সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন

স্বর্ণকারে দোকানের নামে টেকনাফে গ্রাহকের টাকা মেরে লাপাত্তা!

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ৫৯২ Time View

খাঁন মাহমুদ আইউব(কক্সবাজার)প্রতিনিধি:-

কক্সবাজার’র টেকনাফে ব্যাঙের ছাতার মতো গজে উঠেছে লাইসেন্স বিহীন স্বর্ণকারের আড়ালে জুয়েলারী ব্যবসা।বিভিন্ন সময় গ্রাহকদের টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হওয়ার অভিযোগ রয়েছে এসব স্বর্ণকার দোকান গুলোর বিরুদ্ধে।

সুত্র জানায়,উপজেলার পৌর শহরের কুলাল পাড়া জীপ স্টেশন এলাকায় মংছিন স্বর্ণকার নামক একটি স্বর্ণের দোকানদার বেশ কয়েক জন গ্রাহকের অন্তত ৫লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।তার ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।উক্ত মংছিন জেলার মহেষখালী উপজেলার ছোট মহেষখালী মুদিছড়া এলাকার মংম্রাউ এর পুত্র বলে জানা গেছে।পৌরসভার মধ্যম জালিয়া পাড়া এলাকার হুমায়রা নামক একজন গ্রাহকের থানায় অভিযোগের সূত্রে জানা যায়,গত ১৩ জুলাই ৬ ভরি স্বর্ণালংকার তৈরীর জন্য উক্ত মংছেন কে ৩ লক্ষ টাকা প্রদান করে।কিন্তু ২০জুলাই উক্ত দোকান থেকে স্বর্ণ ডেলিভারী আনতে গিয়ে জানতে পারে মংছেন দোকান ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

এদিকে ভূক্তভোগী গ্রাহকের স্বামী ফরিদ আলম জানান,মংছেনের সাথে ফোনে যোগাযোগ হলে তিনি কুরবানের ঈদের পরে স্বর্ণ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।অপরদিকে দোকান মালিকের সাথে আতাত করে ৩১ আগষ্ট সোয়া এগারোটার দিকে রাতের অন্ধকারে দোকান মালিক জহির মালপত্র বাহির করে তার লোকের হাতে উঠিয়ে দেয়।এসময় স্থানীয় লোক জন ভূক্তভোগী গ্রাহকদের সংবাদ দিলে গ্রাহক হুমায়রা টেকনাফ থানা পুলিশ কে নিয়ে ঘটনা স্থলে হাজির হয়।
টেকনাফ মডেল থানার এসআই সুব্রত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান,ঘটনা স্থলে গিয়ে আরো বেশ কিছু গ্রাহকের টাকা পাওনার অভিযোগ পাওয়া গেছে।১লা সেপ্টেম্বর মংছেন থানায় হাজির হয়ে পাওনা মিটিয়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন।দোকান মালিক জহির কে জনস্বার্থে মালপত্র বন্ধক রাখার জন্য জানিয়ে দেয়া হয়েছে।তাছাড়া একই এলাকার মোঃ আলী,কুলাল পাড়ার মোঃ হাসিমের টাকা হাতিয়ে নেয়ার একই অভিযোগের প্রমান পাওয়া গেছে।

এভাবে স্বর্ণকারের নামে জুয়েলারী ব্যবসা করে গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অতীতেও বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে এসব প্রতিষ্টান গুলোর বিরুদ্ধে।তাই অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা স্বর্ণের দোকান গুলোর প্রতি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানো প্র‍য়োজন।অন্যতায় গ্রাহক হয়রানী বন্ধ করা সম্ভব নয় বলে মতামত দিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH