রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

রামু হিমছড়িতে বন বিভাগের জায়গায় তান্ডব চালিয়ে ১০ বসত বাড়ি ভাংচুর, ব্যাপক লুটপাট অগ্নিসংযোগ : আহত ১০

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ জুন, ২০১৮
  • ৩২৪ Time View

স্টাফ করেসপনডেন্ট:-

রামু উপজেলার হিমছড়িতে জবর দখলের উদ্দেশ্যে ১০ টি দিনমজুর ও অসহায় পরিবারের বসতঘরে ব্যাপক লুটপাট, অগ্নি সংযোগ ও গুঁড়িয়ে দিয়েছে প্রভাবশালী সন্ত্রাসী চক্র। এসময় নারী ও শিশুসহ আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। এ নারকীয় তান্ডবে লুটপাটসহ কোটি টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ভূক্তভোগীরা। মঙ্গলবার ৫ জুন ভোর ৬টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এ তান্ডবতার এঘটনা ঘটে।

অভিযোগে জানা গেছে, হিমছড়ি সালসা রেস্তোরার দক্ষিণ-পূর্ব পাশে দীর্ঘ দুই যুগ ধরে বনবিভাগের জমিতে বসবাস করছে অর্ধ শতাধিক পরিবার। তাদের সহায় সম্পত্তি ও জায়গা জমির উপর কু-দৃষ্টি পড়ে রায়হান গংয়ের। উক্ত রায়হান গংয়ের জমির পূর্ব পাশের্^ এতদিন বসবাস করছে অসহায় পরিবারগুলো।

কিন্তু হঠাৎ পরিবারগুলোর উপর নেমে আসে অমানবিক নির্যাতন। তাদের সহায় সম্পত্তি জবর দখল করতে সকাল ৬টা থেকে বসতঘরগুলো নগ্ন উল্লাসে প্রকাশ্যে অগ্নি সংযোগ ও ভাঙ্গা শুরু করে প্রভাবশালী রায়হান ও তার ছেলে জেলা পুলিশ সুপার অফিসে আইটি বিভাগে কর্মরত ওয়াহিদ প্রকাশ ফুশুন। ৫০/৬০ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী নিয়ে একে একে ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় ১০টি বসতঘর, চালানো হয় ব্যাপক তান্ডবতা।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানায়, সকাল ৬টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত রায়হান ও তার ছেলের নেতৃত্বে ৪০/৫০ জনের স্বশস্ত্র ভাড়াটিয়া বাহিনী এলাকাবাসীর উপর সন্ত্রাসী হামলা শুরু করে। এসময় এলাকাবাসীও প্রতিরোধ তৈরী করলে উভয় পক্ষে সংঘর্ষ হয়। এতে নারী ও শিশুসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়।

আহত এলাকাবাসী হলো, সিরাজুল হকের স্ত্রী কোহিনুর আক্তার, খাইরুল বশরের স্ত্রী তৈয়বা খাতুন, নুরুল ইসলামের স্ত্রী রাজিয়া বেগম, মোহাম্মদ উল্লাহ।

অপরদিকে বিকাল ৪টায় আত্মরক্ষার্থে এলাকাবাসীর ছুঁড়া ইট-পাটকেলের টুকরোর আঘাতে আহত হন দখলদার রায়হান ও তার ছেলে। এর আগে মোহাম্মদ উল্লাহ’র ছেলে সিরাজ উল্লাহ, সিকান্দর আলীর ছেলে খাইরুল বশর, মোহাম্মদুল্লাহ’র ছেলে বাবুল আহমদ,আমীর হামজার ছেলে নুরুল ইসলাম ধলু, সিকান্দর আলীর ছেলে মোহাম্মদ কালুসহ অন্তত ১০ পরিবারের বসতঘর ভেঙ্গে সম্পূর্ণ গুঁড়িয়ে দেয় সন্ত্রাসীরা। এসময় ব্যাপক লুটপাট ও তান্ডব চলে। কোলের শিশু পর্যন্ত মাটিতে ছুঁড়ে ফেলে দেয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এবিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ছুটিতে থাকায় স্বশরীরে না আসা পর্যন্ত ঘটনার বিস্তারিত বলতে পারবনা।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (কক্সবাজার দক্ষিণ) আলী কবির জানান, বন বিভাগের জায়গা কেউ দখল করতে পারেনা। এরকম হলে আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তিনি উল্লেখ করেন, রায়হান গং শুধুমাত্র একটি বাঁধ দেওয়ার অনুমতি চেয়েছে। সেখানে তারকাটা দিয়ে বিশাল বনভুমির উপর হস্তক্ষেপ করার প্রশ্নই আসেনা।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH