বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১২:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
নববধূ সেজে ঢাকা থেকে ইয়াবা কিনতে এসে পুলিশের হাতে ধরা উখিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা গ্রেফতার কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার

রোহিঙ্গা ছেলেমেয়েরা বসে বসে খাচ্ছে আর বাচ্চা জন্ম দিচ্ছে, আমার এলাকার ছেলেমেয়েরা না খেয়ে গ্যাস্ট্রিকে ভুগছে-এমপি বদি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৮
  • ১৪৪ Time View
বিশেষ প্রতিনিধিঃ-

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুর রহমান বদি বলেন, ‘আমার এলাকার ছেলেমেয়েরা গ্যাস্ট্রিকে ভুগছে। খেতে না পারলে তো গ্যাস্ট্রিক হবেই। অথচ এখানে রোহিঙ্গাদের বিস্কুট দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমি বিদেশিদের বললাম— আমার এলাকার ছেলেমেয়েরা না খেয়ে গ্যাস্ট্রিকে ভুগছে, তাদের বিস্কুট দেন। তখন তারা বললেন, না, স্যার। এসব বিস্কুট রোহিঙ্গাদের জন্য। স্থানীয়দের দেয়া যাবে না। তখন আমি বললাম, এলাকার মানুষ ভোট দিয়ে আমাকে এমপি বানিয়েছে। তারা কী দোষ করল যে, তাদের ছেলেমেয়েরা না খেয়ে গ্যাস্ট্রিকে ভুগবে? তাদের কেন আপনারা বিস্কুট দিবেন না?

এমপি বদি বলেন, ‘আমি ওই বিদেশিকে বললাম, ওই লাল চামড়াওয়ালা, তুই আসছস বিদেশ থেকে বার্মাইয়াদের (রোহিঙ্গা) সাহায্য করার জন্য। তুই কি জানস, বার্মাইয়া মেয়েরা বছর বছর একটা করে বাচ্চা জন্ম দেয়। এখানে পাঁচ বছর থাকলে পাঁচটা, ছয় বছরে ছয়টা, সাত বছরে সাতটা হবে? তো বছর বছর বাচ্চা দিলে বার্মাইয়া মেয়েদের শরীরে তো পুষ্টি থাকবে না। এদের বিস্কুট দিয়ে কী লাভ? আমি বললাম, তোমরা বার্মাইয়াদের বসিয়ে বসিয়ে খাওয়াচ্ছো। তারাও বসে বসে খাচ্ছে আর বছর বছর বাচ্চা জন্ম দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমার এলাকার ছেলেমেয়েরা স্কুলে গিয়েও বিস্কুট পায় না। অথচ রোহিঙ্গাদের ছেলেমেয়েরা গাল ফুলাইয়া ফুলাইয়া বিস্কুট খায়, এগুলো কেমন কথা? এ বিস্কুট কী রামু, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, কক্সবাজারের কোথাও দেয়া হয়নি, শুধু উখিয়া-টেকনাফে দেয়া হয়েছে? আসলে এসব বিস্কুট প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন আমার এলাকার মানুষের জন্য। খেয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা।’

তিনি আরো বলেন, ‘১০ লাখ রোহিঙ্গা কক্সবাজারের পাহাড়ের ভেতর ঘর করে বসবাস করছে। সব গাছ তারা কেটে খেয়েছে। শিকড় পর্যন্তও হাওয়া করে দিয়েছে। গরু-ছাগলের জন্য গাছের নিচে যেসব ঘাস ছিল, সব শেষ করে রোহিঙ্গারা নীরবে এবং আরামে বসবাস করছে। তাদের কোনো কাজকাম নাই, কোনো চিন্তাও নেই।’

তিনি বলেন, আমাদের নিঃশ্বাস ফুরিয়ে গেছে, ঠিকমতো অক্সিজেন পাই না। তেলও তারা খায়, চালও। মরিচও তারা খায়, যা সাহায্য আসে সবই তারা খায়। তারা সংখ্যায় বেশি, অক্সিজেনও বেশি নিচ্ছে। আমরা ৫ লাখের মতো আছি, আমাদের অক্সিজেনও ওরা দখল করেছে। আমাদের শরীরে কী আর অক্সিজেন থাকে?’

বদি বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছি রোহিঙ্গারা যেভাবে বসে বসে খাচ্ছে, আমার এলাকার গরিব মানুষেরাও যাতে সেই সুযোগ পাই, আপনি সেই ব্যবস্থা করবেন। এরপরই প্রধানমন্ত্রী উখিয়া-টেকনাফের ৩০ হাজার গরিবের জন্য চাল বরাদ্দ দিলেন, যা আপনাদের হাতে তুলে দিচ্ছি।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন উখিয়ার ইউএনও নিকারুজ্জামান চৌধুরী, জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী প্রমুখ।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH