বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

কক্সবাজারের প্রতিটি বাড়ি হতে পারে এক একটি ‘ট্যুরিস্ট হোম’- ড. হাবিবুর রহমান

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ মে, ২০১৮
  • ৩৩৬ Time View

আব্দুল আলীম নোবেল,কক্সবাজার।

।।স্পেশাল করেস্পন্ডেন্ট।।

বিশ্বের শীর্ষ ধনীরাষ্ট্র কাতারের আমীরের(প্রধানমন্ত্রী) ইতিহাস ও গবেষণা বিষয়ক উপদেষ্টা প্রখ্যাত কৌশলগত নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ, ইতিহাস লেখক ড. হাবিবুর রহমানের সাথে প্রতিবেদকের একান্ত অালাপাচারিতায় কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনা,পরিকল্পিত উন্নয়ন ও নানা সীমাবদ্ধতা নিয়ে তিনি কিছু তাৎপর্যপূর্ণ প্রস্তাবনা তুলে ধরেন ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচা করেন।

তিনি বলেন “বিশ্বের সাথে তাল মিয়ে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প দ্রুত বিকশিত হচ্ছে এটি অস্বীকার করার কোন উপায় নেই।ঊন্নয়ন ও অগ্রগতির দিকে এগিয়ে চলা,কক্সবাজারের পর্যটন খাতে প্রচুর অর্থনৈতিক সম্ভবনা এবং পরিচিতির ক্ষেত্রে একটি ভাল দিক বর্তমানে আমাদের রয়েেছ। চাইলে কক্সবাজার পর্যটন শিল্পের আয় দিয়ে দেশের বাজেটের অর্ধেক চাহিদা মেটানো সম্ভব;তবে এখনকার মত অপরিকল্পিত নগারায়ণ মোটেও ভাল ফলাফল বয়ে আনবে না। সবার আগে পরিকল্পিত নগরায়ণের দিকে মনযোগ দিতে হবে। দীর্ঘমেয়াদী মাস্টার প্লানের আওতায় যে কোন স্থাপনা তৈরি করতে হবে।”

তিনি আরো বলেন,“এই ক্ষেত্রে সরকার কক্সবাজারের স্থানীয়দের মতামতের ভিত্তিতে এগিয়ে নিয়ে যেতে পরে এ শিল্প। দেশীয় পর্যটকের পাশাপাশি বিদেশী পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে প্রথমত কক্সবাজারে সস্তা খাবার, যানযট মুক্ত সড়ক, পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নগরী ও পর্যটকদের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব দিতে হবে সবার আগে। সী সাইডের দিকে উঁচু উঁচু দালান নির্মাণ মোটেও সর্মথন করা যাবে  না। এরক নির্মাণশৈলী বিশ্বের কোথাও আমি দেখিনি। পর্যটকদের যদি নির্মল বাতাস ও প্রাণ খোলে সাগর দেখার সুযোগ দেয়া না যায় তাহলে এখানে কি জন্য  পর্যটকরা আসবে । কক্সবাজার থেকে শাহ পরীর দ্বীপ পর্যন্ত মেরিন ড্রাইভ সড়কের পশ্চিম পাশে কোন ধরণের স্থাপনা থাকতে দেয়া যাবে না। সাগর দেখার পাশাপাশি পর্যটকদের কক্সবাজারের ইতিহাস ঐতিহ্য, গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্পটসমূহ দেখার সুযোগ সুবিধা বাড়াতে হবে সংশ্লিষ্টদের”

এছাড়া তিনি আরো বলেন,” কক্সবাজার শহরের প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল, গেষ্ট হাউজ, এর পরেও আগামীতে আরো অনেক স্থাপনা দরকার হবে। পর্যটন মৌসুমের সময় পর্যটকদের জায়গা দিতে না পারায় পর্যটকদের নানা ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এতে একটি নতুন ধারণা দেয়া যেতে পারে, যেমনটি- কক্সবাজারের শহরের প্রতিটি বাড়ি এক একটি টুরিষ্ট হোম হতে পারে। স্থানীয়দের বাড়িতে এক রুম বা দুই রুমের ঘর তৈরি করতে হবে। সেটি হবে অত্যন্ত সাজানো-গোছানো ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। পর্যটক আসলে ঘরোয়া পরিবেশে তাদের জন্য বাড়ির লোকেরাই খাবার পরিবেশন করবে। মাটির পাতিলে খাবার রান্না হবে, বাসন প্লেইটও মাটির হবে। সেখানে কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহী খাবার দাবার থাকবে। যতগুলো বাড়িতে টুরিষ্ট হোম থাকবে সবাই মিলে একটি টুরিষ্ট কলসেন্টার থাকবে। পর্যটকরা সেখানে গিয়ে বুকিং দিয়ে তাদের সেবা গ্রহণ করবে। এতে শহরের উপর বিশাল একটি চাপ কমবে পাশাপাশি স্হানীয় জনগোষ্ঠী আর্থিকভাবে লাভবান হবে যা এ শিল্পের ঊন্নয়নে তাৎর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে “।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH