শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল।

রোহিঙ্গাদের স্বদেশে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে কথা বলতে কক্সবাজার সফরে আসা মিয়ানমার ও আসিয়ানের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদলটি দ্বিতীয় দিনের মতো রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সংলাপ শুরু করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে উখিয়ার কুতুপালং এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে এ সংলাপ শুরু করেছেন। এর আগে গতকাল একই ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সংলাপ হয়।

মিয়ানমার ও আসিয়ানের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল দুইদিনের সফরে কক্সবাজারে অবস্থান করছেন। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে কথা বলতে প্রতিনিধি দলটি রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সংলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন। আজ দ্বিতীয় দিনের মতো কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোহিঙ্গা কমিউনিটি নেতাদের সঙ্গে সংলাপ করছেন। সকালে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উক্ত সংলাপে অংশ নিচ্ছেন অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা কমিউনিটি নেতা ও নারী নেত্রী।

গতকাল বুধবার সংলাপে অংশ নেওয়া রোহিঙ্গা নেতাদের ‘এনভিসি’ কার্ড নিয়ে মিয়ানমারের ফিরে যেতে বার বার অনুরোধ করা হয় মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলটি। কিন্তু রোহিঙ্গারা তা প্রত্যাখান করে বলেছেন, রাখাইনে পূর্ণ নাগরিকতাসহ নানা সুযোগ সুবিধা দিলেই ফিরবে এর আগে নয়।

প্রথম দিন সংলাপ শেষে রাখাইনে সহিংস পরিস্থিতি সম্পর্কে মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে দেওয়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থার মহাপরিচালক চ্যান অ্যায়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, রাখাইনে চলমান সহিংসতা দীর্ঘ দিনের। এটি শুধু রোহিঙ্গাদের জন্য নয়, পুরো রাখাইন জুড়ে আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী প্রতিনিয়ত সহিংসতার শিকার হচ্ছেন।

গতকাল বুধবার সকালে মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা ও অর্থনীতিক বিভাগের পরিচালক চ্যান অ্যায়ের নেতৃত্বে ৯ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দলে মায়ানমারের পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ ও পুনর্বাসন, শ্রম ও অভিবাসন এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাগণ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছেন।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৭ জুলাই মিয়ানমারের পররাষ্ট্র সচিব মিন্ট থোয়ের নেতৃত্বে ১৯ সদস্যের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গা ক্যাম্প সফর করেন। এ সময় আসিয়ানের প্রতিনিধি দলটিও সঙ্গে ছিলেন। সে সময়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে রোহিঙ্গাদের যৌথ সংলাপে অংশ নেয়। এছাড়াও ২০১৮ সালের ১১ এপ্রিল মিয়ানমারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রী উইন মিয়াট আয়ের নেতৃত্বে আরও একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলতে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসেছিলেন। রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সংলাপ করতে দুই দিনের সফরে তৃতীয় বারের মতো মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলটি কক্সবাজারে অবস্থান করছেন। আজ বিকালে ঢাকার উদ্দেশে কক্সবাজার ত্যাগ করার কথা রয়েছে।