর্ষণ বিকর্ষণ। সেহেতু প্রাপ্ত বয়সের দিক বিবেচনা একান্ত অনস্বীকার্য। তারপর ও প্রেমের বাঁধনে একই সুঁতাই গেথে থাকে জীবনের একটি সময়। প্রেমের সূত্রপাত ধরে সম্পর্কের ভেজালে আটকে যায় দু’টি জীবন। তারপর………
প্রেমিক প্রেমিকা সুখের সন্ধানে
জীবনের ভালো-মন্দ ভুলে
স্বতঃফুর্তভাবে সতীত্ব বিসর্জন
কারো কারো জীবনে ঘটে অঘটন।
কাজেই ধর্ষণের উদঘাটন। অপকর্মের রহস্য পর্দার আড়ালে দু’জনের ইচ্ছায়। কেবল সম্পর্কের বিচ্ছেদ হলে কিংবা পরিবারের কারো চাপের মুখে পড়ে নারী ধর্ষণের মত নিকৃষ্ট শব্দ ব্যবহার করে পুরুষ কে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানী ছাড়া আর কিছু নয়। সমাজে পুরুষেরা বৈষম্য ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে।

পুরুষও ধর্ষিতঃ- দিন বদলেছে। নতুন দিনে নতুন ভাবে ভাবতে হবে। সমতার সমাজ ও পৃথিবী গড়ে তুলতে হবে । মানবতাবাদে, উদারতায় বিশ্বাস করতে হবে । সমতায় বিশ্বাস করি বা করতে হবে। বিশ্বাস করি অথবা করতে হবে সকল মানুষই সমান। ফলে নারীর জন্য যা প্রযোজ্য, পুরুষের জন্য তা প্রযোজ্য হবে না কেন? যৌন আক্রমণ ও নির্যাতনের কেবল নারীই শিকার-না পুরুষও এর শিকার? পুরুষেরাও যৌন আক্রমনের শিকার হন। যৌন হেনস্থা ও ধর্ষিত হন। ধর্ষণের মৌলিক জায়গা তো ‘অনিচ্ছা সঙ্গম’। কোনও পুরুষও যদি কোনও নারী কর্তৃক সঙ্গমে বাধ্য হন, নারী যদি পুরুষের যৌন অনাগ্রহ, অনিচ্ছাকে উপেক্ষা করেন এবং অগ্রাহ্য করে তাকে রতিক্রিয়ায় বাধ্য করেন- তবে সেটিও ধর্ষণ। ধর্ষিত কেবল নারীই হন না। অনিচ্ছা, অনাগ্রহ, বাধ্য সঙ্গমে পুরুষও ধর্ষিত।

যৌতুকের মামলাঃ- বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় সংসারে কোনো সমস্যা হলেও স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের মামলা দেয়া। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় সমস্যা যৌতুক নয় পরকীয়া।

পরকীয়াঃ- অনেক সময় দেখা যায় স্ত্রী যদি পরকীয়ায় আসক্ত হয়। এ ক্ষেত্রে সংসারে অশান্তি সৃষ্টি হয়। অনেক সংসার ভেঙে যায়।

পুরুষ নির্যাতন আইনঃ- পুরুষ নির্যাতনে তেমন কোনো আইন না থাকায় এটি বাড়ছে। কারণ পুরুষ নির্যাতনের কোনো জবাবদিহিতা নেই।

প্রযুক্তির অপব্যবহারঃ- পুরুষ নির্যাতনের অারেকটি বিষয় প্রযুক্তির অপব্যবহার। প্রযুক্তির অপব্যবহার করে অনেক নারী পুরুষকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলেন। সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করেন। এ ছাড়া অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে।

আইনের অপব্যবহারঃ- অনেক ক্ষেত্রে নারী নির্যাতন আইনের অপব্যবহার হয়ে থাকে। দেখা যায়, আইনের অপব্যবহারের ফলে অনেক নির্দোষ পুরুষ শাস্তি পাচ্ছে।

নারীদের প্রচলিত ধারণাঃ- পুরুষ তখন তো আর পুরুষই নন । কোনও পুরুষ যদি সন্তান উৎপাদনে অসমর্থ হন, তখন চারপাশের মানুষ তার জীবন দুর্বিষহ করে তোলে। পুরুষ যেন সন্তান উৎপাদনের বীজ। তাকে সন্তান উৎপাদন করতেই হবে। সে সন্তান উৎপাদন করতে বাধ্য। নারীর যৌন বিলাসে পুরুষ যদি অর্থপূর্ণ ভূমিকা না রাখতে পারে তাহলে সেই পুরুষ তখন নপুংশুক, কিম্পুরুষ- এমন অসভ্য, অশালীন কুৎসিত মন্তব্য করতেও ছাড়ে কি কেউ? স্ত্রীদের বা নারীদের প্রচলিত ধারণা, স্বামী বিয়ের রাত থেকেই রতিক্রিয়া করবে। না হলে সে পুরুষ নয়। তখনই পুরুষদের এই জাতীয় মানসিক সমস্যা হয়। এক রাত বাইরে থাকলে, স্ত্রী ভিন্ন অন্য কোথাও থাকলে, বেড়ালে তার দিকে সন্দেহের অশ্লীল দৃষ্টি ‘তুমি কোথায় ছিলে, কার সঙ্গে ছিলে, কার সঙ্গে রাত কাটিয়েছো? কারও সঙ্গে রাত না কাটিয়েও তো মানুষ রাত কাটাতে পারে। মানুষের জীবনে কখনও কখনও, কোনও কোনও সময় একাকীত্বেরও প্রয়োজন হয়। পারবে কোনও বিবাহিত পুরুষ সম্মান নিয়ে সন্দেহমুক্তভাবে এমনি একা রাত কাটাতে। ভোগের বস্তু শুধু নারী নয়, ভোগের বস্তু পুরুষকেও ভাবা হয়।

মানুষই নির্যাতিত হবে নাঃ- আমি চাই আজকের সভ্য দুনিয়ায় কেউই কাউকে যৌন বস্তু হিসেবে ভাববেন না। কেউই যৌন নিগ্রাহের, হয়রানির, অত্যাচারের, নিপীড়নের শিকার হবেন না। বৈবাহিক-অবৈবাহিক কোনও ধর্ষণ যেন কেউ না হয়। শুধু নারী কেন? ধর্ষণের শিকার পুরুষও যেন না হয়। স্বামীদের ধর্ষণ যেমন চাইছি না তদ্রুপ স্ত্রীদের ধর্ষণও চাইছি না। নারী নির্যাতন নয়, পুরুষ নির্যাতনেরও আমি বিরোধী।  সভ্য সমাজে কোনও মানুষই নির্যাতিত হবে না। না পুরুষ-না নারী। না আপনি-না আমি।

যুগের পরিবর্তনের ফলে নারী ও পুরুষের মধ্যকার বৈষম্য কমেছে। কিশোর-কিশোরীরা ব্যাপক হারে লেখাপড়ার সুযোগ পাচ্ছে এবং অবাধে চলাফেরা ও মেলামিশার সুযোগ হয়েছে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের আরো যুগোপযোগী এবং চিন্তা চেতনায় আধুনিক হতে হবে। মেধা-জ্ঞান ও সৃজনশীলতার মাধ্যমে সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে নিজেদেরও পরিবর্তন করা সম্ভব। আমরা যদি একটু সচেতন হই তাহলে সমাজ বিনির্মাণ ও নৈতিক অবক্ষয়ের অধিকার কিছু মুষ্ঠিমেয় লোকের হাতের মুঠোয় সীমাবদ্ধ থাকবে না। এটি হবে এমন একটি সমাজ যেখানে নারী ও পুরুষ সবারই নিজস্ব ইচ্ছানুযায়ী ভূমিকা পালন ও মেধা বিকাশের সুযোগ এবং অধিকার থাকবে। সমান মর্যাদাবান নারী-পুরুষ হবে।