সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

২৫ মার্চ কালরাত পুলিশের সাড়ে ৩ ঘণ্টার প্রতিরোধ যুদ্ধ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৫ মার্চ, ২০১৮
  • ৩৪৭ Time View

২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ‘অপারেশন সার্চলাইট’-এর নামে ঢাকায় প্রথম গণহত্যা শুরু করে। ওই রাতে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তুলে পুলিশ বাহিনী। সাড়ে তিনঘণ্টার সেই প্রতিরোধ যুদ্ধের কথা জনিয়েছেন তিন মুক্তিযোদ্ধা।

শাহজাহান মিয়া ছিলেন ওয়্যারলেস অপারেটর। আবু শামা ছিলেন অস্ত্রাগারের দায়িত্বে একজন পুলিশ কনস্টেবল। আর আব্দুল আলী পুলিশের তৎকালীন আইজি তসলিম উদ্দিনের বডিগার্ড। তিনজনই থাকতেন রাজারবাগে।

তারা ডয়চে ভেলেকে জানান, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের পরই ভিতরে ভিতরে প্রস্তুতি চলছিল। ২৫ মার্চ বিকেল থেকেই রাজারবাগের আশেপাশের সড়কে ট্রাকে করে রেকি করে পাকিস্তানি বাহিনী। আর রাত ৯টার পরই খবর আসে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে আক্রমণ হতে পারে।

তখন রাজারবাগের অস্ত্রাগার খুলে চার শতাধিক অন্ত্র নিয়ে পুলিশ সদস্যরা আশাপাশ এলাকায় অবস্থান নেয়।  রাত সাড়ে ১১টায় দ্বিতীয় দফা পাগলা ঘণ্টা বাজিয়ে অস্ত্রাগারের সব অস্ত্র বিলি করা হয় পুলিশ সদস্যদের মাঝে। এরপর রাত সাড়ে ১১টার কিছু পরে পাকিস্তানি সেনারা রাজাররবাগের দিকে আসতে শুরু করলে পথেই প্রতিরোধের মুখে পড়ে।

শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে পাকিস্তানি বাহিনী চামেলিবাগে প্রথম পুলিশ ব্যারিকেডের মুখে পড়ে। সেখানেই দুই পাকসেনা পুলিশের গুলিতে নিহত হয়। এটাই ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামের পক্ষে, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে প্রথম বুলেট। আমি এবং ওয়্যারলেস অপারেটর মনির তখন ওয়্যারলেস রুমে চলে যাই। সেখানে একটি ওয়্যারলেস বার্তা লিখে তা ১৯ জেলা, ৩৬টি সাব ডিভিশন এবং সব পুলিশ লাইন্সে পাঠিয়ে দেই। বার্তাটা ছিল: ‘দ্য বেস ফর অল স্টেশন পূর্ব পাকিস্তান পুলিশ, কীপ লিসেনিং, ওয়াচ, উই আর অলরেডি অ্যাটাকড বাই পাক আর্মি, ট্রাই টু সেভ ইয়োরসেলফ, ওভার এন্ড আউট।’ আমি বেশ কয়েকেবার ম্যাসেজটি ট্রান্সমিট করি। তখন চারদিকে হাজার হাজার গুলির শব্দ। আমরাও তখন অন্ত্র নিয়ে পুলিশ লাইনের চার তলার ছাদে চলে যাই।’

আবু শামা বলেন, ‘২৫ মার্চ রাত সাড়ে ৯টার দিকে আমরা রাজারবাগ অস্ত্রাগারের সামনে স্বাধীন বাংলাদেশের পাতাকা উত্তোলন করি। স্লোগান দেই বীর বাঙালি অস্ত্র ধর বাংলাদেশ স্বাধীন কর। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। তখন অস্ত্রাগারের দায়িত্বে থাকা সুবেদার আবুল হাসেম অস্ত্রাগারে তালা মেরে চাবি আর আই মফিজ সাহেবের কাছে রেখে পালিয়ে যান। আমরা খবর পাই ক্যান্টনমেন্ট থেকে সেনাবাহিনী বের হয়েছে। তখন আমরা মফিজ সাহবেবের বাসায় দৌঁড়ে গিয়ে চাবি নিয়ে আসি। তিনি চাবি দিতে চাননি। আমরা জোর করে চাবি এনে অস্ত্রাগার খুলে দিই। রাইফেল নিয়ে আমরা পজিশনে চলে যাই। অস্ত্রাগার তালা মেরে দেয়া হয়। রাত সাড়ে ১১টার দিকে আমাদের ওপর যখন চূড়ান্ত আক্রমণ শুরু হয় তখন আমরা পাগলা ঘণ্টা বাজাই। তখন বাকি যারা ছিলেন তারাও বের হয়ে এসে অস্ত্রাগার ভেঙ্গে বাকি অস্ত্র হাতে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা আমরা প্রতিরোধ চালিয়ে যাই, লড়াই করি। এই সময় পাকিস্তানি বাহিনী রাজারবাগ পুলিশ লাইনের ভিতরে ঢুকতে পারেনি। সাড়ে তিন ঘণ্টা পর আমাদের গুলি ফুরিয়ে যায়। এরপর চারটি ব্যারাকে পাকিস্তানি বাহিনী আগুন ধরিয়ে দেয়।’

তৎকালীন আইজিপি’র বডিগার্ড আব্দুল আলী বলেন, ‘রাত সাড়ে ১১টার দিকে আমি বঙ্গবন্ধুর ছেলের (শেখ কামাল) মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনা পাই। আর তখন পাগলা ঘণ্টা বাজিয়ে ফোর্স জমায়েত করি। তখন চাবি না পেয়ে রাইফেল দিয়ে অস্ত্রাগারের তালা ভাঙ্গা হয়। আমি নিজেই অস্ত্রাগারে ঢুকে সহকর্মীদের হাতে অস্ত্র তুলে দিই। রাত সাড়ে ১২টার দিকে রাজারবাগের কাছে যখন পাকিস্তানি সেনাবাহিনী পৌঁছে যায় তখন আমরা রাজারবাগ থেকে গুলি ছুড়ে যুদ্ধ শুরু করি। তারা কামান ও ট্যাংকের গোলা ছোড়ে। আমরা ৩০৩ রাইফেল দিয়ে জবাব দিই।’

এই মুক্তিযোদ্ধা বলেন, ‘২৬ মার্চ ভোরে পাকিস্তানি বাহিনী রাজারবাগ পুলিশ লাইনের ভিতরে প্রবেশ করে, এসময় একটি চারতলা ভবনের ছাদে পানির ট্যাংকের নীচে আমরা অনেকে লুকিয়ে ছিলাম। আরো বিভিন্ন জায়গায় ২০/২৫ জনকে পায় তারা। বাকিরা বাইরে চলে যেতে সক্ষম হয়। আমাদের আটক করে বেয়নেট দিয়ে খুচিয়ে নির্মম নির্যাতন করা হয়। আমরা তখন অনেক পুলিশ সদস্যদের লাশ পরে থাকতে দেখি। দেড়শ’র মত পুলিশ সদস্য প্রাণ হারান।’

আব্দুল আলী বলেন, ‘আমাদের ২৮ মার্চ পর্যন্ত বন্দি রাখা হয়। এই সময়ে আমাদের কোনো খাবার, এমনকি পানিও দেয়া হয়নি। এরপর আমাদের ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার ই এ চৌধুরীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। আমাদের সেখান থেকে ছেড়ে দিয়ে একটি নির্দিষ্ট দিনে কাজে যোগ দিতে বলা হয়। কিন্তু আমরা তা করিনি। আমরা পালিয়ে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেই।’

তারা তিনজনই প্রথমে ভারতে যান। সেখান থেকে ফের বাংলাদেশে প্রবেশ করে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।

শাহজাহান মিয়া তাঁর তিন ভাইকে নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। যুদ্ধ করেন ৯ নম্বর সেক্টরে। তাঁর এক ভাই মুক্তিযুদ্ধে শহিদ হন। আর আবু শামা ৩ নম্বর সেক্টরের অধীনে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে গুরুতর আহত হন। আব্দুল আলি মেঘালয়ে প্রথমে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করেন। এরপর ময়মনসিংহ এলকায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তারা তিনজনই চাকরিতে যোগ দেয়ার পর অবসরে যান। তবে এরমধ্যে আব্দুল আলীকে জিয়াউর রহমানের শাসনামলে বিচারের মুখোমুখি হতে হয়েছিল। আব্দুল আলী বলেন, ‘১৯৭৭ সালে জিয়ার সময়ে স্পেশাল মার্শাল ল’ ট্রাইবুন্যালে আমাকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। ২৫ মার্চ রাজারবাগে পাগলাঘণ্টা বাজান, অস্ত্রাগার ভাঙ্গা এইসব অপরাধে আমাকে তখন ফাঁসিতে ঝোলানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়। পরে চাকরিচ্যুতির শর্তে আমি প্রাণে বেঁচে যাই।’

সূত্র: ডয়চে ভেলে

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH