রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

মাদকে সর্বনাশ | বাড়ছে অপরাধ, নেপথ্যে নেশা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৪০৫ Time View

স্ত্রী তানিয়া আক্তারকে বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দেয় ইয়াবায় আসক্ত আল আমিন। কয়েক দফায় কিছু টাকা বাবার কাছ থেকে এনে স্বামীর হাতে তুলে দেন তিনি। ওই টাকায় ইয়াবা সেবন করে তার স্বামী। এভাবে চাহিদা বাড়তে থাকে আল আমিনের। একপর্যায়ে স্বামীকে জানিয়ে দেন- বাবার কাছ থেকে আর টাকা আনতে পারবেন না তিনি। এতেই ঘটে বিপত্তি। গত ১৮ মার্চ রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে মাদকসেবী স্বামীর ছুরিকাঘাতে খুন হন ওই গৃহবধূ।

গত ৮ অক্টোবর ভোরে পুরান ঢাকার ওয়ারীর কেএম দাশ লেনে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে খুন হন ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র খন্দকার আবু তালহা। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হওয়া ছিনতাইকারী মিলন ও সবুজ হেরোইনসেবী। হেরোইন কেনার টাকা জোগাড় করতেই তারা ছিনতাই করে।

স্বামীর হাতে স্ত্রী এবং ছিনতাইকারীর হাতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র খুন- এ দুটি ভিন্ন ঘটনা এবং অপরাধের ধরনও আলাদা। তবে দুটি ঘটনার অপরাধীদের মধ্যে এক জায়গায় অভিন্নতা রয়েছে, তা হলো তারা মাদকাসক্ত।

শুধু এ দুটি অপরাধই নয়, ছিনতাই, ডাকাতি, চুরি, খুন ও যৌন হয়রানির মতো অপরাধের নেপথ্যের অন্যতম কারণ মাদক। সংঘটিত হওয়া বেশ কয়েকটি অপরাধ পর্যালোচনা এবং সমকালের অনুসন্ধানে এসব তথ্য মিলেছে। নানা কৌশলে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও টেকনাফ থেকে ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে আসছে মাদক ব্যবসায়ীরা। ঢাকাসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এই ইয়াবা ছড়িয়ে দেয় তারা। পাশাপাশি হেরোইন ও ফেনসিডিলসহ অন্যান্য মাদকও পাওয়া যায় হাতের নাগালে। আর মাদকের টাকা জোগাড় করতে ছিনতাই, ডাকাতি, চুরি, পকেটমার ও খুনসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে মাদকাসক্তরা। পরিবারের কাছে মাদক কেনার টাকা না পেয়ে স্বজনকে হত্যা করতেও দ্বিধাবোধ করে না তারা।

খিলগাঁওয়ের গোড়ান ১০ নম্বর এলাকার অস্থায়ী বাসিন্দা ও ছিনতাইকারী গিয়াস উদ্দিন বাবু জানায়, এক বছর ধরে সে ইয়াবা সেবন করে। প্রতিদিন একটি করে ইয়াবা লাগে তার। রিকশা চালিয়ে ইয়াবা কেনার টাকা জোগাড় করা তার পক্ষে অসম্ভব। এ জন্য মাঝেমধ্যে সহযোগীদের সঙ্গে রাস্তায় নামে ছিনতাই করতে। গত সোমবার রাতেও গিয়াসসহ তিনজন গোড়ান এলাকায় এক রিকশাচালকের কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ সময় গিয়াস স্থানীয় জনতার হাতে ধরা পড়লেও অন্য দু’জন পালিয়ে যায়। গিয়াস জানায়, তার অন্য দুই সহযোগীও ইয়াবায় আসক্ত। ওইদিন ছিনতাইয়ের আগেও তারা তিনজন ইয়াবা সেবন করে। তার গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের রাজারচর এলাকায়।

অপরাধ ও সমাজবিজ্ঞানী এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারা বলছেন, ইয়াবা, হেরোইন, ফেনসিডিলসহ সব ধরনের মাদকদ্রব্যের কারণে অপরাধ বাড়ছে। তাই অপরাধ হ্রাস করতে হলে অবশ্যই মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীদের শক্ত হাতে দমন করতে হবে। অন্যথায় দিন দিন অপরাধ বাড়তে থাকবে।

সমাজবিজ্ঞানী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এএসএম আমানুল্লাহ সমকালকে বলেন, দেশে ৬০-৭০ লাখ মাদকাসক্ত রয়েছে। এর মধ্যে ১৯-২০ শতাংশ (১২-১৩ লাখ) মাদকাসক্ত বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। মাদকের টাকা জোগাড় করতে তারা চুরি, ছিনতাই থেকে শুরু করে বিভিন্ন অপরাধে যুক্ত হয়। তিনি বলেন, মাদকে বাড়ছে সামাজিক অবক্ষয়। এর নেতিবাচক দিক সম্পর্কে সামাজিক অনুষ্ঠান করতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে সমাজে দিন দিন মাদকাসক্ত ও অপরাধ বাড়তেই থাকবে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম) কৃষ্ণপদ রায় বলেন, মাদকের সঙ্গে অপরাধীর সংশ্নিষ্টতা সবসময়ই পাওয়া যায়। ছিনতাই কিংবা খুনের ঘটনা মাদকাসক্ত লোকের মাধ্যমে ঘটেছে- এমন নজির রয়েছে। পুলিশের পর্যালোচনায়ও এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। তিনি বলেন, মাদক বন্ধ করতে না পারলে শুধু অপরাধের বিপরীতে কাজ করে অপরাধ কমবে না, মাদকের বিরুদ্ধেও কাজ করতে হবে। মাদক নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলে অপরাধ কমে আসবে, সেই লক্ষ্যে কাজ করছে পুলিশ।

হেরোইনের টাকা জোগাড় করতে মোটরসাইকেল চুরি করে শিবলী :গত ৯ মার্চ ভোরে বউবাজারের বালুরমাঠ এলাকার নির্মাণাধীন সাততলা ভবনে মোটরসাইকেল চুরি করতে যায় হেরোইনসেবী শিবলী। ওই যুবক দেয়াল টপকে ভেতরে ঢুকে চুরির সময় নিরাপত্তাকর্মী মুরাদ হোসেন তা দেখে ফেলেন। তিনি বাধা দিতে গেলে তাকে ছুরিকাঘাত করে সে। এ সময় তার চিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসে। তারা শিবলীকে আটক করে পিটুনি দেয়। পাশাপাশি মুরাদকে উদ্ধার করে নেওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

ছিনতাইয়ের টাকায় মাদক সেবন :সোহেল রানার বয়স ২৫ বছর। গ্রামের বাড়ি ভোলার চরপুটকায়। থাকে ঢাকার আশুলিয়ার ভাদাইলে। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে মাদক সেবন করে সে। মাঝেমধ্যে বিভিন্ন গাড়িতে হেলপারের কাজ করলেও মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে গাড়িতে বেশিদিন টেকে না। কাজকর্ম থাকুক বা না থাকুক মাদক চাই-ই তার। মাদকের টাকা জোগাড় করতে রাতে-দিনে নেমে পড়ে রাস্তায়। কখনও বাসের নারী যাত্রীর ভ্যানিটি ব্যাগ ধরে টান, কখনও কৌশলে পুরুষ যাত্রীর পকেট মারে সে ও তার আরও দুই সহযোগী ইস্রাফিল ও ফরহাদ। ছিনতাইও করে তিনজনে মিলে। গত ৫ এপ্রিল রাজধানীর উত্তরার জসিমউদ্‌দীন মোড়ে বাসের এক নারী যাত্রীর ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর সময় তারা র‌্যাব-১-এর হাতে গ্রেফতার হয়। ছিনতাই করা ভ্যানিটি ব্যাগটি টাকাসহ উদ্ধারও করা হয় তাদের কাছ থেকে। তাদের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি তদন্ত করছেন উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই আমিনুল ইসলাম। তিনি বলেন, সোহেল রানা চিহ্নিত মাদকাসক্ত। ফরহাদ এবং ইসরাফিলও মাদক সেবন করে। মাদকের টাকা জোগাড় করতেই তারা ছিনতাই ও বাসে মানুষের পকেটমারে।

ইয়াবায় আসক্ত থেকে ব্যবসায়ী :কক্সবাজারের কলাতলীর স্থায়ী বাসিন্দা ৪০ বছরের মো. আলম একসময় এলাকার বন্ধুদের সহযোগিতায় চিংড়ি মাছের পোনা ও কটেজ ব্যবসা এবং জমি কেনাবেচা করতেন। এক সময় তিনি ইয়াবা সেবন শুরু করেন। এতে আসক্ত হয়ে শুরু করেন ইয়াবা ব্যবসা। গত ১৪ মার্চ ধানমণ্ডি থেকে এক লাখ ২৩ হাজার পিস ইয়াবা ও তিন সহযোগীসহ তিনি র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হন। ইয়াবায় আসক্ত থেকে ইয়াবা ব্যবসায়ী হয়ে ওঠার তথ্য তিনি র‌্যাবকে জানান।

সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা :গত ১ অক্টোবর ভোর ৬টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াল এলাকার জাকির হোসেনের সাত বছরের মেয়ে জারিয়া আক্তারকে ধর্ষণের পর হত্যা করে প্রতিবেশী রফিকুল ইসলাম (১৯)। গ্রেফতারের পর সে আদালতে হত্যার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। পুলিশের ডেমরা জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতেখারুল ইসলাম বলেন, রফিকুল মাদকসেবী। ওই রাতে সে মাদক সেবন করে বাসায় আসে এবং ভোরে শিশুটিকে বাসায় ডেকে পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা করে।

মায়ের কোল থেকে ছিটকে পড়ে শিশুর মৃত্যু :গত ১৮ ডিসেম্বর ভোরে দয়াগঞ্জে আঁখি বেগম নামে এক রিকশাযাত্রীর ব্যাগ ধরে টান দেয় ছিনতাইকারী। এতে ওই নারীর কোল থেকে ছিটকে পড়ে মারা যায় তার ৬ মাসের শিশুসন্তান। ওই ছিনতাইকারী গ্রেফতারের পর স্বীকার করে, মাদক সেবনের টাকার জোগাড় করতে ছিনতাইয়ের পথ বেছে নিয়েছে।

৯৫ শতাংশ বাসচালক মাদকাসক্ত : রাজধানীতে প্রায়ই বাসের ধাক্কা কিংবা চাপা পড়ে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটছে। খোদ বাস মালিকরাই দুর্ঘটনায় দায়ী করছেন মাদকাসক্ত চালকদের। তারা বলছেন, রাজধানীর অভ্যন্তরীণ পথের ৯৫ শতাংশ বাসচালক মাদকাসক্ত। গত ১২ এপ্রিল রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে মালিক-শ্রমিকদের যৌথ সভায় এ তথ্য জানানো হয়। সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্ল্যাহ ওই সভায় বলেন, বেশিরভাগ চালক নেশা করে। নেশা করে বেপরোয়া গাড়ি চালায়।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি অ্যান্ড পর্ুলিশ সায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেন, মাদক অপরাধের প্রভাবক হিসেবে কাজ করে। এ জন্য সমাজে অপরাধের পাশাপাশি মাদক নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। মাদক থাকলে ছিনতাই, ডাকাতি, চুরি, খুন ও ইভ টিজিংয়ের মতো ঘটনা বাড়বে। মাদকাসক্ত হয়ে অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাদক কমিয়ে আনতে পারলে সংঘটিত অপরাধ অন্তত ৫০ ভাগ কমে যাবে। এ জন্য মাদক নিয়ন্ত্রণে সরকারকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। সমকাল

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH