বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৪১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

রোহিঙ্গা শিবিরে ১০ মাসে হাতির আক্রমণে নিহত ১৩

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২১ মে, ২০১৮
  • ২৯৪ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বিগত ১০ মাসে কুতুপালং-বালুখালি শিবিরে বন্যহাতির আক্রমণে ১৩ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে শরণার্থী এলাকায় হাতি-মনুষ্য বিরোধ নিরসন ও পরিবেশ সচেতনতায় কুতুপালংয়ে মঙ্গলবার (২২ মে) যৌথভাবে কর্মসূচি পালন করবে ইউএনএইচসিআর ও আইইউসিএন।
সোমবার (২১ মে) ঢাকার ইউএনএইচসি আর অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
এতে বলা হয়, ২২ মে আন্তর্জাতিক জীববৈচিত্র্য দিবস উদযাপন উপলক্ষে কুতুপালং শরণার্থী স্থাপনায় এলিফ্যান্ট রেসপন্স টিম (ইআরটি)-এর সদস্য হিসেবে কর্মরত রোহিঙ্গা শরণার্থী স্বেচ্ছাসেবকরা মঙ্গলবার সেখানে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেবে।
কুতুপালংয়ে শরণার্থীদের সঙ্গে ‘হাতিদের দ্বন্দ্ব’ কমাতে বাংলাদেশে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর এবং সহযোগী সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) এর যৌথ উদ্যোগে ইআরটি সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।
মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে আসা আনুমানিক ৬ লাখ শরণার্থীকে স্থান করে দেওয়া উচ্চ ঘনবসতিপূর্ণ এ শরণার্থী শিবিরের জায়গাটিতে এক সময় ঘন বন ছিল। এখন সেখানে হাজার হাজার অস্থায়ী শরণার্থীর বাসস্থান নির্মাণ ও সেবার জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। এ অঞ্চলটি এক সময় এশিয়ান বন্যহাতিদের মিয়ানমার ও বাংলাদেশে চলাচলের অন্যতম রাস্তা ছিল। এশিয়ান হাতিরা গুরুতরভাবে বিপন্ন একটি প্রজাতি, যাদের সংখ্যা আনুমানিক ২৬৮টি।
এটি ইউএনএইচসিআর ও আইইউসিএন-এর প্রকল্পের একটি অংশ যেখানে সরকারি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ হচ্ছে এবং কক্সবাজারে শরণার্থী শিবির স্থাপনের ফলে যে বিভিন্ন পরিবেশগত প্রভাবগুলো সৃষ্টি হয়েছে সেগুলো কমিয়ে আনার চেষ্টা হচ্ছে।
অন্য পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গা ও স্থানীয় বাংলাদেশিদের মধ্যে বনসম্পদের গুরুত্ব, শরণার্থী শিবির, তৎসংলগ্ন এলাকায় পরিবেশের উন্নতির জন্য পরিবেশগত শিক্ষা ও সচেতনতা বাড়ানো। প্রাকৃতিক সম্পদ ও পরিবেশ যাতে ভালোভাবে রক্ষা করা যায় এর জন্য বনায়নের ব্যাপারেও প্রচারণা চালানো হবে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH