রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:২২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে আ.লীগ-বিএনপি ও জামায়াতের লবিং : ২৫ জুলাই নির্বাচন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ জুন, ২০১৮
  • ৬৫০ Time View

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন :

কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচনের তফশীল ঘোষণা আগে থেকেই মেয়র ও কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে  অংশ নিতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাটে ময়দানে চষে বেড়িয়েছেন। এবার নির্বাচনে অংশ নিতে আ’লীগ-বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থীরা লবিং শুরু করেছেন।

এই পৌরসভার নির্বাচনী তফসিল ঘোষনার সাথে সাথে গা ঝারা দিয়ে উঠছেন সম্ভ্যাব্য কাউন্সিলর ও মেয়র প্রার্থীগণ। ইতিমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা দৌড় ঝোপ শুরু করেছেন। এলাকার বিবাহ, মেজবান, মাহফিল, খেলাধূলাসহ নানা অনুষ্ঠানে যথাসাধ্য উপস্থিত হচ্ছেন। যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন দলের নেতার্কীদের সাথে। তদবীর চালাচ্ছেন উপরের মহলে।

আগামী ২৫ জুলাই  নির্বাচনের দিন তারিখ ঠিক হয়েছে। ইতিমধ্যে এলাকাবাসীর মাঝে শুরু হয়েছে র্নিবাচনি গুঞ্জন। এবারের নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে অংশ নিচ্ছেন গত বারে পরাজিত একাধিক প্রার্থী ছাড়াও নতুন নেতৃত্ব এবং নতুন মুখ।

কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে কে কে প্রার্থী হবেন, শেষ র্পযন্ত কে কে নির্বাচন করবেন। কে কে জয়লাভ করবেন মূলত এসব বিষয় নিয়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা ও জল্পনা কল্পনা। ইতোমধ্যে বিএনপি’র সম্ভাব্য প্রার্থীরা মেয়র পদে মনোনয়নের জন্য লবিং শুরু করেছেন।

অপরদিকে, আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা ইতোমধ্যে গনসংযোগ শুরু করেছেন। জামায়াত দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে না পারলেও দলের সমর্থনে একজন প্রার্থী মেয়র পদে নির্বাচন করবে। মেয়র পদে কোন ভাবেই বিএনপিকে ছাড় দেবে না জামায়াত এটি নিশ্চিত করেছেন জেলা জামায়াতের একটি সুত্র।

কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলার নির্বাচনের তফশীল ঘোষিত হওয়ার পর সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৎপর হয়ে উঠেছেন। দলীয় প্রতীকে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন। ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৎপরতা শুরু করেছেন। দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ৫/৬ জন থাকলেও পৌর এলাকায় প্রতিনিধি সম্মেলনের মাধ্যমে ব্যাপক গনসংযোগে নেমেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান।

তিনি ইতোমধ্যে পৌরসভার অধিকাংশ ওয়ার্ডে প্রতিনিধি সভা ও গনসংযোগ করছেন। কুশল বিনিময় করছেন সাধারণ মানুষের সাথে। পৌর এলাকা ভিত্তিক রাজনীতিতে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন তিনি এমন প্রচারণা রয়েছে পৌর এলাকায়।

অন্যদিকে, পৌরসভার বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরীও দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী। তিনি স্বল্প সময়ে পৌর এলাকায় জলাবদ্ধতা নিরসন ও অভ্যন্তরীণ সড়কের উন্নয়নের মাধ্যমে পৌরবাসীর দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

তিনিও দলের মনোনয়ন পাওয়ার জন্য জোর তৎপরতা শুরু করেছেন। এ ছাড়াও দলের মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছেন পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আবছার, রাশেদুল ইসলাম ও কাইছারুল হক জুয়েল।

এদিকে, কক্সবাজার বিএনপিও পৌর নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে। বিগত পৌর নির্বাচনে কোন সময়ই পৌর চেয়ারম্যান কিংবা মেয়র পদে দলটি বিজয়ী হতে পারে নি। এবার মেয়র পদে জোর প্রতিদ্বন্দিতা করবে বলে জানিয়েছে নেতৃবন্দ। গত পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি সমর্থিত কোন প্রার্থী না থাকায় জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীকে তারা সমর্থন দিয়েছিল।

আওয়ামী লীগে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী সরওয়ার কামাল বিজয়ী হন। পরে দুর্নীতি ও নাশকতার মামলায় অভিযোগপত্র গৃহীত হওয়ায় তাকে সাময়িক বহিস্কার করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এরপর থেকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন মাহবুবুর রহমান চৌধুরী।

বিএনপি’র দলীয় সুত্রে জানা যায়, পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি রফিকুল হুদা চৌধুরী, পৌর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক রাসেদ মোঃ আলী, নাসিমা আকতার বকুল, পৌরসভার প্যানেল মেয়র জিসান উদ্দিন জিসান , প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম ও কাউন্সিলর আশরাফুল হুদা ছিদ্দিকী জামসেদ সম্ভাব্য প্রার্থী। এ ছাড়া জামায়াত এর সমর্থন নিয়ে নির্বাচন করতে আগ্রহী বহিস্কৃত মেয়র সরওয়ার কামাল।

তবে, জামায়াত কক্সবাজার পৌরসভায় মেয়র পদে একক প্রার্থী দেবেন বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা জামায়াতের একটি সুত্র। তারা কোন ভাবেই কক্সবাজার পৌর নির্বাচনে বিএনপিকে সমর্থন দেবে না। নিজেদের অস্থিত্ব রক্ষায় নির্বাচনে থাকবে জামায়াত।

কক্সবাজার পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী জানিয়েছেন, তবে দলের মনোনয়ন পেলে মেয়র পদে অবশ্যই নির্বাচন করবেন। তাই দলের মনোনয়ন বোর্ড যে সিদ্ধান্ত দেবে তাই মেনে নেব। তিনি বলেন, দলে কোন বিভেদ হওয়ার আশংকা নেই।

পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রাসেদ মোঃ আলী জানিয়েছেন, পৌর নির্বাচনের জন্য বিএনপি প্রস্তুতি নিচ্ছে। রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরে কেন্দ্রিয় নির্দেশনা মোতাবেক প্রার্থী চুড়ান্ত হবে এতে কোন সন্দেহ নেই। দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে এমন প্রত্যাশা সকলের।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, গত পৌর নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থী ছিলাম, এবারও দলের মনোনয়ন পাবেন এমন আশাবাদী তিনি। দলের জন্য কাজ করেছি, কক্সবাজারে আওয়ামী লীগকে সাংগঠনিকভাবে আরো শক্তিশালী করেছি। আশাকরি দলের মনোনয়ন পেলে মেয়র পদটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে পারব।

এদিকে,  কক্সবাজার পৌর নির্বাচনের তফশিল ঘোষানা করা হয়েছে। আজ রোববার এ তফশীল ঘোষনা করা হয় ঘোষিত তফশীল অনুযায়ী ২৪ জুন মনোনয়ন পত্র জমার শেষ দিন। ২৬ জুন বাছাই ও ৩ জুলাই প্রত্যাহারের শেষ দিন। ভোট গ্রহন হবে ২৫ জুলাই। কক্সবাজার জেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ মোজাম্মেল হোসাইন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কক্সবাজার পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১১ সালের ২৭শে জানুয়ারী। ৪ ফেব্রুয়ারি নির্বাচিতদের গেজেট প্রকাশিত হয়। একই বছরের ১৯শে ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনের কার্যালয়ে নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণের সময় নির্ধারিত ছিল। অন্যান্য পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলররা শপথ গ্রহণ করলেও ৪ দফা সময় পরিবর্তনের পরেও শপথ গ্রহণ হয়নি। ফলে আগের পৌর পরিষদ দীর্ঘ আড়াই বছর বাড়তি দায়িত্ব পালন করে।

পৌরসভার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের শপথ গ্রহণের দাবীতে ২০১৩ সালের ২৭শে জানুয়ারি কক্সবাজারে হরতাল পালন করে। পরে ২০১৩ সালের ২০শে জুলাই নির্বাচিত পৌর মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ বাক্য পাঠ করান জেলা প্রশাসক।

শপথ নিয়ে দায়িত্ব নেয়ার পর নির্বাচিত মেয়র সরওয়ার কামাল বেশিদিন দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। তার বিরুদ্ধে একাধিক নাশকতার মামলা ও দুর্নীতির মামলার অভিযোগপ্রত্র আদালত গ্রহণ করায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় মেয়র সরওয়ার কামালকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করে।

পরবর্তীতে মন্ত্রণালয় ২০১৫ সালের ২৪শে নভেম্বর প্যানেল মেয়রকে দায়িত্ব গ্রহণ করতে চিঠি ইস্যু করেন। প্যানেল মেয়র-১ জিসান উদ্দিন ও প্যানেল মেয়র-২ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা থাকায় তারাও দায়িত্বভার নিতে পারেননি।

প্যানেল মেয়র-৩ কোহিনুর ইসলাম সহ অন্যান্য কাউন্সিলাররা বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরীকে সমর্থন করায় মন্ত্রণালয় মাহবুবুর রহমান চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসাবে দায়িত্ব প্রদান করেন। সেই থেকে মাহবুবুর রহমান চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH