বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০১:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
নববধূ সেজে ঢাকা থেকে ইয়াবা কিনতে এসে পুলিশের হাতে ধরা উখিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা গ্রেফতার কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইজিবাইক (টমটম) গলার ফাঁস! কক্সবাজার শহরে দীর্ঘ যানজট

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ মে, ২০১৮
  • ৪০২ Time View

নাওশাদ আনাচ শান্ত, স্টাফ করেসপনডেন্ট :

পর্যটন শহর কক্সবাজার। দেশি বিদেশী পর্যটক সহ জেলার প্রত্যন্ত জনপদের মানুষ আসেন এই শহরে। কিন্তু শহরের যানজটের কবলে পড়ে জনদূর্ভোগের শেষ নেই। শহরে যানজটের অন্যতম প্রধান কারণ ব্যাটারী চালিত ইজিবাইক (টমটম)। এই শহরে ইজিবাইকের সংখ্যা এতটাই বেড়েছে যে, হেঁটে রাস্তা পার হওয়া দায় হয়ে পড়েছে শহরের বাসিন্দাদের। বিশেষ করে পর্যটন শহরে ইজিবাইকের আধিক্যে রীতিমতো আতঙ্কিত শহরবাসী। কম খরচে দ্রুত চলাচলকারী এ যানটি বর্তমানে শহরবাসীর কাছে অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিয়ন্ত্রণহীন ইজিবাইকের কারণে প্রতিদিনই ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। মারা পড়ছে অনেক তাজা প্রাণ।

কক্সবাজার জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক প্রতিটি সভায় ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে জোরালো আলোচনা হয়ে আসছে। জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও পৌর মেয়র সহ কমিটিরি অন্যান্য সদস্যদের উপস্থিতিতে কমিটির সদস্যরা ক্ষোভ ও হতাশা নিয়ে সমস্যা সমাধানের জন্য বারবার প্রশাসন, পুলিশ ও মেয়রের কাছে দাবি জানান। হবে-হচ্ছে বলে গত ৭/৮ বছর চলে গেলেও তা নিয়ন্ত্রণে সামান্য উদ্যোগ ও অগ্রগতি নেই বলে শহরবাসীর মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এদিকে, বর্তমানে জেলা শহরে কতটি ইজিবাইক রয়েছে তার কোনো হিসাব ট্রাফিক পুলিশ, বিআরটিএ কিংবা পৌরসভায় নেই। তবে কক্সবাজার পৌরসভা ও ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তাদের মতে শহর ও শহরতলিতে এ গাড়ির সংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এর বাইরে তিন চাকার অন্যান্য যান ও রিকশাও রয়েছে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক।
সরেজমিন দেখা গেছে, ইজিবাইক-জটে শিশু শিক্ষার্থীরা স্কুল থেকে সড়কের ওপারে পৌঁছতে পারে না। এ অবস্থায় ওপারে দাঁড়িয়ে থাকা অভিভাবকরা পড়েন বিপাকে। ফলে কমপক্ষে ২০-৩০ মিনিট দাঁড়িয়ে থেকে একসঙ্গে বাড়ি ফেরে ছাত্রী ও তার অভিভাবকরা। ইজিবাইকের কারণে পর্যটন শহরের বাসিন্দারা দীর্ঘ সময় ব্যয় করার পর বিরক্তি নিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে যান।

শহরের বাহারছড়ার বাসিন্দা মুহিম চৌধুরী বলেন, ইজিবাইক অনিয়ন্ত্রণহীন হয়ে ওঠায় দিন দিন শহরটা বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। ব্যাটারী চালিত এ যানটি শহরবাসীর গলার ফাঁস হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে একজন পৌর কাউন্সিলর জানান, প্রতিদিনই শহরতলি ও বিভিন্ন উপজেলা থেকে এবং পার্শ্ব বতী ঝিলংজা ইউনিয়ন থেকে ইজিবাইক শহরে চলে আসে। এ কারণে ইজিবাইকের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। বাইরে থেকে আসা নিয়ন্ত্রণ বন্ধ করা গেলে শহরে ইজিবাইকের চাপ কমে যাবে।

পরিবেশবাদী নেতা ইব্রাহীম খলিল মামুন বলেন, ইজিবাইকের ব্যাটারি চার্জ করতে গিয়ে চাপ পড়ছে বিদ্যুৎ বিভাগে। ফলে লোডশেডিংয়ের শিকার হয় সাধারণ জনগণ। তাছাড়া এ বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হলেও উল্লেখযোগ্য কোনো উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন কিংবা পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।

কক্সবাজার পিডিবির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী জানান, ইজিবাইকের কারণে বিদ্যুতের ওপর বাড়তি চাপ বাড়ছে। এ কারণে শহরে সঠিকভাবে সব এলাকা ও মহল্লায় সমানভাবে বিদ্যুৎ বিতরণ করতে তাদের বিপাকে পড়তে হয়।

জানা গেছে, একটি ইজিবাইকে পাঁচটি ১২ ভোল্টের বড় ব্যাটারি থাকে। ব্যাটারি পুরোপুরি চার্জ হতে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা সময় লাগে। এর বাইরে সারাদিন চালানোর জন্য দুপুরেও এক থেকে দুই ঘণ্টা চার্জে রাখতে হয়। এ জন্য প্রতিদিন একটি ইজিবাইকের ব্যাটারি চার্জের পেছনে গড়ে ১২ ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ হচ্ছে।এ কারণে বাসা বাড়ি কিংবা অফিস আদালতে চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ পাচ্ছে না।

কক্সবাজার পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে ইজিবাইক চলাচলের লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ। নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে কিছু ইজিবাইককে শহরে চলাচলের অনুমতি বা লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। এসব লাইসেন্স অধিকাংশ চালক ও মালিক নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে কিনে নিয়েছে । আবার কেউ কেউ লাইসেন্স দৈনিক ভাড়ায় চালাচ্ছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি ফরিদ উদ্দীন থান বলেন, ইজিবাইকের আধিক্য নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে এ শহরে স্বাভাবিক বসবাস ও চলাফেরা বন্ধ হয়ে যাবে। একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা অত্যন্ত জরুরি বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

জানতে চাইলে পৌর মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী জানান, পর্যটনে ভরা একটি শহর। কিন্তু ইজিবাইকের আধিক্য শহরের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্ট করে দিচ্ছে। এতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ ও জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Source: www.newscoxsbaar.com

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH