শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:০১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

শনিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত স্থগিত ছাত্র আন্দোলন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২ আগস্ট, ২০১৮
  • ৬২৪ Time View

চট্রগ্রাম অফিসঃ- 

নিরাপদ সড়কসহ নয়দফা দাবিতে চলমান ছাত্র আন্দোলন আজকের মতো স্থগিত ঘোষণা করলো আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা । শনিবার (৪ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে পুনরায় শুরু হবে এই আন্দোলন। দুপুর ৩টায় নগরীর বিভিন্ন স্থানে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেয়।

উল্লেখ্য সারাদেশের মতো চট্টগ্রামেও দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে শিক্ষার্থীরা ওয়াসার মোড়ে এসে জমায়েত হয়। পরে এই জমায়েত ছড়িয়ে পড়ে জিইসি, ২ নং গেইট ও মুরাদপুর পর্যন্ত।

এসময় শিক্ষার্থীরা ‘কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়’, ‘ন্যায়বিচার চাই’, ‘মাননীয় image প্রধানমন্ত্রী আপনার স্বজন হত্যার বিচার করেছেন, এবার আমাদের ভাই-বোন হারানোর বিচার করেন’- এমন নানা প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুনসহ স্লোগান দিতে থাকে। তবে এখনো পর্যন্ত কোনো বিশৃঙ্খলার খবর পাওয়া যায়নি। এদিকে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি ঠেকাতে তৎপর রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

সরেজমিনে নগরীর ২ নং গেইট এলাকায় গিয়ে দেখা য়ায়, বৃষ্টি উপেক্ষা করেই শিক্ষার্থীরা সড়কে অবস্থান নেয়।  এসময় তারা নানা স্লোগান দিয়ে অপরাধীদের শাস্তির দাবি জানান।  জিইসি মোড়ে শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশ চড়াও হওয়ার খবর পেলে তারা পুলিশের বিরুদ্ধেও স্লোগান দেয়।

সাফায়েত আজিজ নামের এক শিক্ষার্থী জানান, আমরা যৌক্তিক আন্দোলন করছি, নিরাপদ সড়ক এখন সময়ের দাবি। সরকারের প্রতি আহবান জানাবো যেন নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করা হয়।  যেন আমরা নিরাপদে ফিরতে পারি।

আজিজুল হাকিম নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমাদেও নয় দফা দাবি মেনে নিতে হবে, দাবিগুলো হলো- বেপরোয়া ড্রাইভারকে ফাঁসি দিতে হবে এবং এই শাস্তি সংবিধানে সংযোজন করতে হবে।, নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহার করে শিক্ষার্থীদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে( ইতোমধ্যে মন্ত্রী ক্ষমা চেয়েছেন), শিক্ষার্থীদের চলাচলে এমইএস ফুটওভার ব্রিজ বা বিকল্প নিরাপদ ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে। প্রত্যেক সড়কের দুর্ঘটনা প্রবণ স্থানে স্পিড ব্রেকার দিতে হবে, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ছাত্র-ছাত্রীদের দায়ভার সরকারকে নিতে হবে, শিক্ষার্থীরা বাস থামানোর সিগন্যাল দিলে, বাস থামিয়ে তাদের বাসে তুলতে হবে, সারাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়ার ব্যবস্থা করতে হবে, ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় চলাচল বন্ধ ও লাইসেন্স ছাড়া চালকরা গাড়ি চালাতে পারবে না, বাসে অতিরিক্ত যাত্রী নেওয়া যাবে না।

আজিজ আরো বলেন, আমাদের আন্দোলন জনসাধারণের নিরাপত্তার জন্য আন্দোলন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের অবস্থানে সহমত জানিয়ে অনেক অভিভাবক নিজ সন্তানকে নিয়ে দাঁড়িয়েছে কোমলতি এসব শিক্ষার্থীদের পাশে।  তাদের সাহস যোগাচ্ছে যৌক্তিক চলমান এ আন্দোলনে।

এদিকে মুরাদপুর মোড়েও একই দাবিতে  অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা।  তারা বিভিন্ন যানবহনের লাইসেন্স চেক করছে।  যাদের লাইসেন্স আছে তাদের গাড়ি ছেড়ে দিচ্ছে, যাদের লাইসেন্স নেই তাদের লাইসেন্স নিয়ে রোডে নামার পরামর্শ দিচ্ছে।

মুরাদপুরে আন্দোলনে যোগ দেওয়া শাকিল আহমেদ নামে এক শিক্ষার্থী জানান, আমরা লাইসেন্স চেক করছি নিরাপত্তার জন্য, যাদের লাইসেন্স নাই তারা কিভাবে সড়কে গাড়ি চালায়? পুলিশকে টাকা দিয়ে অবৈধভাবে গাড়ি চালাতে গিয়ে আমাদের সহপাঠিরা প্রাণ দিচ্ছে অসময়ে।  সড়কে যেন আমাদের আর কোন সহপাঠির প্রাণ অকালে না ঝরে।

তানভীর আহমেদ নামে এক শিক্ষার্থী জানায়, আমাদের এই আন্দোলন নিরাপদ সড়কের আন্দোলন, আমাদের এই আন্দোলন সচেতনতার আন্দোলন। আশা করি সরকার আমাদের আন্দোলনের বিষয় বিবেচনা করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেবেন।

রিশাদ হাসান নামে আরেক শিক্ষার্থী জানায়, আমরা আমাদের ভাই করিম হত্যার বিচার চাই, আমরা আমাদের বোন দিয়া হত্যার বিচার চাই, আমরা নিরাপদ সড়ক চাই, আমরা সুন্দর ট্রাফিক সিস্টেম চাই। আমরা সড়ক দুর্ঘটনায় আর কোন স্বজন হারাতে চাই না।

প্রসঙ্গত, গত রোববার (২৯ জুলাই) রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় এ আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। নিরাপদ সড়কসহ নয় দফা দাবিতে গতকাল ঢাকায় চতুর্থ দিনের মতো রাজধানীর সড়কে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা বিভিন্ন পরিবহনের লাইসেন্স ও চালকের লাইসেন্স পরীক্ষা করে। লাইসেন্সবিহীন পুলিশের একটি গাড়িও আটকে দেয় তারা। তবে ছাত্রদের এই আন্দোলনের প্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) সারা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় সরকার।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH