আজিম নিহাদ ও আরফাতুল মজিদ, কক্সবাজার |

‘মৃতপ্রায়’ দ্বীপ সেন্টমার্টিনের পরিবেশ পুনরুদ্ধারে দিকে এগুচ্ছে সরকার। ধংস হয়ে যাওয়া জীববৈচিত্র ফিরে এনে একটি পরিপূর্ণ পর্যটনবান্ধব প্রবাল দ্বীপ বিশ্বেকে উপহার দিতে সকলের সহযোগিতাও চেয়েছে বন, পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়। একই সাথে ভবিষ্যত প্রজম্মের জন্য একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক রাখতে চায় বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনকে।

বন, পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে- ধংসের হাত থেকে সেন্টমার্টিনকে পুনরুদ্ধার করতে পর্যটক নিয়ন্ত্রণসহ স্বল্প, মধ্য এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। শীঘ্রই বাস্তবায়নও হবে।

এরমধ্যে স্বল্প মেয়াদে (১-৩ বছর) করণীয় হলো- প্রতিদিন সর্বোচ্চ ২টি জাহাজ এবং ৫০০ জন পর্যটকের বেশি দ্বীপে যাওয়া আসা করতে পারবে না। পর্যটক সৃষ্ট সকল ধরণের কঠিন বর্জ্য পরিবেশসম্মত ব্যবস্থাপনার আওতায় নিয়ে আসতে হবে। সেন্টমার্টিন দ্বীপে সকল প্রকার নির্মাণ কার্যক্রম বন্ধ করা’সহ সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ। দ্বীপে কোনো ধরনের জেনারেটরের ব্যবহার করা যাবে না। শুধু সৌরশক্তি ব্যবহার করতে হবে। সেন্টমার্টিন ভ্রমণের ক্ষেত্রে ট্যুরিস্ট-ফি আরোপ করা হবে। সেন্টমার্টিনের জমি ক্রয়-বিক্রয় সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে। অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ব্যবস্থা চালু করতে হবে। যার মাধ্যমে পর্যটকরা সেন্টমার্টিন ভ্রমণের পূর্বে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করে নির্দিষ্ট তারিখে ভ্রমণ করবে।

মধ্য মেয়াদে (৩-৫ বছর) করণীয় হলো- ‘সেন্টমার্টিন ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একটি সমন্বিত বৃহৎ প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন শুরু করতে হবে। সেন্টমার্টিনের স্থায়ী বাসিন্দাদেরকে ইকো-ট্যুরিজম গাইড হিসাবে প্রশিক্ষিত করে তোলা এবং দৈনিক পর্যটন থেকে আয়কৃত অর্থের অংশ বিশেষ তাদের সাথে সমন্বয় করার ব্যবস্থা রাখতে হবে।

দীর্ঘ মেয়াদে (৫-১০ বছর) করণীয় হলো- অবৈধ হোটেল মোটেলের স্থাপনা উচ্ছেদপূর্বক সেন্টমার্টিনের পুরো ভূমির মালিকানা সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। সেন্টমার্টিনের মালিকানা সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনার সাথে সাথে দ্বীপে বসবাসকারীদের অন্যত্রে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে।

সেন্টমার্টিন রক্ষায় সরকারের প্রাথমিক সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা) মুহাম্মদ সোলাইমান হায়দার বলেন, সেন্টমার্টিন বিরল প্রতিবেশগত বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন বাংলাদেশের একমাত্র দ্বীপ। কিন্তু আজ সেই দ্বীপ ধংসের প্রায় শেষ প্রান্তে। দ্বীপকে ধংসের হাত থেকে পুনরুদ্ধার করতে হলে পর্যটক নিয়ন্ত্রণ’সহ তিন মেয়াদী কাজসমূহ বাস্তবায়নে আন্তরিক পদক্ষেপ নিয়ে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি আরো বলেন, সরকারের এসব পদক্ষেপ সংশ্লিষ্টদের কাছে পৌঁছানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ে বৈঠক হয়েছে। ২৭ অক্টোবর শনিবার কক্সবাজারে ‘সেন্টমার্টিন দ্বীপের বিরল জীববৈচিত্র্য এবং প্রতিবেশ সংরক্ষণ মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বন ও পরিবেশমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ’সহ মন্ত্রণালয়ের সচিব, অতিরিক্ত সচিব, কক্সবাজারের সর্বোচ্চ প্রশাসনিক ব্যক্তি, জনপ্রতিনিধি, পর্যটন ব্যবসায়ী, সেন্টমার্টিনের হোটেল ব্যবসায়ী, বাসিন্দা ও সেন্টমার্টিনের পর্যটন সেবায় নিয়োজিত সংগঠন বা প্রতিষ্টানের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় সবার কাছ থেকে তিন মেয়াদী এসব পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়া চাওয়া হয়েছে। অনেকেই নতুন নতুন পদক্ষেপ বা বিকল্প ধারণাও দিয়েছে সেন্টমার্টিন রক্ষা করতে। এ বিষয়ে আরো অনেক বৈঠক বা সভা অনুষ্ঠিত হবে। সবার মতামতের ভিত্তিতে একটি যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত নিতে হবে। যাতে ধংসের হাত থেকে বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ রক্ষা করা যায়।