রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:০১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

‘বাঙালির প্রতিটি অর্জনে ছাত্রলীগের অবদান রয়েছে’

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ মে, ২০১৮
  • ৩৪৩ Time View

 

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ।।

বাঙালির প্রতিটি রাজনৈতিক অর্জনে ছাত্রলীগের অবদান রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বলে গিয়েছিলেন, বাঙালির ইতিহাস ছাত্রলীগের ইতিহাস। বাঙালির প্রতিটি অর্জনের সঙ্গে ছাত্রলীগের অবদান ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতার সংগ্রাম— প্রতিটি ক্ষেত্রেই ছাত্রলীগের অবদান রয়েছে।’

শুক্রবার (১১ মে) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলনে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তিনি।

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির সেই বক্তব্যকেই ধরে বলব— ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি জাতির পিতা যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র, তখন তিনি ছাত্রলীগ গড়ে তুলেছিলেন। কারণ পাকিস্তানিরা বাংলা ভাষাকে কেড়ে নিতে চেয়েছিল। উর্দু ভাষা চাপিয়ে দিতে চেয়েছিল আমাদের ওপর। ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ থেকে ভাষা আন্দোলন শুরু। ওই সময় ছাত্রলীগসহ তমুদ্দিন মজলিস ও অন্যান্য সংগঠন নিয়ে ভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে এই ভাষা আন্দোলন শুরু করেছিলেন। এর পরিণতি ১৯৫২ সালে রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা অর্জন।’

এরপর প্রতিটি সংগ্রাম-আন্দোলনে ছাত্রলীগের ভূমিকা রেখেছে বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি বলেন, ১৯৫৪ সালের নির্বাচন, ১৯৬২ সালে শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলন গড়ে তুলতে আওয়ামী লীগের পাশাপাশি ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা রেখেছ।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, জাতির পিতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় যখন ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করা হয়, তখন ছাত্রলীগ ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে ছয় দফা বাস্তবায়ন ও জাতির পিতার মুক্তির দাবিতে আন্দোলন করে। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানেও ছাত্রলীগের ভূমিকা ছিল। সত্তরের নির্বাচনে এই ছাত্রলীগ দুয়ারে দুয়ারে গিয়েছিল নৌকা মার্কায় ভোট চাইতে। এই নির্বাচনে সমগ্র পাকিস্তানে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছিল আওয়ামী লীগ।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে আমাদেরই অনেক সাথী জীবন দিয়েছে। আমি নিজেও ছাত্রলীগের কর্মী ছিলাম। আন্দোলন সংগ্রামে যুক্ত ছিলাম। আমাদের গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে শুরু করে প্রতিটি আন্দোলন ছাত্রলীগের ভূমিকা রয়েছে। এমনকি পঁচাত্তরের পর জাতির পিতার হত্যার প্রতিবাদ, সেই সঙ্গে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা, মার্শাল ল যারা জারি করেছিল তাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম, গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করে বাংলাদেশে জনগণের কাছে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার যে সংগ্রাম— সে দীর্ঘ সংগ্রামে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নামই বেশি।’

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করা হয়েছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৫ সালে বাবা-মা, ভাই-বোন হারিয়ে এই বাংলার মাটিতে ফিরে এসেছিলাম। এসেছিলাম একটা লক্ষ্য নিয়ে। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর এই বাংলাদেশকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নস্যাৎ করা হয়েছিল, স্বাধীনতার চেতনাকে ভুলুণ্ঠিত করা হয়েছিল। সেই চেতনা ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্যই দেশে ফিরে এসেছিলাম।’

এর আগে, এর আগে, বিকাল ৪টার কিছু পরে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলনের কার্যক্রম শুরু করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। এ সময় জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। প্রধানমন্ত্রর সঙ্গে ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইনসহ আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

সূ্ত্রঃ সারাবাংলা নেট

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH